খালেদা জিয়াকে নিয়ে আমাদেরকে কেন ভাবতে হবে? প্রশ্ন আইনমন্ত্রীর

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

খালেদা জিয়াকে নিয়ে আমাদেরকে কেন ভাবতে হবে? প্রশ্ন আইনমন্ত্রীর

সচিবালয় প্রতিবেদক ২:৪৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০২০

খালেদা জিয়াকে নিয়ে আমাদেরকে কেন ভাবতে হবে? প্রশ্ন আইনমন্ত্রীর

আদালত খালেদা জিয়াকে এতিমের টাকা চুরি করার জন্য জেল দিয়েছিল। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ তার জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন। তিনি এখন সাজা ভোগ করছেন। এগুলো সবই আদালতের ব্যাপার। আমাদেরকে কেন ভাবতে হবে যে, আমরা খালেদা জিয়াকে নিয়ে কী করব? আমাদের কাছে এরকম কোনো প্রশ্নই ওঠে নাই। আমরা এটা নিয়ে এখন ভাবছিও না।

মঙ্গলবার দুপুরে সচিবালয়ে পাবনা আইনজীবী সমিতিকে বই-পুস্তক ক্রয় বাবদ ৩০ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এসব কথা বলেন।

কিন্তু বিএনপি অভিযোগ করেছে, এটি রাজনৈতিক মামলা-সাংবাদিকরা এমন প্রসঙ্গ আনলে আইনমন্ত্রী বলেন, এটি রাজনৈতিক মামলা কিনা সেটি ভাববার সময় এসেছে। এই মামলার সকল তথ্যাদি সাংবাদিকদের সামনে উত্থাপন করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে যখন মামলা হয়েছিল তখন শেখ হাসিনার সরকার ছিল না। তাই মুখে তারা বলতে পারেন কিন্তু কাগজে প্রমাণ করতে পারবেন না।

সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলার রায়সহ গতকাল দেয়া দু'টি রায় প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই দু'টো বিচারের মাধ্যমে আবারও প্রমাণিত হলো, যার যতই ক্ষমতা থাকুক না কেন; অপরাধীরা কেউই আইনের উর্ধ্বে নয়। হয়তো সাময়িকভাবে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে কিছুদিনের জন্য আইনের ঊর্ধ্বে আছেন বলে মনে করতে পারেন তারা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাদেরকে আইনের আওতায় আসতেই হয়।

আনিসুল হক বলেন, শেখ হাসিনার মতো একজন প্রধানমন্ত্রী যদি বাংলাদেশে থাকেন তাহলে জনগণ এটুকু আশ্বস্ত হতে পারেন, এখানে প্রত্যেকটা অপরাধের অথবা প্রত্যেকটা অন্যায়ের আইনিভাবে বিচার হবে।

দেশে আইনের শাসন সমানভাবে প্রতিষ্ঠা হয়েছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, হ্যাঁ, সমানভাবেই প্রতিষ্ঠা হয়েছে। বিচারহীনতার যে সংস্কৃতি ছিল তার মূল উৎপাটন করা হয়েছে।

সব অপরাধীদের বিচার হচ্ছে। সেজন্যই আমরা দৃঢ়তার সঙ্গেই বলতে পারি, দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে।

এসএস/

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও