খুঁজে পাওয়া গেল ১০৩ বছর আগে হারানো সাবমেরিন

ঢাকা, সোমবার, ১৬ জুলাই ২০১৮ | ১ শ্রাবণ ১৪২৫

খুঁজে পাওয়া গেল ১০৩ বছর আগে হারানো সাবমেরিন

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:০৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২১, ২০১৭

print
খুঁজে পাওয়া গেল ১০৩ বছর আগে হারানো সাবমেরিন

প্রায় ১০৩ বছর ধরে চেষ্টা করার পর প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অন্যতম বড় রহস্যের কিনারা করা গেল। অস্ট্রেলিয়ার প্রথম সাবমেরিন এইচএমএএস এই১ পাপুয়া নিউগিনির রাবাউল উপকুল থেকে ১৪ সেপ্টেম্বর, ১৯১৪ তারিখে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিল।

গত বুধবার, ফাগ্রো ইকুয়েটর নামের একটি উদ্ধার যান পানির ৩০০ মিটার নিচে একটি কৌতূহল উদ্দীপক বস্তুর সন্ধান পায়। পরে সেটিকে এই১ সাবমেরিন বলে নিশ্চিত করা হয়। সাবমেরিনটি ডুবে যাওয়ার কারণ এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এইচএমএএস এই১ নৌ যুদ্ধের ইতিহাসের অন্যতম জটিল রহস্য হয়েছিল এতদিন। কোনো রকম সাহায্য বার্তা না পাঠিয়েই পুরোপুরি উধাও হয়ে গিয়েছিল সাবমেরিনটি। ওই সময় সাবমেরিনটিতে ৩৫ জন নাবিক ছিলেন।

১৯১৪ সাল থেকে মোট ১৩ টি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে ডুবোজাহাজটি উদ্ধার করার জন্য।

নেভির ইতিহাসবিদরা জানিয়েছেন, এই১-এর কোনও চিহ্নই তখন খুঁজে পাওয়া যায়নি। জলজান থেকে তেল ভেসে উঠলে পানির উপরে সেটি চকচক করতে  দেখা যায়। এই১-এর ক্ষেত্রে ভেসে ওঠা তেলের চিহ্নও খুঁজে পাওয়া যায়নি।

কিন্তু বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মেরিস পাইন হারিয়ে যাওয়া সাবমেরিনটি খুঁজে পাওয়া গেছে বলে জানান।

৮০০ টন ওজনের জলযানটি পাপুয়া নিউগিনির ডিউক ইয়র্কশায়ার আইল্যান্ডের কাছে পানির নিচে খুঁজে পাওয়া গেছে। সাবমেরিনে নিহত ৩৫ জন অস্ট্রেলীয় ও ব্রিটিশ নাগরিকের প্রতি আনুষ্ঠানিকভাবে শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে। অস্ট্রেলিয়া ও পাপুয়া নিউগিনির সরকার সেখানে একটি স্থায়ী স্মৃতিস্তম্ভ গড়ে তোলার জন্য আলোচনা শুরু করেছে।

এই১ ছিল প্রথম বিশ্বযুদ্ধে মিত্রবাহিনীর হারিয়ে যাওয়া প্রথম সাবমেরিন।

অবসরপ্রাপ্ত রিয়ার অ্যাডমিরাল পিটার ব্রিগস উদ্ধার অভিযানটি পরিচালনা করেন। ব্রিগস ধারণা করছেন পানির নিচে ডুব দেয়ার সময় সাবমেরিনটি কোনো কিছুর সাথে জোরে ধাক্কা খেয়ে ডুবে গিয়েছিল।

এই১ এর যে স্থানে ডুবে গিয়েছিল সেখানে পানিতে কোনো কিছু খোঁজা খুবই দুরহ। ২০১৪ নেভি জানিয়েছিল পানির নিচে সবচেয়ে বেশি জাহাজের ধ্বংসস্তুপ জমে থাকা জায়গাগুলোর মধ্যে ওই জায়গাটি অন্যতম।

এমআর/এএসটি

 
.



আলোচিত সংবাদ