৩০ ভাগ নারী থানায় গিয়ে টিজিংয়ের শিকার : একশনএইড

ঢাকা, রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩ পৌষ ১৪২৪

৩০ ভাগ নারী থানায় গিয়ে টিজিংয়ের শিকার : একশনএইড

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৮:১৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৬, ২০১৭

print
৩০ ভাগ নারী থানায় গিয়ে টিজিংয়ের শিকার : একশনএইড

দেশের বিভিন্ন শহরের সেবাপ্রদানকারীদের কাছ থেকে সেবা নিতে গিয়ে নারীরা শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। একশনএইড বাংলাদেশের এক গবেষণায় এই তথ্য ওঠে এসেছে। ‘গণপরিসরে নারীর প্রতি সহিংসতার প্রেক্ষিতে গণসেবা’ শীর্ষক ওই গবেষণায় দেখা যায়, হাসপাতালে গিয়ে ৪২ দশমিক ৫ ভাগ নারী সেবাপ্রদানকারীদের কাছ থেকে দুর্ব্যবহারের শিকার হন। অন্যদিকে শতকরা ১৫ জন নারী মনে করেন যে, কোন না কোনভাবে তারা শারীরিক বা মানসিক নির্যাতনের শিকার হন। এছাড়া শতকরা ৫০ ভাগ নারী বাজারে অনাকাঙ্ক্ষিত স্পর্শ বা এ ধরনের ঘটনার শিকার হন। পাশাপাশি ৩০ ভাগ নারী থানায় গিয়ে টিজিং-এর শিকার হন। আর শারীরিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন শতকরা ৩৫ জন নারী।

.

খুলনা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও নারায়নগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন এলাকার পুলিশ প্রশাসন, সিটি করপোরেশন, পরিবহণ কর্তৃপক্ষ, বাজার ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ এবং হাসপাতাল সেবা নিয়ে চারশ’ মানুষের উপর গবেষণায় এই তথ্য ওঠে এসেছে।

২০১৬ সালের গোড়ার দিকে করা এই গবেষনা প্রতিবেদন রবিবার ঢাকার রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক আলোচনা সভায় তুলে ধরে একশনএইড বাংলাদেশ।
গবেষণার ফলাফল ও গণসেবা নিয়ে ধারণাপত্র তুলে ধরে অনুষ্ঠানে একশনএইড বাংলাদেশের ম্যানেজার নুজহাত জেবিন বলেন, স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও যাতায়াত ও নিরাপত্তার মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে গণসেবা নিতে গিয়ে নানা ধরনের হয়রানি ও ভোগান্তির শিকার হন সাধারণ মানুষ, এক্ষেত্রে নারীরা সমস্যায় বেশি পড়েন। মূলত, জনগুরুত্বপূর্ণ খাতে বাজেট বরাদ্দের অভাব, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার অভাবে এমন অবস্থা।

অর্থায়ন, নীতির বাস্তবায়ন, সচ্ছতা ও জবাবদিহিতার অভাবে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ গণসেবাগুলো জনমূখী নয় বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে গবেষণায় তুলে ধরেছে একশনএইড বাংলাদেশ।

গবেষণায় এখনও পর্যন্ত সিটি করপোরেশনের নীতিমালার মাধ্যমে নারী কাউন্সিলরদের দায়িত্ব নিয়ে বিশেষ কোন দিকনির্দেশনা দিতে না পারার বিষয়টি ওঠে এসেছে। এছাড়াও বলা হয়, সিটি করপোরেশনগুলো এখনো নারীদের জন্য পৃথক টয়লেট সুবিধা, মাতৃদুগ্ধপানের স্থান এমনকি আলাদা বসার জায়গার ব্যবস্থা করতে পারেনি। ফলে অনেক মা শিশুকে টিকাদানের মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজে সমস্যার সম্মুখিন হন। একইভাবে বাজার বা হাসপাতালে কোন সহিংসতার ঘটনা ঘটলে তা সমাধানে তাদের জন্য আলাদা কোন ব্যবস্থা নেই। আর এসকল ব্যবস্থায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতির শিকার হন প্রান্তিক মানুষরা।

গবেষণায় বলা হয়, বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে তেমন কোন ব্যবস্থা নেই, আবার এসকল স্থানে সহিংসতার কোন ঘটনা ঘটলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সেগুলো যথাযথভাবে আমলে নেয়া হয় না বা সঠিক কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাবেক জেষ্ঠ্য গবেষক প্রতিমা পাল মজুমদার বলেন, সেবা নিশ্চিত করতে সরকারের অনেক আইন ও নীতি আছে। তবে তার বাস্তবায়ন হয় না বলেই এই অবস্থা। এছাড়া যারা সেবা দেন তারা আন্তরিক না। আবার যারা সেবা দেয়ার জন্য সরকারী প্রতিষ্ঠানে বসে আছেন তাদের জেন্ডার নিয়ে ধারণা কম। তাই নারীরা সমস্যায় বেশি পরেন।

অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ও একশনএইড বাংলাদেশের পরিচালক আজগর আলী সাবরি বলেন, যদি সাধারণ মানুষের জন্য মানসম্মত শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা হয় তাহলে সে কর্মক্ষম হবে। রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে তাই গণসেবা নিশ্চিত করতেই হবে। অর্থায়ন ও বিনিয়োগ বাড়াতে প্রচলিত ধারার বাইরে কর্পোরেট ট্যাক্সকে আমলে নিতে হবে।

গবেষণা ও ধারণাপত্রে একশনএইড বাংলাদেশ বলছে, সাম্প্রতিক সময়ে গণসেবার মান উন্নত করতে অনেক অর্থায়ন করা হয়েছে। কিন্তু গণসেবা জেন্ডার সংবেদনশীল হতে অনেক দূর যেতে হবে।

প্রতিষ্ঠানটি গণসেবায় সরকারিভাবে অর্থায়ন বাড়ানো, সরকারিভাবে সেবা প্রদান নিশ্চিত করা, স্বচ্ছ ও জেন্ডার সংবেদনশীল বাজেট প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন, জবাবদিহিতামূলক গণসেবা ব্যবস্থা নিশ্চিত করাসহ অন্তর্ভূক্তিমূলক জেন্ডার সংবেদনশীল গণসেবা কাঠামোর কয়েকটি দাবি তুলে ধরে।

এছাড়া সার্বিক গণসেবার পরিস্থিতি উন্নয়নে জনবান্ধব গণসেবার জন্য গতানুগতিক আয়কর, সারচার্জ এবং ভ্যাট-এর উপর নির্ভরশীল না হয়ে বিকল্প অর্থায়ন ব্যবস্থার মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ করা; নারীদের কার্যকরী অংশগ্রহনের মাধ্যমে জেন্ডার বাজেট প্রণয়ন; গণসেবার জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো জোরদার করতে হবে এবং স্থানীয় চাহিদার প্রতিফলন ঘটাতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়াকে শক্তিশালী করতে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ করার দাবি জানিয়েছে একশনএইড বাংলাদেশ।

এলআর/এমডি

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad