ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে যা হয় হোক!

ঢাকা, সোমবার, ২৬ জুন ২০১৭ | ১২ আষাঢ় ১৪২৪

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১৭

ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে যা হয় হোক!

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:২৫ পূর্বাহ্ণ, জুন ১০, ২০১৭

print
ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে যা হয় হোক!

ইংল্যান্ডের হাতে এখন বাংলাদেশের ভাগ্য। তারা শনিবারের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে হারালে টাইগাররা প্রথমবারের মতো খেলতে পারবে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমি-ফাইনালে। লাল-সবুজের দলের নতুন ইতিহাস লেখা হবে তাতে। কিন্তু নিউজিল্যান্ডকে অবিশ্বাস্যভাবে হারানোর পর বাংলাদেশ দলের সুরটাই বদলে গেছে। শুক্রবারের ওই বীরোচিত জয়ের পর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ও কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে বলছেন, ইংল্যান্ড ম্যাচে যা হয় হোক। বাংলাদেশ আসলে কোন জাতের দল তা তো প্রমাণিত!

২৬৬ রানের টার্গেট সামনে। ৩৩ রানে নেই ৪ উইকেট। হার নিশ্চিত নাকি? এরপর ২২৪ রানের রেকর্ড গড়া জুটি সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহর। পাল্টে যায় সব। কার্ডিফে ১২ বছর পর আরেকটি অবিশ্বাস্য কীর্তি গড়ে ফেলে টাইগাররা। রূপকথার এই ৫ উইকেটের জয়ে মাশরাফির দলের সেমিতে খেলার আশাটা বেঁচে থাকে। কিন্তু ওই আশা বাঁচিয়ে রাখার চেয়েও এই জয় যে অনেক বড় কিছু সেটাই ধ্বনি-প্রতিধ্বনি তুলছে হাথুরু-মাশরাফির কণ্ঠে। সেখান থেকে গোটা বাংলাদেশ দলে। ছড়িয়ে পড়ছে তা দ্রুত।

শিষ্যদের ছিনেয়ে আনা ওই ঘোর লাগা জয়ের পর হাথুরু টুইট করেছেন, 'কাল (শনিবার, ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে) যাই ঘটুক না কেন, এই জয় ছেলেদের সামনে এগুনোর পথে অবিরাম বিশ্বাস জোগাবে! সাকিব আর রিয়াদ, তোমরা বিউটি!!!'

মানে অস্ট্রেলিয়া যদি বাংলাদেশকে পেছনে ফেলে সেমিতে উঠে যায় তাও আফসোস থাকবে না! টাইগারদের গত আড়াই বছরে বদলে দিয়ে সাফল্যের রথে ছুটিয়ে নেওয়া কোচ হাথুরুর কথার সোজা মানে তো তাই। তেমনটা হলেও এখন খুশি মনেই তার দল দেশের বিমান ধরতে পারবে।

মাশরাফির কণ্ঠে তখনো জয়ের কাঁপনটা খুব বোঝা যাচ্ছে। শুক্রবার কার্ডিফকীর্তির পর যখন শনিবারের ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচের প্রসঙ্গ এলো তখন একজন অধিনায়ক থেকে একজন ভালো স্পোর্টসম্যান ও মানুষ মাশরাফি। যে অন্যের অমঙ্গল কখনোই চায় না। হোক না তাতে নিজের মঙ্গল লুকিয়ে। ইংল্যান্ড জিতলে 'তা তো আমাদের জন্য খুবই দুর্দান্ত হবে' এই কথা বললেন মাশরাফি। কিন্তু এর সাথেই জুড়ে দিলেন, 'তাই বলে অস্ট্রেলিয়া এই ম্যাচে হেরে যাক, কেবল এটাই আশা করতে পারি না আমরা। দুই দলকেই বেস্ট অব লাক বলতে চাই। কারণ, আমাদের যা করার ছিল তা তো আমরা করেছি। এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার।'

তবে সবকিছুর পরও মনের মাঝে তো সেমি-ফাইনালে খেলার স্বপ্নটা। মাশরাফি তাই একটি প্রতিশ্রুতিও রেখে যান শেষ কথায়, 'অবশ্যই আমি সেমিতে খেলতে চাই। আমরা ওখানে খেলতে পারলে শেষ তিন ম্যাচের চেয়ে আরো ভালো ক্রিকেট খেলবো। এখন অপেক্ষায় থাকি।'

মাশরাফির মতো এজবাস্টনে চোখ রেখে তো অপেক্ষায় ষোল কোটি বাংলাদেশিও। ওখানেই যে বিকেল সাড়ে তিনটায় ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ।

ক্যাট

print
 

আলোচিত সংবাদ