ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনো রোহিঙ্গাকে ফেরত নয়: শাহরিয়ার

ঢাকা, রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮ | ১০ আষাঢ় ১৪২৫

ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনো রোহিঙ্গাকে ফেরত নয়: শাহরিয়ার

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৮:২৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৮

print
ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনো রোহিঙ্গাকে ফেরত নয়: শাহরিয়ার

ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোনো রোহিঙ্গাকে ফেরত পাঠানো হবে না বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। বাংলাদেশের প্রাথমিক লক্ষ্য হচ্ছে- রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায় নিরাপদ এবং টেকসই প্রত্যাবাসন।
রোববার রাজধানীর স্পেক্ট্রা কনভেনশন সেন্টারে ‘আশঙ্কিত শৈশব: বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শিশুদের ৬ মাস’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যার মূল মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে। আর এর সমাধানও সেখানেই খুঁজতে হবে। বাংলাদেশ অযৌক্তিকভাবে এর ভার বহন করছে। এখন পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আসা বন্ধ হয়নি।

রোহিঙ্গা শিশুদের নিয়ে শাহরিয়ার আলম বলেন, বাংলাদেশ শিশুদের বিষয়ে বেশ মনোযোগী। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় শিশুদের নিয়ে কনভেনশন করার আগে ১৯৭৪ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সময়ে শিশু আইন প্রণয়ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের ২৮ শতাংশ শিশু, যাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে। এসব শিশুর মধ্যে ২৬ হাজার তাদের বাবা অথবা মাকে হারিয়েছে। আর প্রায় ৭ হাজার শিশু তাদের মা-বাবা দুজনকেই হারিয়েছে। এসব শিশুর মধ্যে অনেকেই মিয়ানমার সেনাবাহিনীর হত্যাযজ্ঞের সাক্ষী এবং তারা মানসিকভাবে খুবই আঘাতপ্রাপ্ত।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ কোনভাবেই কারো ইচ্ছার বিরুদ্ধে কাউকে প্রত্যাবাসন করবে না। আর বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আহ্বান জানায় যে, রোহিঙ্গা ইস্যু থেকে তারা যেন সরে না যান। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মিয়ানমারের উপর চাপ অব্যাহত রাখতে হবে।

তিনি আরও বলেন, মিয়ানমার যাতে প্রত্যাবাসন নিয়ে তার প্রতিশ্রুতি ও বাধ্যবাধকতাগুলো পূরণ করে এবং রোহিঙ্গাদের জীবিকা, নিরাপত্তা, আত্মমর্যাদা নিয়ে বসবাসের পরিবেশ তৈরি করে সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

অনুষ্ঠানে গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন সেভ দ্য চিলড্রেন-এর প্রোগ্রাম ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কোয়ালিটির পরিচালক রিফাত বিন ছাত্তার।

প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা নির্যাতিত রোহিঙ্গা শিশুদের বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরা হয়। এর সঙ্গে প্রতিবেদনের মাধ্যমে গত ছয় মাস ধরে শরণার্থী ক্যাম্পে অবস্থানরত রোহিঙ্গা শিশুদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত, নিরাপত্তাঝুঁকি কমানো, শিক্ষার ব্যবস্থাসহ বেশ কিছু সুপারিশ সরকারের কাছে তুলে ধরা হয়।

এএম/এমএসআই

 
.




আলোচিত সংবাদ