বিএনপির ইফতারে ‘একটি চিন্তার খোরাক’ দিয়ে গেলেন বি চৌধুরী

ঢাকা, রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮ | ১০ আষাঢ় ১৪২৫

বিএনপির ইফতারে ‘একটি চিন্তার খোরাক’ দিয়ে গেলেন বি চৌধুরী

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৯:৫৫ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০১৮

print
বিএনপির ইফতারে ‘একটি চিন্তার খোরাক’ দিয়ে গেলেন বি চৌধুরী

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এবং রাজপথের বিরোধী দল বিএনপি- দুদলেরই নেতাকর্মীদের বুক কাঁপছে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি বিকল্পধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা (বি) চৌধুরী। এটা দেশ এবং রাজনীতির জন্য শুভ নয় বলেও মনে করেন তিনি। রাজধানীর ইস্কাটনে ঢাকা লেডিজ ক্লাবে রাজনীতিকদের সম্মানে বিএনপি আয়োজিত ইফতার মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

উপস্থিত রাজনীতিকদের উদ্দেশে বি চৌধুরী বলেন, ‘এমন ওয়াদা দেবেন না যেটা কায়েম করতে পারবেন না। তাহলে আপনার রোজা বৃথা গেল অন্তত। ওয়াদা রক্ষা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জিনিস।’

‘বললাম মুখে, অন্তরে অন্য কিছু- এটা কোনো সত্যিকারের মুত্তাকি মুসলমানের কথা তো নয়ই, রাজনীতিকদেরও কথা নয়। ব্যাড পলিটিক্স’ যোগ করেন তিনি।

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আজকে চিন্তা করে দেখুন- এখানে বেশিরভাগ বিএনপির নেতারাই আছেন, কর্মীরা নেই। আজকে কর্মীদের বুক কাঁপে, ভয়ে দুরু দুরু। কাঁপবে না কেন? কারণ তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে তারা শঙ্কিত। কী হবে যদি আবার সরকারি দল ক্ষমতায় আসে? ...অভিজ্ঞতা বলে যে খুব সুবিধা হবে না।’

‘একইভাবে সরকারের রাজনৈতিক কর্মী আমার কাছে আসছে, তাদেরও বুক কাঁপে। যদি বিএনপি ক্ষমতায় আসে তাদের কী হবে! এটা কি খুব ভালো কথা? এটা কি রাজনীতির জন্য শুভ? এটা কি দেশের ভবিষ্যতের জন্য শুভ?’ প্রশ্ন তার।

প্রবীণ এই রাজনীতিক বলেন, ‘এটা কি ইঙ্গিত নয় যে, ভবিষ্যতে এমন একটি পর্যায়ে যেতে পারে দেশ যেখানে মানুষ মানুষকে হত্যা করবে, নিগৃহীত করবে, জেলে দিবে, আগুন জ্বালাবে! এটা কি সম্ভব? এটা কি ভালো জিনিস? কিন্তু থামাবে কে? একটা চিন্তার খোরাক দিয়ে গেলাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘এমন একটা শক্তি দরকার যে ওদিকেও (আওয়ামী লীগকে) কন্ট্রোল করতে পারে আবার এদিকেও (বিএনপিকে) কন্ট্রোল করতে পারে। তারা যদি উঠে আসতে পারে এবং বলে- তোমরা যদি একটা মানুষের গায়ে হাত দাও তাহলে তোমাদের প্রতি সমর্থন উইথড্রো (প্রত্যাহার) করব, বিরোধী দল হয়ে যাব। এদেরও বলবে আর ওদেরও বলবে। একমাত্র তাহলেই দেশ রক্ষা পেতে পারে।’

বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি- আমাদের দেশে যেন সেরকম দুর্যোগ না আসে। আমরা যেন মানুষকে মানুষ হিসেবে ভালোবাসতে শিখি। সৃষ্টির সেরা জীব হচ্ছে মানুষ। সেই মানুষকে যারা হত্যা করে, পুড়িয়ে মারে, জবরদস্তি করে, আল্লাহ তদের উপর কিভাবে খুশি হবেন? একথা মনে রেখে ভবিষ্যতের কর্তব্য স্থির করুণ এটাই আমার আবেদন।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ইফতার মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি বিকল্পধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব, সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না প্রমুখ।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, ভাইস চেয়ারম্যান, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও সহ-সম্পাদকরা এতে উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় পার্টি (জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, জামায়াতে ইসলামীর নেতা মিয়া গোলাম পরোয়ার, নুরুল ইসলাম বুলবুল, আবদুল হামিদ, এলডিপি মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, কল্যাণ পার্টি চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক, খেলাফত মজলিশের নায়েবে আমির মাওলানা মুজিবুর রহমান, মহাসচিব ড. আহমেদ আবদুল কাদের, মহাসচিব এমএম আমিনুর রহমান, বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি, মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, এনপিপি চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, এনডিপি চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, জাগপা সভাপতি রেহেনা প্রধান, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লোতফর রহমান, ইসলামী ঐক্যজোটের (একাংশ) চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুর রকিব, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সভাপতি মুফতী মুহম্মদ ওয়াক্কাস, মুসলিম লীগের সভাপতি এ এইচ এম কামারুজ্জামান, পিপলস্ লীগ মহাসচিব সৈয়দ মাহবুব হোসেন, ডিএল সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, লেবার পার্টির (একাংশ) চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, লেবার পার্টির (অপরাংশ) চেয়ারম্যান এমদাদুল হক চৌধুরী, মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদী, ন্যাপ ভাসানী সভাপতি অ্যাডভোকেট আজহারুল ইসলাম, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাঈদ আহমেদ, ইসলামীক পার্টির সভাপতি আবু তাহের চৌধুরী প্রমুখ।

এসআই/এমএসআই

আরও পড়ুন...
রাজনীতিকদের ইফতারে ঐক্যের ডাক ফখরুলের

 
.




আলোচিত সংবাদ