আবাসিক ও বাণিজ্য পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম কার কত বাড়ল?

ঢাকা, শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১ পৌষ ১৪২৪

আবাসিক ও বাণিজ্য পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম কার কত বাড়ল?

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৭:১৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৩, ২০১৭

print
আবাসিক ও বাণিজ্য পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম কার কত বাড়ল?

গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের মূল্য গড়ে ৩৫ পয়সা বাড়ানো হয়েছে। ১ ডিসেম্বর থেকে এই মূল্য কার্যকর হবে। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে। সংস্থাটির দাবি, পাইকারী পর্যায়ে বিদ্যুতের মূল্য বাড়ানো হয়নি। আবাসিক এলাকার জন্য বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে যে সকল ধাপে তাহলো- ৭৫ ইউনিট ব্যবহার করা গ্রাহক দাম বৃদ্ধির আগে ৩১০ টাকা বিল পরিশোধ করতেন। এখন সেই বিল ৪ দশমিক ৮ শতাংশ হারে বাড়ায় বিল পরিশোধ করতে হবে ৩২৫ টাকা।

.

১০০ ইউনিট ব্যবহারকারী বিল ৫ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়ে আগের থেকে ২২ টাকা বেশিসহ বর্তমানে ৪৬১ টাকা পরিশোধ করতে হবে।

১৫০ ইউনিটের জন্য ৬ দশমিক ৭ শতাংশ হারে  ৪৮ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ৭৫৯, ২৫০ ইউনিটের জন্য ৭ দশমিক ২ শতাংশ হারে ৯০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ১,৩৪১, ৩৫০ ইউনিটের ক্ষেত্রে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ হারে ১৩৭ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ১,৯৬২, ৪৫০ ইউনিটের ক্ষেত্রে ৭ দশমিক ৭ শতাংশ হারে ১৯৬ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ২,৭৪৩টাকা প্রদান করতে হবে।

এছাড়া ১ হাজার ইউনিটের ক্ষেত্রে ৭ দশমিক ৭ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমান মূল্য ৮ হাজার ৫৪৩ টাকা হয়েছে। এখানে ৬০৪ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।

এদিকে, বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধির চিত্র-
সেচের ক্ষেত্রে ৭৫০ ইউনিট ব্যবহার করলে আগে বিল দিতে হতো ২,৮৯৫ টাকা, যা ৬ দশমিক ২ শতাংশ হারে ১৮০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে দিতে হবে ৩,০৭৫ টাকা।

ছোট বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ২০০ ইউনিট বিদ্যুতের জন্য ৫ শতাংশ হারে ১০০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমান মূল্য ২,১২০ টাকা, বড় বাণিজ্যিকের ক্ষেত্রে ১৫ হাজার ইউনিট বিদ্যুতের জন্য ১০ দশমিক ৬ শতাংশ হারে ১২,৫৫০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমান মূল্য ১ লাখ ৩ হাজার ১শ’ টাকা।

ছোট শিল্প প্রতিষ্ঠানে ২ হাজার ইউনিটের জন্য ৭ দশমিক ৫ শতাংশ হারে ১,১৬০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমান মূল্য ১৬, ৫৫০ টাকা। মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য ২০ হাজার ইউনিটের জন্য ৭ দশমিক ৫ শতাংশ হারে ১১,৭০০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমান মূল্য ১ লাখ ৬৮ হাজার টাকা দিতে হবে।

আর বড় শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য ২০ লাখ ইউনিটের জন্য ৭ দশমিক ৩ শতাংশ হারে ১১ লাখ ১৯ হাজার ৫৫০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমান মূল্য দাঁড়াবে ১ কোটি ৬৫ লাখ টাকা।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন আইন, ২০০৩ এর ৩৪ (৬) ধারা মোতাবেক বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিউবো) বিদ্যুতের পাইকারী (বাল্ক) মূল্যহার প্রায় ১৫ শতাংশ বৃদ্ধির জন্য কমিশনে আবেদন করে।

তাছাড়া ওই ধারা মোতাবেক বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা হিসেবে বিউবো, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বাপবিবো), ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (ডিপিডিসি), ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেড (ডেসকো), ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (ওজোপাডিকো) এবং নর্দার্ন ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেড (নেসকো) বিদ্যুতের খুচরা মূল্যহার পরিবর্তন বা সমন্বয়ের জন্য কমিশনের আবেদন করে।

বিদ্যুৎ সরবরাহ মূল্য এক এক সংস্থার জন্য ভিন্ন রকম। বিপিডিবি বিদ্যুৎ সরবরাহ মূল্য দশমিক ৮৫ টাকা, আরইবি’র ১ দশমিক ৬২ টাকা, ডিপিডিসি’র দশমিক ৮৩ টাকা, ডেসকোর দশমিক ৭৫ টাকা, ডব্লিউজেপিডিসি ১ দশমিক ২২ টাকা এবং এনইএসসিও ১ দশমিক ১৫ টাকা।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর বিদ্যুতের দাম গড়ে ২ দশমিক ৯৩ শতাংশ বাড়িয়েছিল সরকার। তাতে মাসে ৭৫ ইউনিট পর্যন্ত ব্যবহারকারীদের খরচ বেড়েছিল ২০ টাকা। আর ৬০০ ইউনিটের বেশি ব্যবহারে খরচ বাড়ে কমপক্ষে ৩০ টাকা।

সংবাদ সম্মেলনে বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধি বিষয়ে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংস্থার চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন- সদস্য রহমান মুরশেদ, মো. মিজানুর রহমান, মাহমুদুল হক ভূঁইয়া, মো. আব্দুল আজিজ খান প্রমুখ।

এফবি/আইএম

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad