ট্রাম্পের মুখে সোলায়মানি হত্যার বর্ণনা

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

ট্রাম্পের মুখে সোলায়মানি হত্যার বর্ণনা

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:০৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

ট্রাম্পের মুখে সোলায়মানি হত্যার বর্ণনা

ইরানের শীর্ষ সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলায়মানির উপর হামলার সময়ের বর্ণনা দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।—ফাইল ছবি

ইরানের শীর্ষ সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলায়মানিকে হত্যার দুই সপ্তাহ পর হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিলেন আদেশদাতা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এমনকি সোলায়মানির উপর ড্রোন হামলার সময় নিজেই তা মনিটরিং করছিলেন বলে ট্রাম্প জানান।  হত্যার সাফাই গাইতে নতুন এক অজুহাত দাঁড় করিয়ে তিনি বলেন, ‘ইরানের এ জেনারেল ‘আমাদের দেশের বিরুদ্ধে বাজে কথা বলছিলেন, এজন্য তাকে হত্যা করেছি’।

ফ্লোরিডায় রিপাবলিকানদের একটি অনুষ্ঠানে ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের জন্য অর্থ সংগ্রহের আয়োজন করা হয়েছিল। সেই অনুষ্ঠানে নিজেই সোলায়মানি হত্যার প্রসঙ্গ উত্থাপন করে এসব কথা বলেন।

৩ জানুয়ারি ইরাকের বাগদাদের কাছে মার্কিন ড্রোন থেকে ক্ষেপণাস্ত্রের সাহায্যে হত্যা করা হয়েছিল ইরানের সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলায়মানিকে। ট্রাম্প এদিন জানিয়েছেন, ওই দিন হোয়াইট হাউসে বসে গোটা পরিস্থিতির উপর নজর রাখছিলেন তিনি।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের কথায়, “সেনা অফিসাররা আমাকে বললেন, ওরা একসঙ্গে আছে স্যর। ওদের হাতে আর ২ মিনিট ১১ সেকেন্ড সময় আছে। বাঁচার জন্য ২ মিনিট ১১ সেকেন্ড। ওরা সাঁজোয়া গাড়িতে আছে। বাঁচার জন্য আর এক মিনিট বাকি আছে, ৩০ সেকেন্ড, ১০, ৯, ৮...।”

ট্রাম্প বর্ণনা দিতে থাকেন, “তারপর হঠাৎ বুম...। ওরা শেষ স্যার। সংযোগ কাটছি। সেই লোকটা (সোলায়মানি) কোথায় গেল?” ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে যেন প্রায় সেই সময়ে পৌঁছে গিয়েছিলেন। বর্তমানে ফিরে তিনি বলেন, সেনা অফিসারদের কাছ থেকে ওই দিন সেটাই শেষ কথা শুনতে পেয়েছিলেন তিনি।

প্রসঙ্গত, সোলায়মানির হত্যার পর থেকেই মার্কিন সংসদের বেশ কিছু সদস্য এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। কিন্তু কেন সোলায়মানিকে এভাবে হত্যা করা হল, তার কোনও যথাযথ ব্যাখ্যা হোয়াইট হাউস এ পর্যন্ত দেয়নি।

অবশ্য এর আগে ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, জেনারেল সোলায়মানি মার্কিন স্বার্থের ওপর বড় ধরনের হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু শুক্রবার তহবিল সংগ্রহের অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তৃতায় নতুন এই অজুহাত ছাড়া ট্রাম্প সে কথা আর বলেননি।

ইরানি গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, ট্রাম্পের নতুন এ বক্তব্য একজন জেনারেলকে হত্যার ব্যাপারে কোনো রকমের বৈধতা দেয় না। এ ধরনের গুরুত্বপূর্ণ সামরিক কর্মকর্তাদেরকে হত্যা করা আন্তর্জাতিক আইনের সম্পূর্ণ লঙ্ঘন।

আগে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং তার প্রশাসনের অন্য কিছু কর্মকর্তা জেনারেল সোলায়মানির পক্ষ থেকে হামলা আসন্ন ছিল বলে যে মন্তব্য করেছিলেন সে ব্যাপারে তারা কিন্তু কোনো তথ্য-প্রমাণ দিতে পারেন নি।

সোমবার মার্কিন টেলিভিশন চ্যানেল এনবিসি জানিয়েছে, জেনারেল কাসেম সোলায়মানিকে হত্যার জন্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কয়েকমাস আগে মার্কিন সামরিক বাহিনীকে কর্তৃত্ব দিয়েছিলেন।

এরপর গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে মার্কিন সেনারা জেনারেল সোলায়মানি এবং ইরাকের ইরানি মিলিশিয়া গোষ্ঠী হাশদ আশ-শা’বির সেকেন্ড-ইন-কমান্ড আবু মাহদি আল-মুহান্দিসকে হত্যা করে। এর জবাবে ৮ জানুয়ারি ইরানের সামরিক বাহিনী মার্কিন দুটি সামরিক ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায়।

এমএফ/

 

 

আন্তর্জাতিক: আরও পড়ুন

আরও