খালেদা-তারেক’র দণ্ডকে `মিথ্যা’ ও `সাজানো’ দাবিতে নিন্দা-প্রতিবাদ

ঢাকা, সোমবার, ২৫ জুন ২০১৮ | ১১ আষাঢ় ১৪২৫

খালেদা-তারেক’র দণ্ডকে `মিথ্যা’ ও `সাজানো’ দাবিতে নিন্দা-প্রতিবাদ

বিশেষ প্রতিনিধি ১:৪৪ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০১৮

print
খালেদা-তারেক’র দণ্ডকে `মিথ্যা’ ও `সাজানো’ দাবিতে নিন্দা-প্রতিবাদ

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলাকে ‘মিথ্যা’ ও রায়কে ‘সাজানো’ দাবি করে এর বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে প্রবাসী বিএনপির নেতৃবৃন্দ। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি প্রবাসী শাখার নেতৃবৃন্দ এক যৌথ বিবৃতিতে এ নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। 

ড. শাকিরুল ইসলাম খান শাকিল :

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাকিরুল ইসলাম খান শাকিল বলেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার সাজানো রায়ের বিরুদ্ধে দেশে বিদেশে গণঅভ্যুথান গড়ে তুলতে হবে। যা সরকারের পতন ঘটিয়ে শেষ হবে ।

শাকিল বলেন, ‘আমার নেত্রী আমার মা’, সারা দেশের মানুষ আজকে এই শ্লোগানকে বুকে ধারন করেছে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার মিথ্যা রায় কোন  দেশপ্রেমিক জনতা কখনো মেনে নিবে না।

তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে আরো বলেন, দেশের পরিস্থিতি ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিবেন না। মনে রাখতে হবে বেগম খালেদা জিয়া শুধু একটি দলের প্রধানই নয়, দেশ বিরোধী হাসিনার রোষানলের শিকার সারা দেশের আপামর জনতার অভিভাবকও বটে।

শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, বুজেসুজে অগ্রসর হবেন। অতীতকে স্মরন করবেন, আপনার মত হিংস্রদের পরিনতি অতীতে কি ঘটেছিল।

আহমদ আলী মুকিব:

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সৌদিআরব বিএনপির সভাপতি আহমেদ আলী মুকিব বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে অন্যায় রায় দেওয়া হয়েছে। জনগণ  ঘরে বসে থাকবে না। এদেশের জনগণ জেগে উঠবে এবং তারা দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করবে।

মুকিব হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, শুরু হবে সরকার পতনের আন্দোলন। সেই আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের পতন নিশ্চিত করে নির্বাচনকালীন সরকার প্রতিষ্ঠা করে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে জনগণের সরকার গঠন করা হবে।’

আহমদ সাজা:

বেলজিয়াম বিএনপির সভাপতি আহমদ সাজা বলেন বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের আকাশচুম্বি জনপ্রিয়তাকে ভয় পেয়েই অবৈধ সরকার মিথ্যা মামলা দিয়ে, সাজানো রায় দিয়ে রাজনীতি থেকে দুরে রাখতে চায়। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে এই মামলা ও রায় সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত এবং যার কোনো ভিত্তি নেই।

ইকবাল হোসেন বাবু:

বেলজিয়াম বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন বাবু বলেন, এ রায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলক। অনির্বাচিত সরকার সাংবিধানিক সকল প্রথা ও প্রতিষ্ঠানকে একে একে ধ্বংস করেছে। গণতন্ত্র, মানবাধিকার, আইনের শাসন, সামাজিক ন্যায়বিচার কিছুই এখন আর অবশিষ্ট নেই। মানুষের শেষ ভরসাস্থল বিচারবিভাগকেও তারা ধ্বংস করে সংকীর্ণ রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্য ব্যবহার করে যাচ্ছে।

বাবু আরো বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে এ রায় বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়, এটি পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের অংশ। ষড়যন্ত্র করে বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজানো মামলায় মিথ্যা রায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ছাড়া আর কিছুই নয়।

বাবু দেশে বিদেশে সকলকে এই ষড়যন্ত্র মুলক মিথ্যা রায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান।

আলম হোসেন:

বেলজিয়াম বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মো. আলম হোসেন বলেন, দেশে আজ কোন ন্যায় বিচার নেই। সরকার গুম, খুন এবং মিথ্যা মামলার মাধ্যমে বিএনপিকে রাজনীতি থেকে সরানোর ষড়যন্ত্র করছে। আওয়ামীলীগ, যুবলীগ এবং ছাত্রলীগের সন্ত্রাসে দেশের সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ ।

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এবং সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ সকল নেতাকর্মীর উপর মিথ্যা মামলার সাজানো রায় বাতিল করে সুস্থ ধারার রাজধানীতে ফিরে আসতে শেখ হাসিনাকে আহবান জানান তিনি।

 এম এ মালেক:

যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেক বলেন, ‘দেশে দুঃসময় ও ক্রান্তিকাল চলছে। সমগ্র বাংলাদেশ আজ শেখ হাসিনার বৃহৎ কারাগারে পরিণত। এ কারাগার থেকে দেশের মানুষ মুক্তি চায়। সেই মুক্তির দায়দায়িত্ব যখন বিএনপিকেই নিতে হচ্ছে, ঠিক তখন ক্ষমতাসীনরা জাতীয়তাবাদী দলকে দাবিয়ে রাখতে তাদের কণ্ঠরোধ করতে উঠেপড়ে লেগেছে। কেননা তারা (সরকার) ভালো করে জানে জনগণ একবার ভোট দেয়ার সুযোগ পেলে এ সরকার টিকতে পারবে না।’

বেগম খালেদা জিয়া ব্যতীত একাদশ জাতীয় নির্বাচন হবে না। নির্বাচন হতে দেয়া হবে না বলেও স্পষ্ট করে জানিয়ে দেন তিনি।

কয়ছর এম আহমদ:

যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমেদ বলেন,  আওয়ামী লীগকে আর কোনও ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পুনরাবৃত্তির সুযোগ দেয়া হবে না। আপোসহীন দেশনেত্রী খালেদা জিয়া ও বিএনপিকে মাইনাস করে দেশে যে কোনও নির্বাচন কঠোরভাবে প্রতিহত করা হবে।

 হামিদুল নাসির:

আয়ারল্যান্ড বিএনপির সভাপতি হামিদুল নাসির বলেন, বর্তমান অবৈধ আওয়ামী সরকার দেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে। এখন বাংলাদেশের গণতন্ত্রের অতন্দ্রপ্রহরী যার নেতৃত্বে দেশে গণতন্ত্র রক্ষার আন্দোলন-সংগ্রাম চলছে, আপোসহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মামলা-হামলা ও হয়রানি করে অবৈধ আওয়ামী সরকার আবারও ক্ষমতা দখলে রাখতে চায়। যা বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ মেনে নেবে না।

নাসির বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মানে হচ্ছে বাংলাদেশ। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজানো মামলার মিথ্যা রায়ের বিরুদ্ধে বহির্বিশ্বে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

দেশে বিদেশে আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান বেলজিয়াম বিএনপির

বিএনপির চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট  মামলার রায়ের প্রতিবাদে তাৎক্ষনিক  বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সভা করেছে বেলজিয়াম শাখা বিএনপি। বৃহস্পতিবার ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদর দফতর ব্রাসেলসে এ বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সভা করে তারা।

বিএনপির বেলজিয়াম শাখার সভাপতি আহমেদ সাজার সভাপতিত্ব ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন বাবুর পরিচালনায় বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সভার শুরুতে নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্য বলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন দেশনায়ক জনাব তারেক রহমানের নেতৃত্ব দল আজ ইস্পাত কঠিন ঐক্যবদ্ধ। তার নেতৃত্বে আন্দোলের মাধ্যমে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে বাংলাদেশের গনতন্ত্র ফিরিয়ে এনে শেখ হাসিনার দুঃশাসন থেকে দেশের মানুষকে মুক্ত করব ইনশাল্লাহ।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন বেলজিয়াম বিএনপির সহ-সভাপতি যথাক্রমে হাসান রাকিব প্রধান সহসভাপতি আবু বক্কর ও কবির আহমদ সাংগঠনিক সম্পাদক আলী নুর শামীম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক যথাক্রমে হারুন অর রশিদ, আশিক আহমদ বাপ্পী,  তাহশিক হক ওসমান, জসিম মোল্লা, হাসান লিটন ও আবু সাঈদ, অর্থ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, দফতর সম্পাদক ফখরুল ইসলাম পাপন, সহ-দপ্তর সম্পাদক মাহমুদুল হাসান মমো, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা মাকসুদা সালাম মলি,  সহ-সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী, যুবদলের আহ্বায়ক কাজী রহিমুল বাবু, যুগ্ম আহ্বায়ক যথাক্রমে সাইফ উদ্দিন ইরানী, সাখাওয়াত হোসেন রাফি, ইসমাইল হোসেন ফরহাদ, মাছুম যুবদল নেতা হারুন শহিদুল সেচ্ছাসেবক দল নেতা কাজী এমদাদুল হক দিপু প্রমুখ।

এআরপি/এএফ

 
.




আলোচিত সংবাদ