ইসিতে কর্তৃত্বের লড়াই, বৈঠকে কমিশনারদের কড়া বক্তব্য

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২০ | ১৬ মাঘ ১৪২৬

ইসিতে কর্তৃত্বের লড়াই, বৈঠকে কমিশনারদের কড়া বক্তব্য

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ১০:৩৪ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯

ইসিতে কর্তৃত্বের লড়াই, বৈঠকে কমিশনারদের কড়া বক্তব্য

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের ওপর কর্তৃত্ব ও সাম্প্রতিক কর্মচারী নিয়োগ ইস্যুতে একত্রিত হয়ে কড়া বক্তব্য দিলেন চার কমিশনার।

বক্তব্যে তারা আবারও প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও কমিশন সচিবালয়ের সিনিয়র সচিবের কার্যক্রমের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগও তোলেন। এমনকি কমিশন সচিবালয় নির্বাচন কমিশনারগণকে অপমান ও চ্যালেঞ্জ করেছেন এমন গুরুতর অভিযোগও তুলে ধরেন তারা।

আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে অনুষ্ঠিত ইসির ৫৬তম কমিশন সভায় বুধবার এসব ঘটনা ঘটে। বৈঠক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

বৈঠক শেষে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের (নির্বাচন কমিশনারদের) কিছু বক্তব্য কমিশন সভায় তুলে ধরেছি। আমরা পরে আবার বসবো।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বিকেল ৩টায় সিইসির সভাপতিত্বে কমিশন সভা শুরু হয়ে চলে সোয়া ৫টা পর্যন্ত। দুই ঘন্টার বেশি সময় ধরে চলা এ বৈঠকের এক ঘন্টার বেশি সময় ধরে বক্তব্য দেন চার কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, কবিতা খানম, মো. রফিকুল ইসলাম ও মাহবুব তালুকদার।

সূত্র জানায়, চার নির্বাচন কমিশনারের বক্তব্যের পর প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) তাদের উদ্দেশে বলেন, এসব বিষয় নিয়ে আমরা (কমিশনাররা) নিজেরা আলাপ করবো। এখন এজেন্ডাভিত্তিক আলোচনা করুন। পরে কমিশন সভার পাঁচ এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা হয়।

এর আগে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে ৩৩৯জন কর্মচারি নিয়োগে অনিয়মের বিষয়ে জানতে চেয়ে চারজন নির্বাচন কমিশনার সিইসি বরাবর ইউনোট দেন। ওই ইউনোটে তারা কমিশনের এখতিয়ার ও কর্তৃত্ব নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। পরে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক প্রেস ব্রিফিং করেন।

ওই ব্রিফিংয়ের পরই ইসির সিনিয়র সচিবও সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, নিয়োগ প্রক্রিয়ায় কোনো অনিয়ম হয়নি এবং নিয়োগ কার্যক্রম কমিশনারের এখতিয়ারভুক্ত নয়। পরে ৯ ডিসেম্বর ইউনোটের জবাব কমিশনারদের দেয়া হয়। ওই জবাবে কমিশনের একজন কর্মকর্তা স্বাক্ষর করেন।

এ বিষয়টি নিয়ে বুধবার কমিশন সভায় ক্ষুব্ধ বক্তব্য রাখেন চার কমিশনার।

আজকের সভায় একজন কমিশনার তার বক্তব্যে বলেন, নিয়োগ নিয়ে আমার এক ইউও নোটের (আনঅফিসিয়াল নোট) উত্তরে কমিশন সচিবালয় থেকে যে উত্তর দেয়া হয়েছে তা নির্বাচন কমিশনারগণের চরিত্র হননের অপচেষ্টা মাত্র। গত ৯ ডিসেম্বরের চিঠিতে আমাদের জানানো হয়েছে, নির্বাচন কমিশনারদের সুপারিশকৃত কয়েকজন পরীক্ষার্থী মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণকালে প্রক্সি পরিক্ষার্থী হিসেবে ধরা পড়েন। বিষয়টি তাৎক্ষনিকভাবে একান্ত সচিবগণকে মৌখিকভাবে জানানো হয়। ওই পরিক্ষার্থীদের বহিষ্কার করা হয় এবং মৌখিক পরীক্ষায় অকৃতকার্য দেখানো হয়।

এ প্রসঙ্গে ওই কমিশনার সভায় বলেন, চিঠির এ উত্তর নির্বাচন কমিশনারদের প্রতি অপমানজনক। ইসির একজন যুগ্মসচিবের অনুরোধে আমি যুগ্মসচিবকে (প্রশাসন) একটি রোল নম্বর প্রদান করেছিলাম। সিকিউরিটি গার্ড পদের ওই প্রার্থীকে লিখিত পরীক্ষা দিতে হয়নি, কোনো পর্যায়ে বহিষ্কার করা হয়নি। নৈর্বত্তিক পরীক্ষায় পাস করায় তাকে ভাইভায় ডাকা হয় এবং প্রার্থী ভাইভা পরীক্ষা দেন। তাকে পরীক্ষায় অকৃতকার্য দেখানো হয়। এ বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে আমার একান্ত সচিবকে জানানো হয়েছে বলে সচিবালয়ের চিঠিতে যে দাবি করা হয়েছে তা মিথ্যাচারমাত্র।

ওই কমিশনার আরও বলেন, চিঠিতে নির্বাচন কমিশনারদের সুপারিশকৃত প্রার্থীরা নির্বাচিত না হওয়ায় তাদের পক্ষ থেকে বিভিন্ন প্রকার প্রশ্ন উত্থাপিত হয়- সচিবালয়ের এই বক্তব্য নির্বাচন কমিশনারদের অপমান করা এবং নির্বাচন কমিশনের কর্তৃত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ ও চ্যালেঞ্জ করার সামিল।

সভায় কমিশনার বলেন, এক বছরের অধিককাল আগের এক নির্দেশ যথাযথভাবে পরিপালিত না হওয়ায় যৌক্তিকভাবেই আমি কমিশন সচিবালয়ে স্বেচ্ছাচারিতা চলে আসছে বলে উল্লেখ করেছি। কিন্তু গত ২৫ নভেম্বর সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব কমিশনের অনুমোদন ব্যাতিরেকে কোনো কর্তৃত্ববলে প্রেস কনফারেন্স করে নির্বাচন কমিশনারদের প্রতিপক্ষ হিসেবে নিজেকে জাহির করলেন তা বোধগম্য নয়।

এমন অবস্থা চলতে থাকলে দায়িত্ব পালন সম্ভব নয় জানিয়ে এ নির্বাচন কমিশনার বৈঠকে বলেন, নির্বাচন কমিশন ও কমিশন সচিবালয়ের মধ্যে সমন্বয় না থাকলে কোন অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। তবে সচিবালয়ের বর্তমান স্বেচ্ছাচারিতা ও মিথ্যাচারের বিহিত না হলে নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন প্রায় অসম্ভব।

ওই সভায় ইসি সচিবালয়ের চিঠি প্রসঙ্গে আরেক নির্বাচন কমিশনার বলেন, উত্তরপত্রটিতে সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের সরাসরি কমিশনারদের মুখোমুখি করার একটা প্রয়াস পরিলক্ষিত হয়েছে।

তিনি বলেন, কমিশন সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের অনুস্বাক্ষরসহ অত্যন্ত আপত্তিকর ভাষায় যে উত্তর দেয়া হয়েছে তা সকল কমিশনারকে হতবাক করেছে। কেননা উল্লেখিতপত্রে কমিশনারদের প্রদত্ত ইউনোটকে সম্পূর্ণরুপে পাশ কেটে অপ্রাসঙ্গিক কিছু বিষয়ের অবতারণা করা হয়েছে।

নিয়োগ প্রসঙ্গে এ কমিশনার বলেন, নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয় যথাযথ নিয়ম অনুসরণ না করার বিষয়টি আড়াল করে নির্বাচন কমিশনারদের হেয় করার প্রয়াসমাত্র- যা মোটেই কাঙ্ক্ষিত নয়। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের ভাবমূর্তি নষ্ট হলে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক সকল কর্মকাণ্ড প্রশ্নবিদ্ধ হবে।

শেষ বক্তব্যে এ কমিশনার বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কমিশনের সভাপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছেন। নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। সাংবিধানিক এই প্রতিষ্ঠানটি সব সময় সংবিধানসহ বিদ্যমান সকল আইন ও বিধি অনুযায়ী পরিচালিত হবে এটাই কাম্য। সিইসি সকল নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখে বিদ্যমান সকল আইন অনুসরণ করে কমিশনকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন- এমন প্রত্যাশা করেন এ কমিশনার।

একইভাবে আরও দুই নির্বাচন কমিশনারও সচিবালয়ের কাজ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন বলেও জানা গেছে।

ইসি সচিবের যা বক্তব্য

কমিশন সভার পর আলোচনার বিষয়ে ব্রিফ করেন ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। তবে বৈঠকে কমিশনারদের বক্তব্যের বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়ে তিনি বলেন, বৈঠকের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে কথা বলার সুযোগ নেই। এটা একেবারেই গোপনীয় বিষয়, ইন্টারনাল বিষয়।

কমিশনে বিভেদ আছে কী না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কাজ করতে গেলে অনেক বিষয়ে দ্বিমত থাকতে পারে। তবে আপনারা যদি এটাকে ইসির মধ্যে বিভক্তি হয়েছে বলতে চান, তাহলে বলবো এ ধরনের কিছু হয়নি। কমিশনের সব কাজ সুষ্ঠুভাবে চলছে। বলতে পারেন মতপার্থক্য আছে কিন্তু বিভক্তি নেই।

একজন কর্মকর্তাকে দিয়ে কমিশনারদের প্রশ্নের জবাব দেয়ার বিষয়ে সচিব বলেন, নিয়োগ কমিটির সভাপতি এ বিষয়টি নিয়ে কাজ করেছেন। আমি তো নিয়োগ কমিটির কেউ না। তারা কাজ করে ফাইল দিয়েছে, সেখানে সবকিছু উল্লেখ করা আছে। আমি শুধু স্বাক্ষর করেছি।

২০০৯ সালের নিয়োগ বিধি মেনে কাজ করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সভায় কমিশনারদের কেউ কেউ দায়িত্ব ছাড়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন কী না- এমন প্রশ্নে সচিব বলেন, এটা কমিশন সভার ইন্টারনাল ও গোপনীয় বিষয়। এটা নিয়ে কিছু বলা যাবে না।

সিইসি ও কমিশনারদের মধ্যকার দূরত্বে সচিব হিসেবে বিব্রত কী না- এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, সচিব হিসেবে বিব্রত হওয়ার সুযোগ নেই। আইন কানুন, রুলস রেগুলেশন অনুযায়ী আমি ও আমার কর্মকর্তারা কাজ করি। এখানে বিব্রত বা দ্বন্দ্বের সুযোগ নেই।

এইচকে/এইচআর

 

জাতীয়: আরও পড়ুন

আরও