বাণিজ্য মেলায় মধুর স্টলে জমজমাট বিকিকিনি

ঢাকা, রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮ | ৪ ভাদ্র ১৪২৫

বাণিজ্য মেলায় মধুর স্টলে জমজমাট বিকিকিনি

কামরুল হিরন ১০:৪৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০১৮

বাণিজ্য মেলায় মধুর স্টলে জমজমাট বিকিকিনি

মধুর মধ্যে ১৮১ প্রকার খাদ্য উপাদান রয়েছে, যা রোগ প্রতিরোধে সহায়ক। এছাড়া খাবার পরিপাক ও রুচি বাড়াতেও সহায়তা করে মধু। আমাদের দেশে শীতকালে মানুষের মধু খাওয়ার প্রবণতা বেড়ে যায়। তাই মধুর টানে ছুটছে তারা বাণিজ্য মেলার ট্রপিকা হানি স্টলটিতে।

মেলা প্রাঙ্গণের বিভিন্ন স্টলে অন্যান্য জিনিসের পাশাপাশি মধু পাওয়া গেলেও এই স্টলটিতে শুধু মধুই বিক্রি হচ্ছে। আর ক্রেতারাও হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন এখানে। কারণ মধু কিনলে লটারির মাধ্যমে নগদ টাকা ফেরতসহ দেয়া হচ্ছে নানা অফার।

কথায় হয় ক্রেতা ফারজানা আলমের সঙ্গে। তিনি বললেন, শীত এলে পরিবারের সবাই নিয়মিত মধু খেতে অভ্যস্ত। কারণ প্রাকৃতিক খাদ্য উপাদান হওয়ায় মধুর অনেক গুণ আছে, এটি আমার মা শিখিয়েছিলেন। সেই থেকে আমিও খাই, এখন বাচ্চাদেরও খাওয়াই।

মেলায় ঘুরতে এসে স্টলটি চোখে পড়ায় ১ কেজি মধু কিনলাম ৮৫০ টাকায়। যেহতু এটি একটি ব্র্যান্ড তাই খাঁটি হবে বলেই মনে হচ্ছে, যোগ করেন ফারজানা।

প্রচলিত আছে, রাতে ঘুমাবার আগে হালকা গরম পানিতে ১ চামচ মধু মিশিয়ে পান করলে শরীরের চর্বি আর অম্ল সমস্যা কমে যায়।

কিন্তু শীতের সঙ্গে মধুর কী সম্পর্ক- জানতে চাইলে ট্রপিকা হানি’র বিক্রয় ব্যবস্থাপক আবদুর রউফ বললেন, শীতের সঙ্গে মধুর বিশেষ কোনো সম্পর্ক নেই, সারা বছরই মধু খাওয়া যায়।

তিনি বলেন, আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে গরমে মধু কম খেতে হয়, যা একটি ভ্রান্ত ধারণা। কারণ, আরব দেশে সবসময় গরম থাকে কিন্তু স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে তারা সারা বছরই যথেষ্ঠ পরিমাণে মধু খায়।

প্রতি কেজি ৫৫০ থেকে শুরু করে ৮৫০ টাকায় ৪ রকমের মধু বিক্রি হচ্ছে এই স্টলে। যার মধ্যে রয়েছে, সরিষা ফুল, কালোজিরা, লিচু ফুল এবং বিভিন্ন ফুলের সংমিশ্রণ থেকে মৌমাছি আরোহিত মধু। প্রতিদিন গড়ে ৩০ হাজার টাকার মধু বিক্রি হচ্ছে এখানে।

রউফ বলেন, ষড়ঋতুর এই দেশে সারা বছর অনেক ধরনের ফুল ফোটে। তবে এসবের মধ্যে সরিষা, লিচু, ধনিয়া, কালোজিরা এবং সুন্দরবন থেকে স্বাস্থ্যসম্মত  উপায়ে আমরা উৎকৃষ্ট মানের মধু উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাত  করি।

‘আমাদের লক্ষ্য মধুর সকল গুণাগুণ ঠিক রেখে উন্নতমানের পণ্য ক্রেতাদের হাতে পৌঁছে দেয়া’ যোগ করেন তিনি।

কেএইচ/এমএসআই