নির্বাচনের আগে সৌদি-আমিরাত যুবরাজের সাথে ট্রাম্পপুত্রের বৈঠক কেন?

ঢাকা, শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ | ৮ আষাঢ় ১৪২৫

নির্বাচনের আগে সৌদি-আমিরাত যুবরাজের সাথে ট্রাম্পপুত্রের বৈঠক কেন?

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:০৯ অপরাহ্ণ, মে ২০, ২০১৮

print
নির্বাচনের আগে সৌদি-আমিরাত যুবরাজের সাথে ট্রাম্পপুত্রের বৈঠক কেন?

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দুই মাস আগে সৌদি যুবরাজ এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের যুবরাজের সাথে বৈঠক করেন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী (ওই সময়) ডোনাল্ড ট্রাম্পের বড় ছেলে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র। ২০১৬ সালের ৩ আগস্ট ওই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আর মার্কিন নির্বাচন হয় ওই বছরের ৭ নভেম্বর। কিন্তু মার্কিন নির্বাচনের আগে দুই আরব যুবরাজের সাথে ট্রাম্পের পুত্রের কিসের বৈঠক?

মার্কিন গণমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস শনিবার প্রথম ওই বৈঠকের বিষয়টি ফাঁস করে। বৈঠকে ট্রাম্প জুনিয়রের পক্ষে যিনি প্রতিনিধিত্ব করেন তিনিই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, নিউ ইয়র্ক টাইমসের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নির্বাচনে ট্রাম্পকে সাহায্য করা নিয়েই মূলত ওই বৈঠক হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বেসরকারি সামরিক বাহিনী ব্লাকওয়াটারের প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রধান এরিক প্রিন্স ওই বৈঠকের আয়োজন করেন এবং তিনি নিজেও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া একটি ইসরাইলি কনসাল্টিং ফার্মের সহ-প্রতিষ্ঠাতা জোয়েল জামেলও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

ট্রাম্প জুনিয়রের প্রতিনিধি (অ্যাটর্নি) অ্যালান ফুতারফাস শনিবার বলেছেন, ওই বৈঠক থেকে তেমন কোনো ফলাফল আসেনি।

ই-মেইলে পাঠানো বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘২০১৬ সালের নির্বাচনের আগে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র এরিক প্রিন্স ও জর্জ নাদের এবং আরেকজনের, যিনি জোয়েল জামেল হতে পারেন, সাথে বৈঠক করেন। তারা ট্রাম্প জুনিয়রের সাথে সামাজিক যোগায়োগ মাধ্যম প্লাটফর্ম অথবা মার্কেটিং কৌশলাদি নিয়ে কথা বলেন। তিনি (ট্রাম্প জুনিয়র) এতে আগ্রহী ছিলেন না এবং বিষয়টি সেখানেই শেষ হয়।’

নিউ ইয়র্ক টাইমসের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নির্বাচনে ট্রাম্পকে জেতাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের হাজার হাজার ভুয়া অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে লাখ লাখ ডলারের বিনিময়ে অনলাইনে একটি কৌশলী প্রচারাভিযানের প্রস্তাবের ব্যাপারে কাজ করে জোয়েল জামেলের সাথে সংশ্লিষ্ট একটি কোম্পানি।

অপরদিকে, জর্জ নাদের নামের ওই দূত, যিনি লেবানন-আমেরিকান ব্যবসায়ী, ট্রাম্প জুনিয়রকে বলেন, সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের যুবরাজ তার বাবাকে নির্বাচনে সাহায্য করতে আগ্রহী।

প্রসঙ্গত, ১৯৭৪ সাল থেকে মার্কিন নির্বাচনী প্রচারে বিদেশী নাগরিকদের অর্থগ্রহণ নিষিদ্ধ। এমনকি পরবর্তীতে কোনো রাজনৈতিক দলকেও বিদেশী নাগরিকের ডোনেশন দেওয়া নিষিদ্ধ করা হয়। এ ছাড়া নির্বাচনী প্রচারে অর্থায়ন সংক্রান্ত আইনেও বিদেশী নাগরিকদের সমন্বয় নিষিদ্ধ রয়েছে।

রয়টার্স বলছে, এ ব্যাপারে ওয়াশিংটনে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সৌদি দূতাবাসের মন্তব্য চাওয়া হলেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

গত মাসে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশেষ কাউন্সেল রবার্ট মুয়েলারের সঙ্গে যে তদন্ত দল কাজ করছে তারা জামেলের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন। এ ছাড়া মুয়েলারের তদন্ত দল জামেলের ফার্মের বিষয়ে এবং নাদেরের সাথে তার সম্পর্ক নিয়েও তদন্ত করছে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ, ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের ব্যাপারে মস্কোর আঁতাত এবং বিষয়টি তদন্তের ক্ষেত্রে মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের ওপর ট্রাম্প প্রভাব বিস্তার করেছেন কি না- তা নিয়ে তদন্ত করছে মুয়েলারের তদন্ত কমিটি।

তবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রাশিয়ার সাথে কোনো ধরনের আঁতাতের কথা অস্বীকার করেছেন এবং মুয়েলারের তদন্তকে তিনি ‘উইচ-হান্ট’ বা ডাইনি খোঁজা বলে মন্তব্য করেছেন।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই বৈঠক থেকে এটাই প্রতীয়মাণ হয় যে, রাশিয়া ছাড়াও অন্যান্য দেশ ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারে সাহায্য করার প্রস্তাব করে থাকতে পারে। ওয়াশিংটন, নিউ ইয়র্ক, আটলান্টা, তেলআবিব এবং নির্বাচনী প্রচারে সম্ভাব্য যেখান থেকেই সাহায্য করা হয়ে থাকতে পারে সেখানেই সাক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে মুয়েলারের তদন্ত কমিটি।

তবে মুয়েলারের তদন্ত দলের মুখপাত্র পিটার কার এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

এদিকে, জামেলের আইনজীবী মার্ক মুকাসে রয়টার্সের কাছে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলেছেন, তার মক্কেল ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারে কোনো কিছু দেননি আবার নির্বাচনী প্রচার থেকে কিছু গ্রহণও করেননি। তাছাড়া ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের ব্যাপারে তাকে কিছু অনুরোধও করা হয়নি।

অন্যদিকে, নাদেরের আইনজীবী ক্যাথরিন রুয়েম্মলার নিউ ইয়র্ক টাইমসকে বলেছেন, তার ক্লায়েন্ট মুয়েলারের তদন্ত কমিটিকে পুরোপুরি সহযোগিতা করছেন এবং পরবর্তীতেও তা করবেন।

আর মার্কিন শিক্ষামন্ত্রী বেটসেই ডেভসের ভাই এরিক প্রিন্সের তাৎক্ষণিক কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

আরপি

 
.




আলোচিত সংবাদ