'শেষ বয়সে দালাল হয়ে মরতে চাননি বাবা'
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৩১ মে ২০২০ | ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

'শেষ বয়সে দালাল হয়ে মরতে চাননি বাবা'

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: ৩:২০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৭, ২০১৯

'শেষ বয়সে দালাল হয়ে মরতে চাননি বাবা'

ফাইল ছবি

‘বাবার কাছে গিয়ে আমি দেশে ফেরার বিষয়ে জানতে চেয়েছিলাম। তখন বাবা সামান্য কথা বলতে পারতেন। তিনি বললেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের কথা ছাড়া কিছুই করবো না। সরকারের সাথে লিয়াজোঁ করে দেশে ফিরবো না। মারা গেলে তারপর যেন আমার লাশ দেশে ফিরে। শেষ বয়সে দালাল হয়ে মরতে চাই না।’

এভাবেই দেশে ফেরা নিয়ে বাবার সাথে কথোপকথনের স্মৃতিচারণ করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের  সাবেক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেন।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে খোকার জানাজার আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ইশরাক আরো বলেন, 'আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াও কারাগারে। বাবার অনেক ইচ্ছা ছিল তার সঙ্গে দেখা করার, কিন্তু তিনি তাকে শেষ দেখা দেখে যেতে পারলেন না।'

জানাজার পর খোকার কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। নেতাকর্মীদের ভালোবাসায় সিক্ত হন অভিবক্ত ঢাকা সিটির সাবেক এই মেয়র।

 এর আগে বেলা ১ টা থেকে জনস্রোতে পল্টনে দুই পাশের সড়ক বন্ধ হয়ে যায়। বন্ধ হয়ে যায় যান চলাচল। ছিল না তিল ধারণের জায়গা।

জানাজায় আসা নেতারা বলছিলেন, এতো লোক, এতেই প্রমাণ করে খোকা কতো জনপ্রিয় ছিলেন! এত জনপ্রিয়তা থাকা সত্ত্বেও আওয়ামী প্রতিহিংসার শিকার হয়ে বিদেশের মাটিতেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করতে হয় খোকাকে।

খোকার মরদেহ পৌঁছার পর লাশবাহী গাড়ির কাছে যেতে চরম বেগ পেতে হয়েছে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান মিনুকে।

মরদেহের কাছে পৌঁছে জানাজার আগে সবাইকে সুশৃঙ্খলভাবে দাঁড়াতে অনুরোধ করেন দলটির মহাসচিব।তিনি বলেন, আজ আমাদের জন্য শোকের দিন।তিনি ৫ বছর দেশের বাইরে ছিলেন। তিনি প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন। যে দেশ তিনি যুদ্ধ করে স্বাধীন করেছিলেন, সেই দেশের মাটিতে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করতে পারেন নি।

এর আগে জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় জানাজা শেষে বেলা ১২ টায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য খোকার মরদেহ শহীদ মিনারে আনা হয়। সেখানে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ সারিবদ্ধভাবে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

পল্টনে জানাজার পর খোকার মরদেহ নেয়া হবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে। সেখানে বেলা ৩ টায় নামাজে জানাজার পর পুরান ঢাকার ধুপখোলা মাঠে জানাজার জন্য নেয়া হবে। জানাজা শেষে বিকালে জুরাইনে তাকে দাফন করা হবে।

ক্যান্সারে আক্রান্ত খোকা নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাংলাদেশ সময় ৪ নভেম্বর দুপুরে মারা যান। ৭ নভেম্বর সকালে তার মরদেহ দেশে আনা হয়।২০১৪ সাল থেকে চিকিৎসার জন্য তিনি নিউইয়র্কে ছিলেন।

তিন বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য, দুই বারের মন্ত্রী ও ২০০২ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা।

এমএইচ/পিএসএস
আরও পড়ুন...
ভালোবাসায় সিক্ত খোকা, নয়াপল্টনে জানাজায় জনস্রোত
বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে খোকার মরদেহ (ভিডিও)
শহীদ মিনারে খোকার মরদেহ

 

: আরও পড়ুন

আরও