যাত্রীদের ৮ ঘণ্টা বসিয়ে রেখে যায়নি বিমানের সেই ফ্লাইট

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ | ১ শ্রাবণ ১৪২৫

যাত্রীদের ৮ ঘণ্টা বসিয়ে রেখে যায়নি বিমানের সেই ফ্লাইট

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১০:০৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ২০, ২০১৮

print
যাত্রীদের ৮ ঘণ্টা বসিয়ে রেখে যায়নি বিমানের সেই ফ্লাইট

সৈয়দপুর যাওয়ার সময় যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে মাঝপথ থেকে ফিরে আসা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটটি শেষ পর্যন্ত বাতিল করা হয়েছে। তিন দফা আশ্বাসে আট ঘণ্টা বসিয়ে রেখে ফ্লাইট বাতিল করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন যাত্রীরা।

জানা গেছে, ঢাকা থেকে সৈয়দপুরের উদ্দেশে ১২টা ২৮ মিনিটে ছেড়ে যায় বিমানের ফ্লাইট বিজি-৪৯৩। পরবর্তীতে উড়োজাহাজটিতে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দিলে ১২টা ৪৪ মিনিটে সৈয়দপুরে না গিয়ে শাহজালাল বিমানবন্দরে ফিরে আসে। ফ্লাইটে ৬৭ জন যাত্রী ছিলেন।

বিমানবন্দরের একটি সূত্রে জানা গেছে, ইঞ্জিনে প্রেসারজনিত সমস্যা দেখা দিয়েছিল। যার কারণে ফ্লাইটি ফিরে আসে। পরবর্তীতে যাত্রীদের সন্ধ্যা ৬টায় দিকে নিয়ে যেতে চায়। কিন্তু সেটাও দেরি করে সাড়ে ৭টার দিকে রওনা দেয়ার কথা ছিল।

তখন সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে ‘এতো রাতে ফ্লাইট যেতে নিষেধ’ করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে সৈয়দপুর বিমানবন্দর অনুমতি দিলেও ততক্ষণে যাত্রীরা বিমান থেকে নেমে যান।

এদিকে দুপুর পৌনে ১টা থেকে যাত্রীদের তিন দফায় সময় দিয়ে আট ঘণ্টা বসিয়ে রেখে ফ্লাইট বাতিল করায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন যাত্রীরা। এমনকি ফ্লাইট নিয়ে সংবাদমাধ্যমকেও নানা ধরনের বিভ্রান্তিকর তথ্য দেন বিমান কর্মকর্তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যাত্রী পরিবর্তন ডটকমককে বলেন, ‘দুপুর ১২টার সময় আমাদেরকে ফ্লাইটে তুলে মাঝপথ থেকে ফিরিয়ে এনেছে, এরপর ২টার দিকে ফ্লাইট যাওয়ার কথা বলে।’

‘একইভাবে সন্ধ্যা ৬টায় ফ্লাইট যাওয়ার কথা, কিন্তু তখনো না গিয়ে সাড়ে ৭টায় আবার আমাদেরকে ফ্লাইটে উঠতে বলে। পরে আমরা রেডি হেয়ে উঠার পরে বলে আজকের ফ্লাইট বাতিল হয়েছে’ যোগ করেন তিনি।

ক্ষোভ প্রকাশ করে ওই যাত্রী বলেন, ‘এটা কো ধরনের আচরণ? সারাদিন আশা দিয়ে দিনশেষে এমন কথা শুনতে হলো। আমরা এটা নিয়ে বিমানের বিরুদ্ধে সিভিল এভিয়েশনের কাছে অভিযোগ দেব।

এদিকে ফ্লাইট বাতিল করার পর থেকে ক্ষুব্ধ যাত্রীরা বিমানের কর্মকর্তাদের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন বলেও জানা গেছে।

জানতে চাইলে শাহজালাল বিমানবন্দরের এটিসি কর্মকর্তা ওয়াহিদুর রহমান পরিবর্তন ডটকমককে বলেন, ‘আমাদের দুপুর থেকে বিমানের এই ফ্লাইটি নিয়ে খুব ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে। তাদের পক্ষ থেকে একেক সময় একেক রকম বার্তা দেয়া হচ্ছে। মোদ্দাকথা হচ্ছে- তাদের উড়োজাহাজে সমস্যা, যার কারণে সব উল্টা-পাল্টা করছে। একটু আগে শুনলাম তারা ফ্লাইট বাতিল করেছে।’

বিমান জেলা ম্যনেজার (সৈয়দপুর) আবু আহমেদ পরিবর্তন ডটকমককে বলেন, ‘রাত হয়ে যাওয়ার কারণে সৈয়দপুর সিভিল এভিয়েশন অনুমতি দিচ্ছিল না। পরবর্তীতে তাদেরকে অনুরোধ করায় তারা আমাদের ফ্লাইট পরিচালনার কথা বলে।

তিনি বলেন, ‘বিষয়টি ঢাকা অফিসকে জানিয়েছি। কিন্তু তার আগেই কর্তৃপক্ষ যাত্রীদেরকে বলে দিয়েছে- সৈয়দপুর অনুমতি দিচ্ছে না। ফলে উড়োজাহাজ থেকে যাত্রীরা সব নেমে যায়। এখন ঢাকা অফিস সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এ ব্যাপারে আমি কিছু জানি না।’

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ পরিবর্তন ডটকমকে রাত ৯টার দিকে বলেন, ‘প্রথমে উড়োজাহাজে সমস্যা হওয়ার কারণে একটু সময় নিয়ে আমরা মেরামত করি। বিকাল থেকে আমরা ফ্লাইট পরিচালনার জন্য প্রস্তুত ছিলাম।’

‘কিন্তু তখন ঢাকায় রানওয়ে ক্লিয়ার ছিল না। আবার যখন ঢাকায় রানওয়ে ক্লিয়ার হয়েছে, তখন সৈয়দপুর বলছে- রানওয়ে ক্লিয়ার না। যার কারণে আমরা ফ্লাইটটি বাতিল করতে বাধ্য হয়েছি। তবে যাত্রীদের টাকা ফেরত দেয়া হবে’ যোগ করেন তিনি।

টিএটি/এমএসআই

 
.



আলোচিত সংবাদ