২০১৮ সালে জাকারবার্গের প্রতিজ্ঞা কী?

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ এপ্রিল ২০১৮ | ৬ বৈশাখ ১৪২৫

২০১৮ সালে জাকারবার্গের প্রতিজ্ঞা কী?

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:৪৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ০৫, ২০১৮

print
২০১৮ সালে জাকারবার্গের প্রতিজ্ঞা কী?

মার্ক জাকারবার্গ জানিয়েছেন ২০১৮ সালে তার প্রতিজ্ঞা হচ্ছে ফেসবুককে ঠিক করা। ২০০৯ সাল থেকে জাকারবার্গ প্রতি বছর একটি করে লক্ষ্য অর্জন করার ঘোষণা দিয়ে আসছেন।

আগের বছরগুলোতে জাকারবার্গ প্রতিদিন টাই পরা, ম্যান্ডারিন ভাষা শেখা এবং নিজের হাতে মারা পশু ছাড়া অন্য কিছুর মাংস না খাওয়ার প্রতিজ্ঞা করেন।

গত বছর তিনি নববর্ষের প্রতিজ্ঞা হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের সবগুলো রাজ্যে ভ্রমণ করেন।

এবছরের প্রতিজ্ঞা থেকে বুঝা যাচ্ছে জাকারবার্গ ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী হিসেবে তার দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন।

একটি পোস্টে তিনি লেখেন, ‘এটাকে দৃশ্যত কোনো পার্সোনাল চ্যালেঞ্জ মনে হচ্ছে না। কিন্তু এই বিষয়ে বিশেষ মনোযোগ দিলে আমি যতটা শিখতে পারব অন্য কিছু করে অতটা শিখতে পারব না।’

তিনি জানান, ফেসবুক সব ত্রুটি ও অপব্যবহার থামাতে পারবেন না, তবে বর্তমানে ‘অতিরিক্ত পরিমাণে ভুল কাজ করা হচ্ছে’।

২০১৭ সাল ফেসবুকের জন্য খুব একটা ভালো ছিল না। যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের সময় ফেসবুক ব্যবহার করে রাশিয়া হস্তক্ষেপ করায় তদন্তকারী সংস্থার জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়ে সোশ্যাল সাইটটি।

এছাড়াও ফেসবুকের সাবেক কর্মকর্তা ও বিনিয়োগকারীরা বিভিন্ন ইস্যুতে বিতর্কিত ভূমিকা পালন করায় ফেসবুকের তীব্র সমালোচনা করেন।

এসব কারণে ফেসবুককে সমালোচনার ঊর্ধ্বে নিয়ে যেতে নিজের কাজটি ঠিকমতো করা ছাড়া এর কোনো উপায় নেই জাকারবার্গের।

যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপের বিভিন্ন দেশসহ অন্যান্য দেশের নীতিনির্ধারকেরা আশা করছেন সোশ্যাল সাইটটি কিছু কার্যকর পদক্ষেপ নিবে।

বর্তমানে প্রায় ২০০ কোটি মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করে। কিন্তু যদি তাদের মনে হয় সাইটটি তাদের সঙ্গে মিথ্যা বলছে কিংবা অন্য কোনো কারণে যদি তারা অসন্তুষ্ট হন, তাহলে তারা ফেসবুকের বিকল্প কিছু খুঁজে নেবেন।

এ বছরের ব্যক্তিগত চ্যালেঞ্জ বা অর্জনীয় লক্ষ্যের কথা জানাতে গিয়ে জাকারবার্গ নয় বছর আগে প্রথমবার এমন লক্ষ্য ঠিক করার কথা স্মরণ করেন।

তিনি বলেন, ‘প্রথম বছরটায় গভীর অর্থনৈতিক মন্দা বিরাজ করছিল। ফেসবুক তখনো লাভজনক হয়ে উঠেনি। একটা টেকসই ব্যবসা হিসেবে ফেসবুককে গড়ে তোলার জন্য আমাদেরকে পরিশ্রম করতে হয়েছিল। ওটা একটা কঠিন বছর ছিল, এবং তা মনে রাখার জন্য আমি ওই বছর প্রতিদিন টাই পরে বের হতাম।’

তবে, ফেসবুক বর্তমানে যেভাবে কাজ করে তাতে সাইটটির সমস্যাগুলোর আশু সমাধান কঠিন হবে। ইউজাররা যেসব জিনিসের প্রতি আগ্রহ বোধ করেন সেগুলোর সম্পর্কে তাদেরকে অবহিত করাই তাদের আয়ের প্রধান উৎস।

এভাবে অনেক সময়ই অনেক ভালো জিনিসের কথা প্রচুর সংখ্যক মানুষকে জানানো গেলেও, ভুয়া খবরও একইভাবে ভাইরাল হয়ে পড়তে পারে।

এমএর/এমএসআই

 
.




আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad