যশোরে মানবপাচার মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭ | ৮ কার্তিক ১৪২৪

যশোরে মানবপাচার মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

যশোর প্রতিনিধি ৩:৫৬ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২১, ২০১৭

print
যশোরে মানবপাচার মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

যশোরে মানবপাচার মামলায় আলমগীর হোসেন আলম নামে এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সাজাপ্রাপ্ত আলমগীর মণিরামপুরের ভবনীপুর গ্রামের আকবার আলী সরদারের ছেলে। বৃহস্পতিবার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) অমিত কুমার দে এই আদেশ দেন। এই মামলায় অপর দুই আসামিকে খালাস দিয়েছে আদালত। রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলী ইদ্রিস আলী।

মামলার এজহার সূত্রে জানা গেছে, আসামি আলমগীর হোসেন যশোর শহরের থেকে রিকশা-ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করত। তিনি মানবপাচার চক্রের সক্রিয় সদস্য। ২০০৬ সালের ৩১ মে যশোর সদর উপজেলার পাগলাদহ গ্রামের ঘটক কাওছার ও নুরপুর গ্রামের ঘটক আব্দুল মান্নান পাগলাদহ গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ভাগ্নির সাথে আলমগীর হোসেনের বিয়ের প্রস্তাব দেয়। তাদের প্রস্তাবে রাজি হওয়ায় আলমগীর তার পাতানো মা-বাবাকে সাথে নিয়ে ওইদিন সন্ধ্যায় বিয়ে করতে যায়। রাতে আলমগীরের সাথে সাত্তারের ভাগ্নির বিয়ে হয়।

পরদিন সন্ধ্যায় আলমগীরসহ অন্যরা বৌ নিয়ে শহরের ভাড়া বাড়িতে ওঠে। ৩ জুন সকালে আলমগীর স্ত্রীসহ খুলনা থেকে ঢাকাগামী বাসের টিকিট কাটেন। এ সময় পরিবহনের চেকার পাগলাদহ গ্রামের ডাবলু ওই মেয়েকে দেখে সন্দেহ হলে তাদের আটকিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে স্বীকারে সে তার স্ত্রীকে বিক্রির জন্য ঢাকায় যাচ্ছে।

এরআগেও আলমগীর দুটি বিয়ে করে স্ত্রীদের ঢাকায় এনে বিক্রি করে দেন। পরে তাকে কোতয়ালি থানায় সোপর্দ করা হয়। এব্যাপারে আব্দুস সাত্তার বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে মানবপাচার আইনে একটি মামলা করেন। আসামিরা হলেন- আলমগীর হোসেন, দুই ঘটক কাওছার ও আব্দুল মান্নান।

এ মামলার তদন্ত শেষে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়ায় ওই তিনজনকে অভিযুক্ত আদালতে চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মিজানুল হক। এ মামলার দীর্ঘ স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি আলমগীর হোসেনর বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক তাকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় কাওছার ও আব্দুল মান্নানকে খালাস দিয়েছেন আদালত। সাজাপ্রাপ্ত আলমগীর হোসেন আলম জামিনে মুক্তি পেয়ে পলাতক রয়েছে।

আইআর/এএস

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad