কোটা ইস্যু সহানুভূতির সঙ্গে দেখুন, হাসিনাকে রওশন

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ | ২ শ্রাবণ ১৪২৫

কোটা ইস্যু সহানুভূতির সঙ্গে দেখুন, হাসিনাকে রওশন

পরিবর্তন ডেস্ক ৮:৫১ অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০১৮

print
কোটা ইস্যু সহানুভূতির সঙ্গে দেখুন, হাসিনাকে রওশন

সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ কোটা সংস্কার ইস্যুকে সহানুভূতির সঙ্গে দেখার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি অনুরোধ করেছেন।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের ২১তম অধিবেশনে দেয়া বক্তব্যে তিনি এ অনুরোধ করেন।

জাতীয় পার্টির এই নেত্রী বলেন, ‘কোটা নিয়ে ছেলে-মেয়েদের মধ্যে বিভ্রাট দেখা দিয়েছে, আন্দোলন-সংগ্রাম করছে। তারা আমাদের সন্তান, আবদার করবেই। পড়ালেখা শেষে তারা তো চাকরি চাইবেই। তারা যেন চাকরি পাই, সেটা আমাদেরই নিশ্চিত করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী সচেতন আছেন, চেষ্টা করছেন। স্পিকারের মাধ্যমে তাকে অনুরোধ করব— তিনি যেন সহানুভূতির সঙ্গে মাতৃত্বের হৃদয় নিয়ে বিষয়টি বিবেচনা করেন। আমি জানি, তিনি তার দেশ ও মানুষকে খুব ভালোবাসেন।’

তিনি এ সময় সরকারি চাকরিতে প্রবেশে ৩৫ এবং অবসরে যাওয়ার বয়সসীমা ৬৫ নির্ধারণ করারও দাবি জানান।

দেশে সক্ষম ৫ কোটি মানুষ বেকার উল্লেখ করে রওশন এরশাদ বলেন, ‘সরকারের চাকরি সৃষ্টির প্রতি মনযোগী হওয়া উচিত। আপনাকে (সরকার) চাকরির ক্ষেত্র সৃষ্টি করতে হবে। তা না হলে যুব সমাজ ভুল পথে যেতে বাধ্য হবে।’

তিনি বলেন, বেকারত্ব মানুষকে মাদকের দিকে ধাবিত করে। অর্থের জন্য যুবসমাজ এই পথকে বেছে নেয়।

জাতীয় পার্টির জ্যেষ্ঠ কো-চেয়ারম্যান সরকারকে দেশে ব্যাপকভিত্তিতে শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার পরামর্শ দেন।

দেশে শিক্ষার মান কমে গেছে দাবি করে তিনি বলেন, বাজেটে শিক্ষাখাতে সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ দেয়া উচিত ছিল।

চাকরির জন্য উপযোগী জনগোষ্ঠী গড়ে তুলতে সরকারের পাশাপাশি প্রাইভেট সেক্টরকেও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান রওশন এরশান।

দেশ ঠিকভাবে চলছে না উল্লেখ করে সংসদে উপস্থিত সবাইকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘এখানে যারা বসে আছেন, তারা সবই জানেন। কিন্তু, কেউ বলেন না সাহস করে, কারও সাহস নেই বলার।’

এরপর এমপিদের প্রশ্ন করে রওশন এরশাদ বলেন, ‘আপনারা বলেন না কেন? সড়ক পরিবহনমন্ত্রী (ওবায়দুল কাদের) আজ সংসদে নেই। কিন্তু, যানজটের কারণে সব বন্ধ থাকে। দেশের রাস্তাগুলোর কোনোটাতেই চলা যায় না।’

তিনি বলেন, ‘নদী থেকে অবাধে অপরিকল্পিতভাবে বালু তোলা হচ্ছে। জমি থেকে পলি মাটি তুলে ইটভাটায় ব্যবহার করা হচ্ছে। ক’দিন পর এসব জমিতে ফসল ফলবে না। এসব করছে প্রভাবশালীরা।’

ক্ষোভ প্রকাশ করে রওশন বলেন, ‘এগুলো দেখার কেউ নাই নাকি? আপনাদের সরকার থেকে এসব দেখার কেউ নেই। আমি যে কথাগুলো বলছি, আপনারা তা যাচাই-বাছাই করে দেখবেন, আমি কী কথা বলছি।’

তিনি বলেন, ‘গত নির্বাচনে ঝুঁকি নিয়ে আমরা অংশগ্রহণ করি। তাই প্রধানমন্ত্রীকে এসব দেখতে হবে।’

আইএম

 
.



আলোচিত সংবাদ