নিখোঁজ সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফের পরিবার চুপ কেন?

ঢাকা, শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১ পৌষ ১৪২৪

নিখোঁজ সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফের পরিবার চুপ কেন?

এ এইচ এম ফারুক ৩:৩৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৭

print
নিখোঁজ সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফের পরিবার চুপ কেন?

চার দিনেও খোঁজ মিলেনি সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামানের। গত ৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ছোট মেয়ে সামিহা জামানকে শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে আনার জন্য ধানমন্ডির বাসা থেকে গাড়ি চালিয়ে বের হন। তার কিছুক্ষণ পর থেকেই তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। পুলিশ জানিয়েছে তাকে খোঁজার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। নিখোঁজ এই সাবেক কূটনীতিকের পরিবার এক অজানা শঙ্কার মধ্য দিয়ে দিন অতিক্রম করছে। যোগাযোগ করা হলে পরিবারের পক্ষে কেউ গণমাধ্যমে কথা বলতে রাজি হননি। পরিবার চুপ থাকায় বিষয়টি নিয়ে নানা ধরণের রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে।

.

তবে সাবেক রাষ্ট্রদূতের পরিবারের সাথে ঘনিষ্ট একটি সূত্রে জানা যায়, তার পরিবার ভীষণভাবে ভেঙে পড়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষ থেকে তার খোঁজের বিষয়ে তথ্য পাওয়া যায়নি।

এক প্রশ্নের জবাবে সূত্রটি জানায়, কেউ মুক্তিপণ বা কোনো কিছু জানিয়ে যোগাযোগ করেনি। পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষ থেকে পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

বুধবার দুপুরে সরেজমিন ধানমন্ডির নম্বর রোডের ৮৯ নম্বর বাসায় গেলে মারুফ জামানের পরিবার সাংবাদিকদের সাথে সরাসরি সাক্ষাত করে কথা বলতে আপত্তি জানায়। পরিবারের পক্ষে বাসার গেটে একটি লিখিত প্রেস রিলিজ রাখা হয়।

সেখানে মারুফ জামানের বড় বোন শাহরিনা কামাল ও ছোট ভাই রিফাত জামানের পক্ষ থেকে বলা হয়, মারুফ জামান একজন অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন। পরে পররাষ্ট্র ক্যাডারে আত্তীকরণ হন। তিনি কাতার ও ভিয়েতনামে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেছেন। যুক্তরাজ্যের বাংলাদেশ দূতাবাসেও সাবেক কাউন্সিলর ছিলেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে অতিরিক্ত সচিব হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন।

৪ ডিসেম্বর তার ছোট মেয়ে সামিহা জামানকে শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে আনার জন্য তিনি সন্ধ্যায় ধানমন্ডির বাসা থেকে গাড়ি চালিয়ে বের হন। তার কিছুক্ষণ পর ৭টা ৪৫ মিনিট নাগাদ বাসার ল্যান্ড ফোনে অজ্ঞাত নম্বর থেকে ফোন করে গৃহপরিচারিকাকে বলেন, তার বাসায় কম্পিউটার নিতে কেউ একজন আসবেন। এর কিছুক্ষণ পর ৮টা ৫ মিনিটের দিকে তিনজন সুঠামদেহী ভদ্রলোক বাসায় এসে তার ল্যাপটপ, বাসার কম্পিউটারের সিপিইউ, ক্যামেরা, একটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। এসময় মারুফ জামানের ঘরে তল্লাশি চালায়। তখন যোগাযোগ করা হলে মারুফ জামানের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ৫ ডিসেম্বর দুপুরে ধানমন্ডি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয় (জিডি নং-২১৩)। ওই দিন সন্ধ্যায় তার গাড়িটি (ঢাকা মেট্রো-গ-২১-১৩৯৯) পুলিশ খিলক্ষেত থেকে উদ্ধার করে। সে সময় থেকে মারুফ জামানের সঙ্গে কোনো ধরনের যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামানের বাসা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যে সুঠামদেহী তিন যুবক বাসায় ঢুকে ল্যাপটপ, কম্পিউটারের সিপিইউ, ক্যামেরা, একটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। বাসায় ঢোকার সময় সিসিটিভি ক্যামেরায় চেহারা লুকাতে তারা তিনজনই মাথায় ক্যাপ পরিহিত ছিল। ওই তিন যুবক বাসায় আসার আগে মারুফ জামান বাসায় ফোন করে তাদের কম্পিউটার দিতে বলেছিলেন।

পুলিশের তদন্ত সংশ্লিষ্ট এক্টি সূত্র জানিয়েছে, বাসা থেকে সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে বাসায় আসা তিনজন সুঠামদেহীর মাথায় ক্যাপ ছিল। তারা বাসার ক্যামেরা সম্পর্কে বেশ সচেতন ছিলেন। ক্যামেরা এড়ানোর জন্য নিচের দিকে মাথা করে আসা-যাওয়া করেছেন।

বাসায় ঢোকা থেকে বের হওয়া পর্যন্ত ১৬-১৭ মিনিট সময় নিয়েছেন তারা। বাসার ভেতরে ছিলেন ৮ মিনিটের মতো। ধানমন্ডি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল লতিফ বৃহস্পতিবার পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, আমরা জোর তদন্ত চালাচ্ছি। উদ্ধার হওয়া গাড়ি ধানমন্ডি থানায় আনা হয়েছে।

এএফ/এএল

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad