প্রয়োজনগুলো আল্লাহর কাছে চেয়ে নিন
Back to Top

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ এপ্রিল ২০২০ | ২৪ চৈত্র ১৪২৬

প্রয়োজনগুলো আল্লাহর কাছে চেয়ে নিন

উস্তাদ ইসমাঈল কামদার ৪:৪৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৪, ২০১৯

প্রয়োজনগুলো আল্লাহর কাছে চেয়ে নিন

‘বরকত’ আমাদের প্রতি মুহুর্তের সময়ে কেন এতো দরকার আর কেনইবা এর জন্য খুব বেশী দুআর প্রয়োজন তা প্রতিটি মুমিনেরই জানা। কারণ একজন একনিষ্ঠ মুমিন দুআতেই প্রশান্তি খুঁজে পায়। যেহেতু সবকিছু আল্লাহর নিয়ন্ত্রণে, তাই সবকিছুতেই সাহায্যের জন্য আমাদের আল্লাহর কাছে দুআ করতে হবে, তাঁর কাছে চাইতে হবে।

আল্লাহর কাছে চেয়ে নিন তিনি যেনো আপনার লক্ষ্য পূরণে সাহায্য করেন। আল্লাহর কাছে চেয়ে নিন তিনি আপনার লক্ষ্য অর্জনে যা যা পুঁজি দরকার তা যেনো পাঠিয়ে দেন।

আর আল্লাহর কাছেই ফিরে আসুন। তিনি আপনার সব চাওয়া পাওয়ায় রূপান্তরিত করে দেবেন, ইনশাআল্লাহ। এজন্য আমরা কিছু কর্মসূচী ঠিক করতে পারি । যেমনঃ

১। আপনি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য যা যা লক্ষ্য অর্জন করতে চান তার একটি তালিকা করে নিন, এটা আপনাকে ফোকাসড ও নিয়মানুবর্তী করতে সাহায্য করবে। একজন মুসলিম হিসেবে কিছু নীতি কুরআন সুন্নাহতে স্পষ্টভাবে আছে, যা আপনাকে করতেই হবে। আরো কিছু নীতি আপনার সাফল্যের জন্য খুব জরুরী। যেমন- সততা, স্বচ্ছতা, সত্যবাদীতা, নিজেকে নিয়ন্ত্রণ, দায়িত্ববোধ, শ্রদ্ধাবোধ ইত্যাদি অর্জনে সদা তৎপর থাকা উচিৎ।

২। যখন আপনি প্রতিদিনের কর্মতালিকা সাজাবেন প্রথমেই আপনার নামাযের সময়গুলোকে আন্ডার লাইন করে সুন্দর একটি নিয়ত করবেন। একজন মুসলিমের জন্য যতো ব্যস্ততাই আসুক, নামাযকে ছাড় দেয়ার কোনো সুযোগ নেই। এটা এমন এক মৌলিক ইবাদত যাড় উপরে আমরা কোনোভাবেই অন্য কিছুকে প্রাধান্য দিতে পারবো না। যদি খাওয়া, ঘুমও ছাড় দেই তবুও নামায ছাড় দিতে পারবো না। যখন আমরা পাঁচ বার নামাযের জন্য আমাদের গুছিয়ে নিবো এবং একটা অভ্যাসের সাথে অভ্যস্ত হয়ে যাবো, তখন এটা খুব সহজ মনে হবে।

আর নামায ছাড়া যতোই বরকত এর দুআ করা হোক না কেন, এটা কখনোই পাওয়া যাবে না। প্রথমে দিনে পাঁচবার আল্লাহর কাছে হাজিরা দিয়ে সম্পর্ক গড়ে নিন, এরপর যা খুশি চেয়ে নিন আপনার রবের কাছে। 

৩। কিছু সময় আপনার কিছু গুণের কথা ভেবে একটা তালিকা করুন কীভাবে আপনি উম্মাহর কল্যাণে কাজে লাগতে পারেন? নিজের ভেতর খুঁজে নিন কি কি গুণ ও উপহার আপনার আছে। যৌক্তিক স্বপ্ন দেখুন। স্বপ্নের সাথে স্রষ্টাপ্রদত্ত গুণ ও যোগ্যতাগুলোর সমন্বয় ঘটিয়ে লক্ষ্য নির্ধারণ করে কাজে লেগে যান।

৪। স্মার্ট ( SMART) নীতি অবলম্বন করুন। যেকোনো বড় কাজকে খন্ড খন্ড করে নিন। সুনিদির্ষ্ট পরিকল্পনা অনুযায়ী এগিয়ে যান।

এমএফ/

 

ইসলাম: আরও পড়ুন

আরও