‘পরাজয় নিশ্চিত জেনেই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় বিএনপি’
Back to Top

ঢাকা, শনিবার, ৩০ মে ২০২০ | ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

‘পরাজয় নিশ্চিত জেনেই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় বিএনপি’

সচিবালয় প্রতিবেদক ৫:২৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

‘পরাজয় নিশ্চিত জেনেই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় বিএনপি’

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে পরাজয় নিশ্চিত জেনেই বিএনপি নেতারা আবোল-তাবোল বকছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আসলে তারা (বিএনপির নেতারা) নির্বাচনকে বিতর্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায়।

রোববার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

এর আগে বাংলাদেশে নিযুক্ত থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক করেন ওবায়দুল কাদের।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির নির্বাচনে জেতার তাদের কোনো লক্ষণ নেই, সেটা নিশ্চিত জেনেই তারা আবোল-তাবোল বকছে। কখনো নির্বাচন কমিশনকে, কখনো ইভিএম নিয়ে আবার কখনো সরকারের ভূমিকা নিয়ে বিভিন্ন বক্তব্য রেখে যাচ্ছে। এগুলো মূলত নির্বাচনকে বিতর্কিত করার জন্যই এবং সেটাই তারা করে যাচ্ছে।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেছেন, নির্বাচন কমিশনকে ব্যবহার করা হচ্ছে এবং তারা পক্ষপাতমূলক আচরণ করছে- সাংবাদিকরা এ প্রসঙ্গ আনলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তাদের এসব কথা-বার্তায় একটা বিষয় দিবালোকের মতো পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে, তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ হচ্ছে লোক দেখানো। মূলত নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করাই হচ্ছে তাদের বড় টার্গেট।’

আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ‘ইভিএম নিয়ে তারা বিষোদগার করছে। নির্বাচনে পরাজয়ের যে আভাস, সেজন্য ইভিএমকে বিতর্কিত করে একটা অজুহাত হিসেবে বিষয়গুলো উত্থাপন করছে।’

রাখাইনে ইকোনমিক জোন করতে যাচ্ছে চীন। এতে করে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনের আশা ক্ষীণ হচ্ছে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘মিয়ানমারের সাথে চীনের যে সম্পর্ক সেখানে তাদের স্বার্থ সম্পর্কিত যেকোনো বিষয় নিয়ে চুক্তি হতে পারে। কারণ মিয়ানমারে চীনের ইনভেস্টমেন্ট আছে।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, তবে আমাদের স্বার্থ ক্ষুণ্ন করার মতো সেরকম কিছু দেখছি না। এরকম কিছু হলে অবশ্যই আমরা অবজেকশন করব। যদি এরকম কিছু হয়ে থাকে অবশ্যই বাংলাদেশ নিজেদের স্বার্থ নিয়ে কথা বলবে।’

এসএস/এইচআর

 

: আরও পড়ুন

আরও