‘প্রযুক্তি প্রান্তিকে না পৌঁছালে কোনো কাজই হবে না’

ঢাকা, রবিবার, ২৫ জুন ২০১৭ | ১১ আষাঢ় ১৪২৪

‘প্রযুক্তি প্রান্তিকে না পৌঁছালে কোনো কাজই হবে না’

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৯:৩৮ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১১, ২০১৬

print
‘প্রযুক্তি প্রান্তিকে না পৌঁছালে কোনো কাজই হবে না’
প্রযুক্তি প্রান্তিকে না পৌঁছালে কোনো কাজই হবে না। সাধারণ মানুষকে তার ভাষায় বোঝালে লক্ষ্য অর্জন সহজ হয়। শিক্ষার্থীদের অ্যাপস ফেলোশিপ পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে বৃহস্পতিবার প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান।

প্রযুক্তি প্রান্তিকে না পৌঁছালে কোনো কাজই হবে না। সাধারণ মানুষকে তার ভাষায় বোঝালে লক্ষ্য অর্জন সহজ হয়। শিক্ষার্থীদের অ্যাপস ফেলোশিপ পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে বৃহস্পতিবার প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান।

নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিতকল্পে কিংবা নারী নির্যাতন বন্ধে তথ্য প্রযুক্তি অবদান রাখতে পারে এমন ভাবনা থেকে এই ফেলোশিপের আয়োজন করে আমরাই পারি (উই ক্যান) ও ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। সারদেশের ৯৬টি দলের আবেদনের মধ্য থেকে বাছাই করা ২২টি দল প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।  চূড়ান্ত পর্বে নির্বাচিত হয় ৯টি দল।

ডেফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইয়াফেস ওসমান আরো বলেন, অন্যান্য মুসলিম দেশের চাইতে বাংলাদেশ এজন্যই এগিয়ে যে নারীকে নিজের মত করে এগিয়ে যেতে দিয়েছে সে।

তিনি বলেন, প্রযুক্তি মানে আর কিছু নয় সৃজনশীলতা। যত বেশি আইডিয়া তৈরি ও প্রয়োগ করা যাবে তত বেশি বাংলাদেশ বিশ্বে শক্ত অবস্থানে যাবে। অর্থ যতটা না সংকট তার চাইতে সংকট আইডিয়ার অভাব।

তিনি বলেন, আমাদের দুর্বলতা যতটুকু তার চাইতে সম্ভাবনা দ্বিগুণ।

অনুষ্ঠানের আয়োজক আমরাই পারি জোটের চেয়ারপারসন মানবাধিকার ব্যক্তিত্ব সুলতানা কামাল শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, এখন তোমাদের দেশ তোমাদের মত করে গড়ে নেওয়ার সময়।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. সবুর খান।

প্রতিযোগিতায় প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মত প্রতিষ্ঠানকে হারিয়ে প্রথম হয় রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজের শিক্ষার্থীরা। বিজয়ীদের হাতে ২ লাখ টাকার চেক ও সম্মাননা তুলে দেন প্রধান অতিথি। প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হয় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ও তৃতীয় হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়-জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ দল। দল দুটিকে যথাক্রমে দেড় লাখ ও ১ লাখ টাকা প্রদান করা হয়।

চতুর্থ ও পঞ্চম বিজয়ী দলকেও অর্থ সম্মাননা দেওয়া হয়। এছাড়া মন্ত্রীর পক্ষ থেকে বাকি ৩ দলের জন্যও অর্থ বরাদ্দ রাখা হয়।

এইচএ/আরআর/এইচএসএম

 

print
 

আলোচিত সংবাদ