কতদিন আর শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করব, প্রশ্ন মওদুদের

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ | ১ শ্রাবণ ১৪২৫

কতদিন আর শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করব, প্রশ্ন মওদুদের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৮:৪৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ২০, ২০১৮

print
কতদিন আর শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করব, প্রশ্ন মওদুদের

দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার জামিন না পাওয়ার প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, একটা পর্যায় আসবে দেশের মানুষ শান্তিপূর্ণ আন্দোলন আর চাইবে না।

তিনি বলেন, ‘দেশের উচ্চতর আদালত আমরা পছন্দ করি আর না করি, তাদের রায় মেনেই আইনি লড়াই চালিয়ে যেতে হবে। তার সাথে সাথে সময়ও আসছে, কতদিন আর আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করব?’

বিএনপির জ্যেষ্ঠ এ নেতা বলেন, একটা পর্যায় আসবে দেশের মানুষ শান্তিপূর্ণ আন্দোলন আর চাইবে না। তখন বাধ্য হয়ে আমাদেরকে তাদের সাথে থাকতে হবে। তাই এটুকু বলতে চাই- বাংলাদেশে গণতন্ত্র, মানুষের বেঁচে থাকার অধিকার আবারও ফিরে আসবে।

‘বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এবং স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবুর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে বৃহত্তর নোয়াখালী জেলা জাতীয়তাবাদী যুব ফোরাম আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মওদুদ বলেন, প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহাকে জোর করে পদত্যাগে বাধ্য করায় দেশের কোনো বিচারপতির মুক্ত মনে বিচার করার সাহস নেই। এই সরকারের আমলে যদি বাংলাদেশের সব চাইতে বড় কোনো ক্ষতির শিকার হয়ে থাকে, সেটা হয়েছে বিচার বিভাগ।

তিনি বলেন, ‘উচ্চতর আদালত বলেন আর নিম্ন আদালত বলেন অর্থাৎ বিচার বিভাগের স্বাধীনতাটা এই সরকার ছিনিয়ে নিয়েছে নানা কলা-কৌশলে। তাই ইতিহাসে তারা (সরকার) কলঙ্কিত হয়ে থাকবে।’

খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিলে অন্যরকম অবস্থা সৃষ্টি হবে দাবি করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ‘যতদিন যাবে সরকার ততই চেষ্টা করবে তাকে কারাগারে রাখার জন্য। কিন্তু কারাগারে বেগম জিয়াকে বেশিদিন রাখা সম্ভব হবে না।’

বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি লাভে সরকারের কোনো ধরনের কৃতিত্ব নেই মন্তব্য করে মওদুদ বলেন, ‘বাংলাদেশ এই মাসে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে, তার মানে আমরা এতোদিন অনুন্নত দেশ ছিলাম। আমাদের সমপর্যায়ের দেশ থাইল্যান্ড, মিয়ানমার অনেক আগেই উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি লাভ করেছে। এখানে সরকারের এমন একটা ভাব যে, বাংলাদেশই একমাত্র দেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে। এটা ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশের জনগণের বিজয়।

তিনি বলেন, ‘যারা লুটপাট করেছে তারা উন্নয়নশীল স্বীকৃতিতে গর্ববোধ করছে। কিন্তু দেশের ১৬ কোটি মানুষের কোনো উন্নয়ন হইনি। এক লাখ নতুন বেকার তৈরি হয়েছে, এখনো দেশে তিন কোটি লোক দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাস করে। এক কিলোমিটার পথ যেতে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা সময় লাগে।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মাসুদ রানার সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূইয়া প্রমুখ।

এমএইচ/এমএসআই

 
.



আলোচিত সংবাদ