অভাব থামাতে পারেনি থ্রি-ডি শিল্পীর স্বপ্ন

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭ | ৯ কার্তিক ১৪২৪

অভাব থামাতে পারেনি থ্রি-ডি শিল্পীর স্বপ্ন

আতিক রহমান পূর্ণিয়া ১:০৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০১৭

print
অভাব থামাতে পারেনি থ্রি-ডি শিল্পীর স্বপ্ন

সাধারণভাবে রাখা একটি পানির বোতল। তৃষ্ণা পেলেই এখনই ছিপি খুলে পানি পান করা যাবে। কিংবা এই হাজার টাকার নোটটি দেখে ভাবছেন হয়তো মনের ভুলে কেউ ফেলে রেখেছে। তবে চমকে যাবেন তখনই, যখন জানবেন এগুলো কোনটিই বাস্তব বা জীবন্ত নয়, আঁকা হয়েছে সমতল কাগজের উপর। 

হ্যাঁ, এরকমই ইসরাত ও সাবার থ্রি-ডি আর্ট।

আধুনিক বিশ্বে থ্রি-ডি আর্ট দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। কিন্তু দেশে এ শিল্প চর্চার কথা খুব একটা শোনা যায়নি।

দুই তরুণীর একান্ত ব্যক্তিগত আগ্রহে থ্রি-ডি আর্ট বা ত্রিমাত্রিক চিত্রচর্চা হচ্ছে ঢাকাতেই। কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই আঁকছেন দুই তরুণী ইসরাত আর সাব্রী। কেবল ইউটিউব দেখে দেখে নিজেদের আঁকা ছবি দিয়ে প্রদর্শনী আয়োজনের চিন্তাও করছেন তারা। 

থ্রি-ডি আর্ট বা ত্রিমাত্রিক শিল্পচর্চা শাখায় দেশে নেই তেমন খ্যাতিমান কোনো শিল্পী। অভাব আর প্রতিকূলতা জয় করে ইসরাত এবং সাব্রী এগিয়ে যাচ্ছেন থ্রি-ডি আর্ট নিয়ে।

ইসরাত জাহান তৃণা

তরুণ শিল্পী ইসরাত জাহান তৃণা। মায়ের ইচ্ছা আর অনুপ্রেরণায় ছবি আঁকা শুরু। কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই নিজের চেষ্টায় আঁকছেন ত্রিমাত্রিক ছবি।   

থ্রি-ডি আর্টের পাশাপাশি তৃণা ল্যান্ডস্কেচও আঁকেন নিপুণভাবে। এগুলো দেখেও বোঝার উপায় নেই যে ফটোগ্রাফ নাকি হাতে আঁকা ছবি। ইসরাতের বাবা রাজধানীর বাড্ডায় একটি ওয়ার্কসপ চালান। মা সেলাইয়ের কাজ করেন। টানাটানির সংসারে একটু একটু করে টাকা জমিয়ে এক একটি ছবি আঁকার টাকা সঞ্চয় করে রং কেনেন তৃণা।

তৃণা জানান, একটি ছবি আঁকতে তার ৫/৭ হাজার টাকার উপকরণ লাগে।

তৃণা বলেন, পৃষ্টপোষকতা পেলে আরও বড় পরিসরে থ্রি-ডি ছবি আঁকতে চান।

সাব্রী সাবেরিন আভা

তিনিও তৃণার মতোই কৌতুহল থেকেই এঁকে ফেলেছেন বেশ কয়েকটি ত্রিমাত্রিক ছবি।

নিজের ত্রিমাত্রিক শিল্পকর্ম নিয়ে তৃণার প্রদর্শনীর পরিকল্পনা থাকলেও আভা এঁকে যেতে চান শুধুই শখকে সঙ্গী করে। বুয়েটে কর্মরত আভার বাবা সব সময় তাকে উৎসাহ দিয়ে যান।

আভা বলেন, ইউটিউব থেকে দেখে প্রথম তিনি থিডি ছবি আঁকতে শুরু করেন। প্রথম দিককার ছবিগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জনপ্রিয় হওয়ায় আগ্রহ আরও বেড়ে যায়। এরপর থেকে তিনি মোটামোটি নিয়মিত থ্রি-ডি ছবি আঁকছেন।

এআরপি/এসবি

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad