বুধবার সারাদেশে বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

বুধবার সারাদেশে বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৩:৫৭ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০১৭

print
বুধবার সারাদেশে বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ

দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদে বুধবার সারাদেশে প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি। সোমবার বিকালে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এ্যাড. রুহুল কবীর রিজভী।

.

 

তিনি বলেন, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদে আগামী বুধবার ঢাকা মহানগরীসহ সারাদেশে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা প্রত্যাহারেরও দাবি জানান রিজভী।

লিখিত বক্তব্যে রিজভী বলেন, যে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতিকে সরকারী আক্রমণের শিকার হয়ে জোরপূর্বক ছুটিতে পাঠিয়ে দেশত্যাগে বাধ্য করা হয় সেখানে বিরোধী দলের নেতারা সরকারের কী ধরণের নিষ্ঠুর আক্রোশের শিকার হবেন তা সহজেই অনুমেয়।
আসলে আওয়ামী শাসকগোষ্ঠী অমানবিক নষ্টবুদ্ধি নিয়ে বিনাভোটে দেশ চালাচ্ছে।

তিনি বলেন, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সরকারের নির্দেশেই গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। অপরাধটা কী, তিনি রাজনৈতিক বক্তব্য দিয়েছিলেন আর তা একুশে টেলিভিশনের লাইভ প্রচার করা হয়েছিল। সেজন্য আরো দুইজন সাংবাদিককেও আসামি করা হয়েছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচনের পর দেশটা যেন মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে। কেউ সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলতে পারবেন না, সরকারের দুর্নীতি ও অপকর্মের সমালোচনা করতে পারবেন না, মিডিয়ায় সরকারের সমালোচনা প্রকাশ করা যাবে না। সমালোচনা করলেই রাষ্ট্রদ্রোহসহ মিথ্যা মামলার খড়গ চালানো হবে। গোটা দেশটা একব্যক্তির ইচ্ছার শাসনে পরিণত হয়েছে। ২নং একদলীয় বাকশালের দুঃশাসনে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ আবারো ক্ষতবিক্ষত।

রিজভী বলেন, গুম, খুন, অপহরণ, মিথ্যা মামলায় আটক করে নির্যাতন নিপীড়নকে করা হয়েছে বিরোধী দলগুলোর নেতাকর্মীদের নিত্য সঙ্গী। যারা প্রতিবাদী হবেন তারা হারিয়ে যাবেন, গুম হবেন, গ্রেফতার হবেন, বর্বর নির্যাতনের শিকার হবেন। আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনার দুঃশাসনের প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর হল বিএনপি তথা জিয়া পরিবার। তাই তাদের হেনস্তা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করতে হবে। তারেক রহমানের রাজনৈতিক জীবনের শুরু থেকেই শেখ হাসিনা তাকে প্রবল প্রতিপক্ষ হিসেবে বিবেচনা করে অসত্য, বানোয়াট, মনগড়া অপপ্রচার ও কুৎসা রটনা করে যাচ্ছেন। তারেক রহমান বারবার শেখ হাসিনার প্রতিহিংসার শিকার। তাকে ধ্বংস করাটাই যেন এখন আওয়ামী লীগের রাষ্ট্রনীতি। আর সেই নীতি বাস্তবায়ন করতে আওয়ামী লীগ উঠেপড়ে লেগেছে। কিন্তু চক্রান্তকারীরা কোনোদিনই সফল হতে পারে না। জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ধ্বংস করার চক্রান্তও সফল হবে না।

সংবাদ সম্মেলনে দলের কেন্দ্রীয় নেতা আবুল খায়ের ভূঁইয়া, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, মো. মুনির হোসেন, কাজী আবুল বাশার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এমএইচ/এইচকে/এএস

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad