ব্রিটেন-আমেরিকাতেও বহু মানুষ গুম হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা, শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১ পৌষ ১৪২৪

ব্রিটেন-আমেরিকাতেও বহু মানুষ গুম হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ১১:৪৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৩, ২০১৭

print
ব্রিটেন-আমেরিকাতেও বহু মানুষ গুম হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শুধু বাংলাদেশে নয়, অন্য দেশেও গুম হচ্ছে। ব্রিটেন-আমেরিকাতেও বহু মানুষ গুম হচ্ছে। বৃহস্পতিবার রাতে জাতীয় সংসদের ১৮তম অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। খবর: বাসস’র। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের আগে গুম নিয়ে সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ কড়া সমালোচনা করেন।

.

তিনি বলেন, ‘মানুষকে জিম্মি করে মুক্তিপণ আদায় করা হচ্ছে। এগুলো বানানো কথা না। খবরের কাগজে আছে। কীভাবে অনিরুদ্ধ নিখোঁজ হলো? নিখোঁজ হয়ে কোথায় গেল, কে নিয়ে গেল? আমরা জানতে পারিনি।’

রওশনের এরশাদের বক্তব্যের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণকে নিরাপত্তা দেওয়া সরকারের দায়িত্ব, এটা অস্বীকার করছি না। বিরোধী দলের নেতা গুমের কথা বলেছেন। এই গুম তো বহুভাবেই হচ্ছে। অনেকে কিন্তু, ফেরতও আসছে। যারা ফেরত আসে বা খুঁজে পাওয়া যায়, তা নিয়ে বড় করে নিউজ হয় না।’

তিনি বলেন, ‘গুম কী কারণে হচ্ছে, কোথায় হচ্ছে? এটা কি শুধু বাংলাদেশে? ২০০৯ সালের একটি হিসাব- ব্রিটেনে ২ লাখ ৭৫ হাজার ব্রিটিশ নাগরিক গুম হয়ে গেল। তার মধ্যে ২০ হাজারের কোনো হদিসই পাওয়া গেল না। আমেরিকার অবস্থা আরও ভয়াবহ।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘৫৪ হাজার বর্গমাইলের বাংলাদেশ ১৬ কোটি মানুষের দেশ। এইটুকু ভৌগলিক সীমারেখার মধ্যে এত মানুষের অবস্থান। তাদের সেবা ও আর্থ-সামাজিক উন্নতি আমরা করে যাচ্ছি। অথচ এই সব উন্নত দেশগুলোর জনসংখ্যা কত, তাদের সব কিছু তো আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন। তারপরও সেই দেশে এত লোক গুম হয়, তার খোঁজ পাওয়া যায় না।’

তিনি বলেন, ‘সেই তুলনায় আমাদের অবস্থা অনেক বেশি নিয়ন্ত্রণে। যখন কোনো ঘটনা ঘটছে সঙ্গে সঙ্গে খোঁজ নিচ্ছি।’

কলাম লেখক ও রাজনৈতিক ভাষ্যকার ফরহাদ মজহারের নাম উল্লেখ না করলেও তার ‘গুম’ বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের একজন সনামধন্য আঁতেল গুম হয়ে গেলেন। পরে দেখা গেল- উনি গুম হননি। উনি নিজে নিজেই খুলনায় গেলেন। পরে তাকে খুঁজে পাওয়া গেল। অথচ এর দোষটা আমাদের। এ ধরনের আরও অনেক ঘটনা তো ঘটে যাচ্ছে। আমি তার নামধাম বলতে চাই না।’

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলে জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন শুরু হয়।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে বিএনপির সমালোচনা করে বলেন, ‘জনগণের প্রতি আমার দৃড় বিশ্বাস রয়েছে। যারা এই দলটির অপকর্ম সম্পর্কে জানেন, যাদের বিবেক আছে, তারা ভোট দেবে না। সুতরাং ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখে তাদের (বিএনপি) কোনো লাভ হবে না। এ নিয়ে আলোচনা করেও কোনো লাভ নেই। জনগণ শান্তি এবং উন্নয়ন চায়। মানুষ এটা বুঝতে পেরেছে, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে উন্নতি হয় এবং উন্নতি হবে। মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নত হয়েছে।’

প্রশ্ন রেখে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তারা আবারও ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখে কিভাবে? জনগণ কি ভোট দিয়ে ওই আপদ টেনে তাদের জীবনকে আবার দুর্বিষহ করে তুলবে?’

বিএনপি যদি আবার ক্ষমতায় আসে, এদেশের জনগণের জীবন নরকে পরিণত হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

প্রয়োজনে এ সরকারকে টেনেহিঁচড়ে নামানো হবে- সম্প্রতি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ এমন বক্তব্য দিয়েছিলেন।

তার এই বক্তব্যের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটি দল নির্বাচনে না এসে রাস্তায় রাস্তায় চিৎকার করে বেড়াচ্ছে। আমাদের সরকারকে নাকি টেনে নামাবে। এমন একজন মানুষের মুখ থেকে এই কথাটা আসল, তার নাম নিতে চাই না। তার চরিত্রটা কী? যিনি নিজে মাটিতে পড়ে আছেন, তিনি কিভাবে অন্যকে টেনে নামাবেন?’

ওএস/আইএম

আরও পড়ুন...

ক্ষমতার স্বপ্ন দেখে কোনো লাভ নেই: প্রধানমন্ত্রী

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad