এসএমই মেলার সময় বাড়ল দুই দিন

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৭ | ৯ ভাদ্র ১৪২৪

এসএমই মেলার সময় বাড়ল দুই দিন

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৮:৫২ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১০, ২০১৬

print
এসএমই মেলার সময় বাড়ল দুই দিন
বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে চলছে জাতীয় এসএমই (ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা) মেলা-২০১৬। ৩ এপ্রিল থেকে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত পাঁচ দিন ব্যাপী মেলা গতবৃহস্পতিবার শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু উদ্যোক্তাদের দাবির কারণে আজ শুক্র ও কাল শনিবার মেলার সময় বাড়ানো হয়েছে। 

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে চলছে জাতীয় এসএমই (ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা) মেলা-২০১৬। ৩ এপ্রিল থেকে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত পাঁচ দিন ব্যাপী মেলা গতবৃহস্পতিবার শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু উদ্যোক্তাদের দাবির কারণে আজ শুক্র ও কাল শনিবার মেলার সময় বাড়ানো হয়েছে।

এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন কেএম হাবিব উল্লাহ পরিবর্তন ডটকমকে মেলার সময় বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মেলায় অংশগ্রহণকারী উদ্যোক্তাদের দাবির কারণে মেলার সময় দুই দিন বাড়ানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে মেলায় গিয়ে দেখা যায়, বেলাগড়ানোর সাথে তাল মিলিয়ে দর্শনার্থী মেলায় প্রবেশ করছে। বেলা যত গড়াচ্ছে দর্শনার্থীর সংখ্যাও বাড়ছে।

এ বিষয়ে এভার গ্রীন জুট টেক্সটাইলের বিক্রয়কর্মী সেজুতী পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, প্রথম দুই তিন তেমন দর্শনার্থী ও ক্রেতা ছিলনা বললেই চলে। শেষের দুই দিন অবশ্য আগের দিনগুলোর তুলনায় দর্শনার্থী কিছুটা বেশি।

৩ এপ্রিল মেলা শুরুর প্রথম দিনে দর্শক সমাগম ও বিক্রি খুবই কম ছিল। কিন্তু পরবর্তী দিনগুলোতে বিক্রি এবং অর্ডারের পরিমাণ বেড়েছে। পাটজাত পণ্যের প্রতিষ্ঠান এশিয়া জুটস’র স্টলে দেখা গেল বিভিন্ন ধরনের উপহার পণ্যা। পাটের তৈরি ব্যাগ, ফাইল ফোল্ডার।

ভাইপার লেদারের সত্তাধিকারী মোস্তাফিজ বায়েজিদ পরিবর্তন ডটকমের সাথে আলাপকালে মেলায় অর্ডার প্রাপ্তিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন। মেলায় দুই দিন সময় বাড়ায় ছুটির দিনগুলোতে আরও ভালো বেচা-কেনা হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

স্ত্রী ও বাচ্চাদের নিয়ে সায়েদাবাদ এলাকা থেকে মেলায় এসেছেন ইমরান হোসেনে। সেতু ফ্যাশান থেকে বাচ্চাদের জন্য জামা কাপড় নিলেন।

ইমরান পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে উৎপাদিত বাহারী পণ্যের মেলায় এসে ভালোই লাগছে। সাধ-সাধ্যের মধ্যে অনেক জিনিসই এখানে দেখতে পেলাম।

মেলার ঘুরে দেখা গেলো বেশির ভাগই বুটিকের স্টল। জামা কাপড় ও চামড়াজাত পণ্যের স্টলও ছিলো চোখের পড়ার মতো। এছাড়াও মেলায় আছে, শিমুল তুলার বালিশসহ বিভিন্ন ধরনের খাবারের আইটেম। বিশেষ করে গাজরের লাড্ডুর চাহিদায় বেশ সাড়া পেয়েছেন বলে জানালেন উদ্যোক্তা রাবেয়া বেগম।

এসএমই ফাউন্ডেশন সূত্রে জানাগেছে, দেশ বিভিন্ন জেলা থেকে একশ’ ৮৩ উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য ও সেবার পসরা নিয়ে মেলায় অংশ নিয়েছেন।

৩ এপ্রিল শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এ মেলার উদ্বোধন করেন।

এএফ/এসআই/একে

 

print
 
nilsagor ad

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad