জেনে নিন ছুরি-চামচের সঠিক ব্যবহার

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮ | ৬ ভাদ্র ১৪২৫

জেনে নিন ছুরি-চামচের সঠিক ব্যবহার

পরিবর্তন ডেস্ক ২:৫৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৯, ২০১৮

জেনে নিন ছুরি-চামচের সঠিক ব্যবহার

আপনি যখন আপনার বাড়িতে খাবার খান, তখন আপনি কিন্তু সামাজিকতা, আদব-কায়দা কানুন, অথবা ছুরি চামচের সঠিক ব্যবহার নিয়ে মাথা ঘামান না। কিন্তু আপনি জানেন কি আপনি যখন কোথাও বেড়াতে যাবেন, বিশেষ করে রেস্টুরেন্ট অথবা কভেনশন হলগুলোতে খেতে যাবেন তখন কিন্তু আপনাকে অনেক নিয়ম মেনে চলতে হবে। কারণ আপনার ছুরি, কাঁটা চামচ, চামচ, চপস্টিকের ব্যবহারের নিয়ম দেখেই ওয়েটার অথবা অন্যরা বলে দিতে পারবেন যে আপনি ছুরি-চামচের ব্যবহার ও আদব কায়দা সম্পর্কে কতোটা জানেন।

আজ জেনে নিন কীভাবে ছুরি চামচ রেখে সংকেত দেবেন ওয়েটারকে। টেবিল ম্যানারস এবং ছুরি চামচের ব্যবহার কীভাবে করবেন। যদি না জানেন তাহলে কিন্তু এইসকল স্থানে গিয়ে লজ্জায় পড়ে যাওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়। আজকে চলুন শিখে নেয়া যাক ছুরি-চামচের সঠিক কিছু আদব কয়দা।

ছুরি চামচ কোণ করে রাখলে:

ছুরি ও চামচ কোণ করে প্লেটের মাঝে রাখা অর্থ হচ্ছে আপনি খাওয়ার ফাঁকে বিশ্রাম নিচ্ছেন। একটু পর আবার নতুন করে খাওয়া শুরু করবেন।

ছুরি চামচ যোগ চিহ্নের মতো করে রাখলে:

প্লেটের মাঝে ছুরি ও চামচ দিয়ে যোগ চিহ্নের মতো তৈরি করে রাখার অর্থ হচ্ছে আপনি দ্বিতীয় প্লেট খাবার জন্য প্রস্তুত এবং সেই হিসেবে ওয়েটার আপনাকে খাবার সরহরাহ করুক।

ছুরি চামচ পাশাপাশি লম্বা করে রাখা:

ছুরি চামচ পাশাপাশি লম্বা করে রাখার অর্থ হচ্ছে আপনার খাওয়া শেষ ওয়েটার টেবিল পরিষ্কার করে নিতে পারেন।

ছুরি চামচ পাশাপাশি আড়াআড়ি করে রাখা:

ছুরি চামচ পাশাপাশি আড়াআড়ি করে রাখার অর্থ আপনার খাওয়া শেষ এবং খাবার আপনার অত্যন্ত পছন্দ হয়েছে।

ছুরি চামচ একটির ভেতর অপরটি কোণ তৈরি করে রাখা:

ছুরি চামচ একটির ভেতর অপরটি মূলত কাটা চামচের ভেতর ছুরি গেঁথে কোণ তৈরি করে রাখার অর্থ আপনার খাওয়া শেষ কিন্তু খাবার একেবারেই পছন্দ হয়নি আপনার।

টেবিল ম্যানার্স:
১. অর্ভ্যথনাকারীকে প্রথমে বসার সুযোগ দিন। তারপর নিজে চেয়ার টেনে সোজা হয়ে বসুন।
২. মহিলা অতিথির বেলায় চেয়ার এগিয়ে দিতে পারেন। এতে আপনার সৌজন্যবোধ প্রকাশ পাবে।
৩. খাবার টেবিলে ব্যাগ, চাবি বা মোবাইল রাখবেন না।
৪. মুখ র্ভতি করে খাবার তুলবেন না এবং মুখে খাবার নিয়ে কথা বলবেন না।
৫. জোর করে অপছন্দের খাবার খাওয়াতে চাইলে বিনীতভাবে প্রত্যাখান করুন।
৬. খাবার চামচে তুলতে অসুবিধা হলে ছোট ছুরি বা চামেচর সাহায্য নিন।
৭. খাওয়ার মাঝে কোথাও যেতে হলে অনুমতি নিয়ে উঠুন।
৮. বুফে খাবারের বেলায় অন্যদের জন্য অপেক্ষা করার দরকার নেই। কিউতে দাড়িয়ে খাবার সংগ্রহ করুন।
৯. মুখ খুলে বা শব্দ করে খাবেন না।
১০. স্যুপ গরম থাকলে ঠাণ্ডা হবার সময় দিন।
১১. আপনি যদি বা-হাতি হন তবে টেবিলের বাম প্রান্তে বসতে পারেন।
১২. পরিবেশন শুরু করবেন ডান দিক থেকে।
১৩. হাত থেকে চামচ পড়ে গেলে তোলার প্রয়োজন নেই, ওয়েটারকে বলুন আরেকটি এনে দিতে।
১৪. কোনো ডিশ দূরে থাকলে আপনার সঙ্গিকে বলুন অনুগ্রহ করে এগিয়ে দিতে।
১৫. প্রথমেই খাবারের স্বাদ নিয়ে তারপর দরকার মতো লবণ, মরিচগুড়ো, সস মেশান।
১৬. অন্যদের সাথে সময়ের সামন্ঞ্জস্য রেখে খাওয়া শেষ করুন।
১৭. পানীয় পানের আগে বা পরে ন্যপকিন ব্যবহার করুন।
১৮. খাবার বা পানীয়র বেলায় খাবারটাই আগে খাবেন। পানীয়তে কিছুক্ষন পরপর চুমুক দিতে পারেন।
১৯. কোনো খাবার মুখ থেকে ফেলতে হলে চামচে করে নিয়ে প্লেটের কিনারায় রাখুন বা টিসুর মধ্যে মুড়িয়ে রাখুন।
২০. হঠাৎ গরম খাবার মুখে দিয়ে ফেললে চট করে পানি খেয়ে নিন।
২১. খাওয়া শেষ হলে কাটা চামচ এবং চামচ আড়াআড়ি করে প্লেটের উপর রেখে দিন, ওয়েটার এসে প্লেট নিয়ে যাবে।
২২. টেবিল ছেড়ে উঠার সময় চেয়ার ঠেলে ভিতরে ঢুকিয়ে দিন।
২৩. খেতে বসে দীর্ঘক্ষণ কোনো বিষয়ে আলাপ করবেন না।

চামচ, ছুরি, চপস্টিকের ব্যবহার:
১. ছুরি, চামচ ধরবেন ডান হাতে আর কাটা চামচ ধরবেন বাম হাতে।
২. চিকেন ফ্রাই ধরনের খাবার টিস্যু দিয়ে ধরে খাওয়া উচিত।
৩. হাড়বিহীন মাংস খেতে কাটা চামচ ও ছুরির ব্যবহার করতে হবে।
৪. আস্ত মাছ হলে ছুরি দিয়ে কেটে ছোট ছোট টুকরা করে নিন।
৫. বড় চিংড়ি খোসা ছাড়িয়ে কাটা চামচ বা টুথপিক দিয়ে খেতে পারেন, তবে ছোট চিংড়ি কাটা চামচ দিয়েই খাবেন।
৬. রুটি, বিস্কুট, ফল, স্যান্ডউইচ, বার্গার খেতে ছুরি চামচের দরকার নেই।
৭. কাটা চামচ দিয়ে খাবার গেথে ছুরি দিয়ে কেটে কেটে টুকরো করে নিন।
৮. খাওয়ার ছুরি কখনোই সাধারণ ছুরির মতো করে ধরবেন না
৯. একবার টেবিল থেকে ছুরি চামচ তুলে তা আবার টেবিলে রাখবেন না। হাতে বা প্লেটে রাখুন
১০. চপস্টিক খাবার বোল বা প্লেটের পাশে কখনোই রেখে দেবেন না। চপস্টিক রেস্টে রাখুন
১১. খাবারে চপস্টিক খাড়া করে গেঁথে রাখা অভদ্রতা।

ইসি/