ছাত্রদলের সাবেক নেতারাই এখন বিএনপির কাণ্ডারি

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ জুলাই ২০১৭ | ৬ শ্রাবণ ১৪২৪

ছাত্রদলের সাবেক নেতারাই এখন বিএনপির কাণ্ডারি

শিহাবুল ইসলাম ১:৪১ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০১৭

print
ছাত্রদলের সাবেক নেতারাই এখন বিএনপির কাণ্ডারি

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর বিএনপি প্রতিষ্ঠা করেন। দলটির ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব তৈরির জন্য ১৯৭৯ সালের ১ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠাতা করেন ছাত্রদল। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ছাত্রদলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনকারী নেতারাই এখন বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে রয়েছেন। সাবেক ছাত্রদলের এই সব নেতাই এখন দলটির মূল ‘কাণ্ডারি’!

ছাত্রদলের দায়িত্বশীল সূত্রে জানা যায়, ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে ছাত্রদলের আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেন কাজী আসাদুজ্জামান, গোলাম সারোয়ার মিলন, আবুল কাশেম চৌধুরী। সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন এনামুল করিম শহীদ, গোলাম সারোয়ার মিলন, আবুল কাশেম চৌধুরী, শামসুজ্জামান দুদু, জালাল আহমেদ, আসাদুজ্জামান রিপন।

১৯৯০ সাল থেকে ১৯৯৯ সালের বিভিন্ন সময় সভাপতি ছিলেন, রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, ফজলুল হক মিলন, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, হাবিব-উন-নবী সোহেল। এছাড়া ১৯৯০ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত আহ্বায়ক ছিলেন আমান উল্লাহ আমান।

২০০০ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত আহ্বায়ক ছিলেন নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু, মো. সাহাবুদ্দিন লাল্টু, আজিজুল বারি হেলাল, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু। ২০০৯ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত সভাপতি ছিলেন সুলতান সালাউদ্দিন টুকু। ২০১২ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন আব্দুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল। ২০১৫ সাল থেকে বর্তমান সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন রাজীব আহসান।

৫০২ সদস্য বিশিষ্ট বিএনপির বর্তমান নির্বাহী কমিটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, দলটির স্থায়ী কমিটি থেকে শুরু করে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব, ভাইস চেয়ারম্যান, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য পদ পেয়েছেন ছাত্রদলের সাবেক অনেক নেতা।

এছাড়া অনেক সাবেক ছাত্রনেতা বিএনপির অন্যান্য অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন যেমন যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, শ্রমিক দল, কৃষক দলের নেতৃত্বে রয়েছেন।

বিএনপির বর্তমান কমিটিরি ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাজী আসাদুজ্জামান, আমান উল্লাহ আমান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নাবী খান সোহেল, বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি।

এবিএম মোশারফ হোসেন বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক, ফজলুল হক মিলন সাংগঠনিক সম্পাদক। নির্বাহী কমিটিতে রয়েছেন, নাজিম উদ্দিন আলম। শফিউল বারী বাবু বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি, আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক, হাবিবুর রশিদ হাবিব বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সম্পাদক।

এমনকি ছাত্রদলের সভাপতি বা আহ্বায়ক না হয়েও এর চেয়ে নীচের পদ থেকে দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির সদস্য হয়েছেন সালাউদ্দিন আহমেদ।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত ছাত্রদলের ভূমিকা কি জানতে চাইলে ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘আমি মনে করি ছাত্রদল সব সময়ই গণতন্ত্রের পক্ষে, নাগরিক স্বাধীনতার পক্ষে সংগ্রাম করেছে। বাক স্বাধীনতার পক্ষে গঠনমূলক রাজনীতি করেছে।

‘ছাত্রদলের বেশীরভাগ নেতা ক্রমাগত রাজনীতি করে জাতীয় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়েছে এবং আমি বলবো যারা আমরা ছাত্রদলের নেতৃত্বে ছিলাম তারা এখন দলে ভালো অবস্থানেই আছি,’ বলেন রিজভী।

তিনি আরো বলেন, ‘ছাত্রদলের ব্যাকগ্রাউন্ড যাদের তারা দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন। এটাই স্বাভাবিক। তরুণরা যখন আসে তখন একটা সংগঠনের প্রাণ সঞ্চার হবে রক্ত সঞ্চার হবে, প্রাণ শক্তিশালী হবে এটাই স্বাভাবিক।‘’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন একসময় বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন।

তিনি বলেন, ‘যেকোনো দলের অনুসারী ছাত্র সংগঠনই সেই দলের নেতা রিক্রুটিংয়ের সেন্টার হিসেবে পরিগণিত হয়। সে দায়িত্ব ছাত্রদল ভালোভাবেই পালন করছে। আজকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি ও জেলা কমিটি আছে এগুলোর দিকে তাকালে দেখা যায় যে সাবেক ছাত্রদল নেতাদের বিরাট অংশ বিভিন্ন নেতৃত্বে রয়েছে।

‘কেন্দ্রীয় বা জেলা যেখানেই বলুন সেখানেই যারা নেতৃত্বে আছেন তাদের মধ্যে বিশাল অংশ ছাত্রদলের প্রোডাক্ট। সে ক্ষেত্রে ছাত্রদল অত্যন্ত সফলতার সাথে তাদের দায়িত্ব পালন করছেন,’ যোগ করেন তিনি। 

ড. খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘আমাদের দলের প্রত্যেকটা যুগ্ম মহাসচিব ছাত্রদলের প্রোডাক্ট। অনেক ভাইস চেয়ারম্যানও ছাত্রদলের প্রোডাক্ট। এছাড়া স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন আহমেদও ছাত্রদলের নেতা ছিলেন। বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির দিকেই তাকালে দেখা যায় ছাত্রদলের নেতারা বড় রোল প্লে করছে, বলা যায় ছাত্রদলের নেতারা এখন বিএনপির কাণ্ডারি হিসেবে রয়েছেন।’

১৯৮৩ সাল থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত ছাত্রদলের সভাপতি ছিলেন শামসুজ্জামান দুদু।

বিএনপিতে ছাত্রদলের ভূমিকা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, শ্রমিক দল, কৃষক দল বা কোনো কোনো সংগঠনের পুরোটাই এখন ছাত্রদলের সাবেক নেতারা আছেন।’

‘এছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটি থেকে শুরু করে সমগ্র বিএনপিতে একটা বড় অংশ ছাত্রদলের সাবেক নেতারা। তারা এখন দলে অনেক বড় ভূমিকা পালন করছেন,’ বলেন তিনি।

এসআই/এসবি/এএসটি

print
 

আলোচিত সংবাদ