করোনাভাইরাসে সৃষ্ট রোগের নতুন নাম ঘোষণা
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ৫ এপ্রিল ২০২০ | ২২ চৈত্র ১৪২৬

করোনাভাইরাসে সৃষ্ট রোগের নতুন নাম ঘোষণা

পরিবর্তন ডেস্ক ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২০

করোনাভাইরাসে সৃষ্ট রোগের নতুন নাম ঘোষণা

করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট রোগের নতুন নাম ঘোষণা করেছে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা। রোগটির নতুন নাম দেয়া হয়েছে ‘কোভিড-১৯’(COVID-19)।

এই ভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা এক হাজার ছাড়ানোর পর এই ঘোষণা এলো বলে বিবিসি অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে।

জেনেভায় বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস অ্যাঢানম গেব্রেইসাস বলেছেন, ‘এখন রোগটির একটি নতুন নাম রয়েছে আমাদের কাছে। সেটি হলো ‘কোভিড-১৯’। এটি ‘করোনাভাইরাস ডিজিজ ২০১৯’-এর সংক্ষিপ্ত রূপ।

করোনাভাইরাস শব্দটি রোগ সৃষ্টিকারী নতুন ভাইরাসটিকে উল্লেখ না করে ওই গ্রুপের সব ভাইরাসকে ইঙ্গিত করে।

ডাক্তার গেব্রেইসাস বিশ্বের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, আগ্রাসীভাবে এই নতুন ভাইরাসের মোকাবেলা করার জন্য।

ভাইরাসের নাম প্রদানকারী আন্তর্জাতিক সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব ট্যাক্সনমি অব ভাইরাসেস এই ভাইরাসটিকে সার্স-সিওভি-২ হিসেবে পরিচিতি দিয়েছে।

কোনো বিশেষ গ্রুপ অথবা দেশকে কেন্দ্র করে যেন ভীতি না ছড়ায়, তা নিশ্চিত করতে ভাইরাসটির আনুষ্ঠানিক একটি নাম দেয়ার জন্য আহ্বান জানিয়ে আসছিলেন গবেষকরা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেন, ‘আমাদের এমন একটি নাম খুঁজতে হয়েছে যেটি কোনো বিশেষ ভৌগলিক অঞ্চল, কোনো প্রাণী, ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর দিকে ইঙ্গিত করে না, পাশাপাশি যা সহজে উচ্চারণযোগ্য এবং নতুন ভাইরাসটির সাথেও যার সম্পর্ক আছে।’

তিনি জানান, ‘একটি নির্দিষ্ট নাম থাকলে ভুল বা অপবাদসূচক কোনো নাম ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকা সম্ভব। ভবিষ্যতে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ঘটনা ঘটলেও একটি নাম থাকলে সেটিকে নির্দিষ্টভাবে ব্যবহার করা সম্ভব।’

নতুন নামটি তৈরি করা হয়েছে ‘করোনা’, ‘ভাইরাস’ ও ‘রোগ’ শব্দগুলো থেকে। ২০১৯ দ্বারা রোগটির ছড়িয়ে পড়ার বছর বোঝানো হয়েছে।

চীনে বর্তমানে ৪২ হাজারের বেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী রয়েছে বলে জানা গেছে। মৃত্যুর সংখ্যাও ২০০২-২০০৩ সালে সার্স মহামারিতে হওয়া মৃত্যুর সংখ্যাকে ছাড়িয়েছে।

শুধু হুবেই প্রদেশেই সোমবার ১০৩ জন মারা গেছে, যা একদিনে হওয়া মৃত্যুর হিসেবে রেকর্ড। চীন সবমিলিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা এখন ১ হাজার ১৬ জন।

তবে নতুন করে সংক্রমণের হার আগের দিনের চেয়ে প্রায় ২০% নেমে ৩ হাজার ৬২ জন থেকে হয়েছে ২ হাজার ৪৭৮ জন।

রোগটি যখন প্রথম ছড়িয়ে পড়ে, তখন এটি সম্পর্কে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হয়নি- এমন অভিযোগে বলে চীনের কর্তৃপক্ষের সমালোচনা হচ্ছে।

শুরুর দিকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে সতর্ক করেছিলেন এক ডাক্তার, যার সতর্কবার্তা গোপন করার চেষ্টা করেছিল চীনের কর্তৃপক্ষ। সম্প্রতি ওই ডাক্তারের মৃত্যু হওয়ার পর চীনে ব্যাপক জনরোষ তৈরি হয়।

নতুন করে আরো অনেকে আক্রান্ত হওয়ায় চীনে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪৪ হাজার ১৩৮ জন। আর চীনের বাইরে ৩০টি দেশে একজনের মৃত্যুসহ ৩২০ জনের দেহে মিলেছে করোনাভাইরাস। মার্চের শেষ পর্যন্ত চীনের সঙ্গে বিমান পরিষেবা বন্ধ রাখার কথা ঘোষণা করেছে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ।

এইচআর

 

আন্তর্জাতিক: আরও পড়ুন

আরও