আ’লীগের অনেক নেতা নারী নেতৃত্ব মানতে পারে না : কাদের

ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০১৭ | ১৩ শ্রাবণ ১৪২৪

আ’লীগের অনেক নেতা নারী নেতৃত্ব মানতে পারে না : কাদের

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৯:০৩ অপরাহ্ণ, মে ১৮, ২০১৭

print
আ’লীগের অনেক নেতা নারী নেতৃত্ব মানতে পারে না : কাদের

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীর ক্ষমতায়নের জন্য কিংবদন্তিতুল্য হলেও আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই দলে নারীর নেতৃত্ব মেনে নিতে চান না বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর রমনা রেস্তোরাঁয় ছাত্রলীগের এক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তিনি বলেন, নারী ক্ষমতায়ন, একটি বাড়ি একটি খামার, গৃহহীনদের আশ্রায়ন ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার সফল নেতৃত্ব দিয়ে শেখ হাসিনা বাংলাদেশে কিংবদন্তি হয়ে থাকবেন। কিন্তু নেতারা পুরুষ শাসিত আওয়ামী লীগ বানাতে চায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শামসুন্নাহার হল, কবি সুফিয়া কামাল হল, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল ও কুয়েত মৈত্রী হল শাখা ছাত্রলীগের নবগঠিত পূর্ণাঙ্গ কমিটির নেতাদের সাথে মতবিনিময়ের সময় তিনি এসব কথা বলেন।

কাদের বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনের সময় দেখা যায়, কোনো নারী প্রার্থী থাকলে নেতারা ঢাকায় তাদের নাম পাঠান না। তবুও নেত্রী কোথাও নারী প্রার্থী থাকলে তাদের মনোনয়ন দিয়ে দেন।

এ সময় সংগঠনকে আকর্ষণীয় করার জন্য ছাত্রলীগের নেতাদের আকর্ষণীয় হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ছাত্র নেতাদের নৈতিকতার ভিত্তি শক্তিশালী না হলে ছাত্র রাজনীতি আকর্ষণীয় হবে না। আওয়ামী লীগের যে যেখানে কাজ করে তাদের আচরণ শেখ হাসিনাকে প্রতিনিধিত্ব করে, তাই এটা খেয়াল রাখতে হবে।

মতবিনিময় সভায় হাওড় অঞ্চলে ত্রাণ তৎপরতা নিয়ে বিএনপির অভিযোগের যুক্তিখণ্ডন করতে গিয়ে দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকেও সমালোচনায় বিদ্ধ করেছেন সরকারের এই মন্ত্রী।

তিনি বলেন,যারা ঢাকায় বসে এই যে ত্রাণ নিয়ে কথা বলছেন, তাদের নেত্রী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া একবারও কি হাওড় এলাকায় গিয়েছেন?

কাদের বলেন, অনেকে ঢাকায় বসে বড় বড় কথা বলে, সুনামগঞ্জের দূর্গম হাওড় এলাকায় প্রধানমন্ত্রী গিয়েছেন। আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, এমপি ও নেতারা টোকেন হিসেবে দুই/তিনটি ত্রাণ দিয়ে চলে যান। বাকিগুলো অন্যরা বিতরণ করেন। আজকে ২২৮ জন তালিকায় ছিলেন। কথা ছিল প্রধানমন্ত্রী ১০ জনকে ত্রাণ দিবেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী ২২৮ জনকে দিয়েছেন।

তিনি বলেন, এটা শুধু আজকের জন্য নয়। ৩০ কেজি করে চাউল ও ১ হাজার করে টাকা নতুন ফসল ওঠা পর্যন্ত চলবে। যাদের ঘর নেই, তাদের ঘর করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, অনেকে ক্ষমতায় আসতে চায় নিজেদের জন্য, লুটপাটের জন্য, পকেটের উন্নয়নের জন্য। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থেকে মানুষের জন্য একটা মমতা নিয়ে কাজ করেন।

তিনি বলেন, ফখরুল সাহেব একটা এলাকায় গিয়েছেন, ত্রাণ দেননি। যারা ত্রাণ নিতে এসেছিলেন তারা খালি হাতে ফিরে গেছেন। উনি (ফখরুল) ফটোসেশন করে উনাদের এক কারাবন্দি নেতার জন্য দোয়া চেয়ে ফিরে এসেছেন। মদন এলাকায় উনি কেন গিয়েছিলেন?

এ সময় তিনি সড়ক অবরোধ করে আন্দোলনের সমালোচনা করে বলেন, একটা মৃত্যুর প্রতিবাদ করতে গিয়ে যদি রাস্তা অবরোধ করা হয়, তাহলে  মূমুর্ষ রোগীর কি হবে? প্রতিবাদের নামে হাজার হাজার মানুষকে রাস্তায় কষ্ট দেয়ার কোনো যৌক্তিকতা নেই। এটা কোনো প্রতিবাদের ভাষা নয়। এই ভাষা গ্রহণযোগ্য নয়।

মতবিনিময় সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান, সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স।

এলআর/এমডি

print
 

আলোচিত সংবাদ