বরিশালে বেড়েই চলেছে ইলিশের দাম

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭ | ৫ কার্তিক ১৪২৪

বরিশালে বেড়েই চলেছে ইলিশের দাম

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৪:০২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১০, ২০১৬

print
বরিশালে বেড়েই চলেছে ইলিশের দাম
পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে বরিশাল পোর্ট রোডের মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে বেড়ে চলেছে ইলিশের দাম। দৈনিক ১০০ থেকে ১৫০ মণ ইলিশ আসছে এখানে। নদীতে মাছের অাকাল হওয়ায় একদিনের ব্যবধানে প্রকার অনুযায়ী ইলিশের মণ প্রতি দাম বেড়েছে ২০ হাজার থেকে ৪০ হাজার টাকা। বাজারে বড় ইলিশের প্রচুর চাহিদা থাকা সত্ত্বেও আসছে ছোট সাইজের ইলিশ। যা চলে যাচ্ছে রাজধানীসহ দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে। আর ইলিশের দর ওঠানামার ক্ষেত্রে কোনো নিয়ন্ত্রণ চলে না বলে জানালেন মৎস্য ব্যবসায়ীরা। 

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে বরিশাল পোর্ট রোডের মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে বেড়ে চলেছে ইলিশের দাম। দৈনিক ১০০ থেকে ১৫০ মণ ইলিশ আসছে এখানে। নদীতে মাছের অাকাল হওয়ায় একদিনের ব্যবধানে প্রকার অনুযায়ী ইলিশের মণ প্রতি দাম বেড়েছে ২০ হাজার থেকে ৪০ হাজার টাকা। বাজারে বড় ইলিশের প্রচুর চাহিদা থাকা সত্ত্বেও আসছে ছোট সাইজের ইলিশ। যা চলে যাচ্ছে রাজধানীসহ দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে। আর ইলিশের দর ওঠানামার ক্ষেত্রে কোনো নিয়ন্ত্রণ চলে না বলে জানালেন মৎস্য ব্যবসায়ীরা।

বাজার ঘুরে জানা গেছে, ইলিশ রক্ষায় নির্দিষ্ট নদীতে সরকারের অভিযান চলমান থাকায় বরিশালের অন্যান্য নদী এবং ভোলা জেলার কিছু নদী থেকে ইলিশ আসছে বরিশাল মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে। এখানে প্রতিদিন আসা এক থেকে দেড়’শ মণের মধ্যে ছোট সাইজের ইলিশের পরিমাণ বেশি। বড় সাইজের ইলিশ যা আসছে সেগুলো চলে যাচ্ছে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে।

 

এদিকে নদীতে ইলিশের খরা আর পহেলা বৈশাখে পান্তা-ইলিশ খাওয়ার উৎসবকে কেন্দ্র করে প্রতিদিনই বেড়ে চলছে ইলিশের দর। বুধবার দেড় কেজি ওজনের ইলিশ মণ প্রতি বিক্রি হয়েছে ২ লাখ টাকায় যা একদিন আগে ৪০ হাজার টাকা কমে বিক্রি হয়েছে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকায়। ১ কেজি ২০০ গ্রামের ইলিশ বিক্রি হয়েছে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকায় যা একদিন আগে ১ লাখ ১০ হাজার টাকায় বিক্রি হতো। ১ কেজি ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় যা বিক্রি হয়েছিল ৯০ হাজার টাকায়। ৬০০ গ্রাম থেকে ৯০০ গ্রাম (এলসি) সাইজের বর্তমান মূল্য ৯০ হাজার টাকা, একদিন আগে যা ছিল ৬০ হাজার টাকা। ৪০০ গ্রাম থেকে ৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ (ভেলকা) বিক্রি হচ্ছে ৫৩ হাজার টাকায়, আগের মূল্য ছিল ৩০ হাজার টাকা। ৩০০ গ্রামের (গোটলা) ছোট সাইজের ইলিশ, ক্রেতাদের চাহিদা কম থাকায়, মণ প্রতি বিক্রি হচ্ছে ২৫ হাজার টাকায়; যা একদিন আগে বিক্রি হয়েছে ২২ হাজার টাকায়।

মৎস্য ব্যবসায়ী মো. মোবারক জানান, নদীতে মাছ কম এবং সাগরেও মাছ নেই। এছাড়াও চাঁদপুরের ষাটনল থেকে নোয়াখালী জেলার হাতিয়ার আলেকজান্ডার পর্যন্ত মা ইলিশের ৪টি অভয়াশ্রমে মাছ ধরা বন্ধ থাকায় বাজারে মাছের পরিমাণ কমে গেছে। এর ফলে প্রতিদিন দর বেড়ে চলছে।

তিনি আরও জানান, তিনদিন আগে এক কেজি ৭০০ গ্রাম ওজনের একটি ইলিশ এই বাজারে ৮ হাজার ৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

বরিশাল পোর্ট রোড মৎস্য আড়তদার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অজিত কান্তি দাস বলেন, বড় ইলিশের প্রচুর চাহিদা থাকা সত্ত্বেও সেই পরিমাণ ইলিশ বাজারে নেই। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে বরিশালের বাজারে প্রতিদিন ১০০ মণ বড় ইলিশের চাহিদা থাকলেও আসছে মাত্র ৫ থেকে ৭ মণ। এর ফলে প্রতিদিন মাছের দর বেড়ে চলছে। আর এই দর নিয়ন্ত্রণে রাখার কোনো সুযোগ নেই। ব্যাপারিরা প্রকাশ্যে ডাক দিয়ে মাছের দর বাড়িয়ে ফেলছে।

তবে তিনি মনে করেন ইলিশের বর্তমানে যে দর আছে এর চেয়ে খুব বেশি আর বাড়বে না। কারণ খুলনা, পাবনা, চিটাগাং ও ঢাকার মৎস্য ব্যবসায়ীরা হিমাগারে রাখা ইলিশ খালাস করতে শুরু করে দিয়েছেন বলে জানান এই সভাপতি।

জেইউ/বিএইচ/এসজে

 

print
 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ


আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad