‘ঘুষ ছাড়া চাকরি পেলে সংবর্ধনা দেব’

ঢাকা, শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১ পৌষ ১৪২৪

‘ঘুষ ছাড়া চাকরি পেলে সংবর্ধনা দেব’

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:০২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০১৭

print
‘ঘুষ ছাড়া চাকরি পেলে সংবর্ধনা দেব’

বর্তমানে বাংলাদেশে চাকরির জন্য প্রত্যেককেই ঘুষ দিতে হয় এমন মন্তব্য করেছেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম। তিনি বলেছেন, ঘুষ ছাড়া চাকরি নেওয়া কেউ একজনও যদি থেকে থাকে তাহলে তাকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মঞ্চ বানিয়ে সংবর্ধনা দেওয়া হবে।

.

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে 'ঘুষ ছাড়া চাকরি চাই' এ দাবিতে বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের সমাবেশে সিপিবি সভাপতি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘এমএ পাস, বিএ পাস, মেট্রিক পাস কিংবা শিক্ষাবঞ্চিত সাধারণ নাগরিক হোক, এমন কী বড় অফিসার থেকে শুরু করে পিয়নের চাকরি ঘুষ ছাড়া পেয়েছে এমন লোকের খোঁজ পেলে আমার কাছে নিয়ে আসবেন, আমি এই প্রেস ক্লাবের সামনে তার ছবি সাঁটিয়ে রেখ দেব, যাতে দেশের ১৬ কোটি মানুষ দেখতে পারে।’

এ সময় তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘ঘুষ ছাড়া চাকরি পেয়েছেন এমন লোক আমার বিশ্বাস কেউ খুঁজে পাবেন না।’

ঘুষ ছাড়া চাকরির দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেওয়ার আগে ওই সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম আরো বলেন, ‘ঘুষ দেওয়া ছাড়া চাকরি পাওয়া যায় না সে কথা আমরা বলছি। কিন্তু ঘুষ দিলেও চাকরি পাওয়া যায় না। ঘুষের ভেতরে নাকি এখন দুর্নীতি ঢুকে গেছে এবং এইরকম একটা অবস্থার ভেতরে আজকে দেশ চলছে।’

তিনি বলেন, ‘এর কাছ থেকে টাকা নিয়ে ওর কাছ থেকে টাকা নিয়ে, একে একটা ভাঁওতা দিয়ে ওকে একটা ভাঁওতা দিয়ে সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলেছে এক শ্রেণির লোকেরা।’

চাকরিতে ঘুষের এই ন্যক্কারজনক অবস্থা কেবল পাকিস্তান আমলে ছিল মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘তখন আমরা লড়াই করেছিলাম অন্যায় থেকে সমাজকে রক্ষা করতে। আইয়ুব খান ও মোনায়েম খান যুব সমাজকে সংকীর্ণ স্বার্থবোধে আটকে রাখত। সেটাকে রুখে দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছিলাম।’

ঘুষ ক্রমান্বয়ে ছড়িয়ে পড়েছে মন্তব্য করে সিপিবি সভাপতি বলেন, ‘স্বাস্থ্য সংক্রামক না। রোগ সংক্রামক হয়। একজনের একটা অসুখ হলে সেটা ছড়িয়ে পড়ে। মাথার উপরে রোগ ধরেছে সেটা ছড়িয়ে পড়েছে।’

দুর্নীতির কারণে ফ্লাইওভারের নির্মাণ ব্যয় বেড়ে যাওয়ার প্রসঙ্গ টেনে সেলিম বলেন, ‘কাজ শুরু হয়, ছয় মাস পেছালে সেটা দ্বিগুণ হয়ে যায়। আবার ছয় মাস পেছালে আরও দ্বিগুণ বেড়ে যায়। যেটা ৩ হাজার কোটি টাকায় শেষ হওয়ার কথা সেটা শেষ হতে লেগে যায় দুই লক্ষ কোটি টাকা। তাও শেষ করতে পারে না।’

চাকরিসহ সবক্ষেত্রে সবার সম অধিকার-সম সুযোগ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ‘সব সরকার আমাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে। অধিকার যেন বাস্তবায়ন হয় সেজন্য সবকিছু করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘ঘুষ ছাড়া চাকরি দাবির পাশাপাশি বদলি পদোন্নতিতে ঘুষ এবং স্বজনপ্রীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।’

যুব ইউনিয়নের সভাপতি হাসান হাফিজুর রহমান সোহেলের সভাপতিত্বে সমাবেশ সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক হাফিজ আলম। সমাবেশ শেষে একটি মিছিল নিয়ে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের উদ্দেশ্যে স্মারকলিপি নিয়ে রওনা করেন সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এফবি/জেআই/এমডি

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad