যৌনময়ী যেসব তারকা হারিয়ে গেছেন

ঢাকা, রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮ | ১০ আষাঢ় ১৪২৫

যৌনময়ী যেসব তারকা হারিয়ে গেছেন

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:৪৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৮

print
যৌনময়ী যেসব তারকা হারিয়ে গেছেন

নশ্বর পৃথিবীতে সময়ের স্রোতে সবই হারিয়ে যায়। ধন-দৌলত, রূপ-যৌবন কিছুই চিরকাল ধরে রাখতে পারে না মানুষ। কালের গর্ভে এর সবই হারিয়ে যায়। অতীতে হলিউডের যে নায়িকারা রূপ লাবণ্যের ঝলক দেখিয়ে দর্শকদের মোহিত করে রাখতেন, আজ তারাও গেছেন হারিয়ে। কিন্তু রয়ে গেছে তাদের কীর্তি! আর রয়েছে তাদের পুরনো ছবি ও ভিডিও। এমনই হারিয়ে যাওয়া কিছু মোহময়ী নায়িকাদের নিয়ে পরিবর্তনের এবারের আয়োজন।

১. জুলি নিউমার (জন্ম ১৯৩৩): কমিক্স চরিত্র ক্যাট ওমেন হিসেবে যে নায়িকার নাম সামনে চলে আসে তিনি হলিউড তারকা হ্যালি ব্যারি। ষাটের দশকের দর্শকেরা কিন্তু ক্যাট ওমেন হিসেবে চেনেন জুলি নিউমারকে। ১৯৬৬ সালে টেলিভিশন সিরিজ ‘ব্যাটম্যান’এ ক্যাট ওমেন হিসেবে আবির্ভাব ঘটে জুলি নিউমারের। জনপ্রিয়তা পেতেও দেরি হয়নি।

২. টিভির পর্দায় সত্তরের দশকে মারদাঙ্গা নায়িকা হিসেবে দর্শকদের মন জয় করেছিলেন পাম গ্রিয়ার (জন্ম:১৯৪৯)। ফক্সি ব্রাউন, সেবা সাইন এবং জ্যাকি ব্রাউন সিরিজের মাধ্যমে এই তকমা বেশ শক্ত হয়েই লাগে পাম’এর ক্যারিয়ারে। ফলে টিভি সিরিজের ইতিহাসে সেরা অ্যাকশন নায়িকা হিসেবে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করতে তার বেগ পেতে হয়নি।

৩. আগুন চুলের তাক লাগানো ঝলক আর মোহময়ী হাসি দিয়ে সত্তরের দশকে অনেক যুবকের মাথা ঘুরিয়ে দিয়েছিলেন ফারাহ ফায়েকেট (জন্ম:১৯৪৭-মৃত্যু:২০০৯)। শুধু চার্লিস এঞ্জেলস’এই নয়, বিভিন্ন ছবি এবং টিভি সিরিজে অভিনয়ের মাধ্যমে সেক্স আইকন’এ পরিণত হন ফারাহ.. জয় করেন ৪টি অ্যামি এবং ৬টি গোল্ডেন গ্লোব পুরষ্কারও। সেই সময় অনেক নারীই নাকি তার মতো স্টাইলে চুল রাখতে চাইতেন। আর ছেলেরা তার পোস্টার এত বেশি কেনে যে বিক্রির তালিকায় শীর্ষে চলে যায়।

৪. একাধারে গায়িকা, অভিনেত্রী এবং পশু অধিকার রক্ষায় সোচ্চার ডোরিস ডে (জন্ম:১৯২২) পঞ্চাশের দশকে মার্কিন নারীদের চোখেই বিশুদ্ধতার প্রতীকে পরিণত হন। হাই সিস (High Seas) ছবির মাধ্যমে ১৯৪৮ সালে হলিউডের চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেন তিনি। এরপর ষাটের দশক পর্যন্ত চলচ্চিত্র জগতে দাপিয়ে বেড়ান এই তারকা। ২০০৪ সালে তাকে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননায় ভূষিত করা হয়।

৫. রূপ লাবণ্যের ঝলক দেখিয়ে পঞ্চাশের দশকে সাড়া ফেলে দেন টিনা লুইস (জন্ম ১৯৩৪)। ১৯৬৪ থেকে ৬৭ সাল পর্যন্ত টিভি সিরিজ Ginger Grant on Gilligan's Island এ অভিনয় করে সবার মনে স্থান করে নেন টিনা। চলচ্চিত্রেও সফল ছিলেন তিনি!

৬. সত্তরের দশকে ডিসকো’র রাণী বলা হত ডোনা সামার (জন্ম১৯৪৮-মৃত্যু ২০১২)’কে। পাঁচ বার গ্রামী পুরষ্কার জেতা এই গায়িকা এতটাই জনপ্রিয় ছিলেন যে তার গাওয়া গানের অ্যালবাম প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে বিলবোর্ড তালিকার শীর্ষে চলে যেত।

৭. রূপ লাবণ্যের ঝলক দেখিয়ে ইতালির অভিনেত্রী সোফিয়া লরেন (জন্ম ১৯৩৪) হলিউডে পাকাপোক্ত অবস্থান তৈরি করে ফেলেন। ১৯৫০ সালে এক সুন্দরী প্রতিযোগিতায় বিচারক কার্লো মন্টির চোখে পড়ে যান সোফিয়া। বিয়ের পর ইতালির ছবির জগতে ঝড় তুলে পাড়ি জমান হলিউডে। অভিনয় প্রতিভার মাধ্যমে সোফিয়া যুক্তরাষ্ট্রসহ প্রায় পুরো বিশ্বের চলচ্চিত্র প্রেমীদের মন জয় করেন।

কেবিএ

 
.




আলোচিত সংবাদ