স্ত্রীর হাত থেকে বাঁচতে পুলিশের নাক ফাটিয়ে জেলে!

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

স্ত্রীর হাত থেকে বাঁচতে পুলিশের নাক ফাটিয়ে জেলে!

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:১৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭

print
স্ত্রীর হাত থেকে বাঁচতে পুলিশের নাক ফাটিয়ে জেলে!

সকালেই এক ব্যক্তি থানায় এসে হাজির। ‘আমি আমার স্ত্রীকে পিটিয়েছি, আমাকে জেলে দিন। আমাকে স্ত্রীর হাত থেকে নিস্তার দিন’- বলেই কান্না জুড়ে দেন তিনি।

.

এদিকে পেছন পেছন যোগেশ নামের ওই ব্যক্তির স্ত্রীও থানায় আসেন। তিনিও স্বামীর বিরুদ্ধে তাকে মারধরের অভিযোগ করেন।

পুলিশ কর্মকর্তা বুঝতে পারলেন পারিবারিক কলহ। তাই প্রস্তাব দিলেন মামলা-মকদ্দমায় না গিয়ে নিজেদের মধ্যে মিটমাট করে নিতে। কিন্তু এই প্রস্তাব শুনতেই সপাটে পুলিশ কর্মকর্তার নাকে ঘুষি বসিয়ে দিলেন ওই ব্যক্তি।

বৃহস্পতিবার ভারতের কলকাতার জয়পুরের শিপ্রা থানায় এমন কাণ্ড ঘটেছে। পুলিশ ওই ব্যক্তিকে কারাগারে পাঠিয়েছে। তবে জেলবন্দি হয়েও যেন কোনো আফসোস নেই তার। খবর: আনন্দবাজার।

শিপ্রা থানার এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, ঘটনার দিন থানায় ছিলেন এসিপি দেশরাজ যাদব। যোগেশ ও তার স্ত্রীর কাণ্ড দেখে তিনি বুঝে যান দাম্পত্য কলহ। তাই যোগেশের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করার পরিবর্তে তিনি মিটমাটের জন্য তাদের বোঝাতে শুরু করেন।

একপর্যায়ে যোগেশের কাঁধে হাত রেখে এসিপি তাকে বোঝাচ্ছিলেন। কিন্তু জেলে যেতে নাছোড় তিনি। হঠাৎ এসিপির নাকে সজোরে একটা ঘুষি চালিয়ে বসেন যোগেশ।

পুলিশ জানায়, এসিপির নাক ফেটে রক্ত ঝরছিল। ঠোঁট দুটি ফুলে যায়। তবে তা নিয়ে যোগেশের মুখে কোনো প্রতিক্রিয়ার ছাপ ছিল না। বরং নিজের জেলেযাত্রা নিশ্চিত করতে পেরেই খুশি ছিলেন তিনি।

শেষ পর্যন্ত যোগেশের বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা এবং পুলিশ কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগ আনা হয়েছে। আহত পুলিশ কর্মকর্তা যাদব হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এমএসআই

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad