এলসা-আনার ম্যাজিক্যাল মিউজিক্যাল ম্যানিয়া
Back to Top

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০ | ১৬ চৈত্র ১৪২৬

এলসা-আনার ম্যাজিক্যাল মিউজিক্যাল ম্যানিয়া

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:১২ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৩, ২০১৯

এলসা-আনার ম্যাজিক্যাল মিউজিক্যাল ম্যানিয়া

বছর ছয়েক আগে ডিজনি যখন প্রথম ‘ফ্রোজেন’ ফ্র্যাঞ্চাইজি এনেছিল, তার পর থেকে দুই বোনের প্রতি দর্শকের আগ্রহ উত্তরোত্তর বেড়েছে। ‘ফ্রোজেন টু’ দেখার পরে সেই ভালবাসার পারদ গগনচুম্বী হলেও অবাক হওয়ার কিছু নেই।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, পরিচালক এ বার শুধু মিউজিক্যাল ম্যাজিক দেখিয়ে ক্ষান্ত হননি। তার সঙ্গে জুড়ে গিয়েছে গল্পের বাঁধুনি, চরিত্রের গভীরতা আর দর্শককে আটকে রাখার মতো আরও অনেক কিছু। সেই কারণে এলসা-আনার গল্প অ্যানিমেটেড হওয়া সত্ত্বেও পরিণত হয়েছে রক্ত-মাংসে।

সময় বয়ে গিয়েছে। বড় হয়েছে এলসা আর আনা। তাই কোনও কিছুতে ঝাঁপিয়ে পড়ার আগে পরিণত এলসা বারকয়েক ভাবে। মা-বাবাকে হারালেও তার জীবন এখন বোন আনা, আদরের ওলাফ ও স্‌ভেন এবং বন্ধু ক্রিস্টফের সাহচর্যে পরিপূর্ণ। তবু তাকে ঘুমোতে দেয় না কোনও এক সম্মোহনী সুর। যে টানে যুগে যুগে ঘর ছাড়াই যেন দস্তুর। সেই সুরের উৎস খোঁজার পাশাপাশি উঠে আসে অতীত।

সে আধারে ডুবে রয়েছে এলসা-আনার দুনিয়া অ্যারেনডালের ভবিষ্যৎ। নিজেদের দুনিয়া বাঁচাতে বেরিয়ে পড়ে এলসা-আনা-ওলাফ-স্‌ভেন-ক্রিস্টফের পুরনো দল। পথে চমৎকার সব কাণ্ড। অসাধারণ ভিসুয়ালে থমকে যেতে হয়। বরফ, জলকণা মিলিয়ে এলসার শক্তি পৌঁছায় ভিন্ন মাত্রাই।

তবে এ ছবি শুধু এলসার নয়। আনা, যার নেই অসাধারণ ক্ষমতা, যে প্রতি পদক্ষেপে হারানোর ভয় পায়, যে একেবারেই আমাদের মতো সাধারণ, ‘ফ্রোজেন টু’ তারও। একটা সময়ে সব কিছু হারিয়ে আনা একা দাঁড়িয়ে থাকে অন্ধকার জগতে। নেই কোনও আশা। আনা তখন শুধু উঠে দাঁড়িয়ে এক পা-এক পা করে হাঁটার কথা ভাবে। তার পরে উঠতে যায় সামনের পাহাড়ে। ধীরে ধীরে খুলে যায় পথ। আনার উত্তরণ কি জীবনেরও পাঠ শেখায় না?

এ ছাড়া আছে ভ্রাতৃত্ববোধের কাহিনি। গল্পের মোড়ক খোলার সঙ্গে সঙ্গে দুই বোনের একে অপরের প্রতি টান, দায়িত্ববোধ, মর্যাদা আর ভালবাসা পৌঁছাই অন্য স্তরে। যা শুধু মনে রাখার নয়, শেখারও। শিকল ভেঙে এগিয়ে আসা, নারীর ক্ষমতায়ন, বন্ধুতার টান আর কঠিনের সামনে দাঁড়িয়ে সত্যের মুখোমুখি হওয়া... দেখানো হয়েছে সব। কিন্তু কোথাও তা আরোপিত নয়। খুদে থেকে শুরু করে ষাটোর্ধ্ব দম্পতিকেও টেনে বসিয়ে রাখে হলে, শুধু মাত্র গল্প বলার বাঁধুনিতে।

আর আছে মিউজিক। যে সুর এলসাকে ডাক দেয়, যে গানে আনা ফিরে পায় এগিয়ে চলার শক্তি, সেই সুর হল থেকে বেরিয়েও গুঞ্জরিত হয় মনে। যোগ্য দোসর ভিএফএক্স ও দৃশ্যায়ন। ফলে কাকে এগিয়ে রাখব, আর কে থাকবে পিছিয়ে— এ প্রশ্ন অবান্তর। চরিত্রের স্বর দিয়েছেন যারা, তারাও একেবারে যথাযথ।

এ ছবিতে বারবার উঠে এসেছে প্রকৃতির কথা। অ্যানিমেশনের হাত ধরে প্রকৃতি সম্পর্কে সচেতন করে তোলার কায়দা পরিচালকের নতুন নয়। ‘মোয়ানা’ও জয়গান গেয়েছিল সুস্থ পৃথিবীর। আর জল, বায়ু, পৃথিবী, আগুনকে শান্ত করার বার্তা দিয়েছে এলসা-আনা। কারণ পৃথিবী আজ সত্যিই বিপন্ন। তাকে বাঁচাতে হলে রূপকথার পথ ধরা ছাড়া উপায় কই!

এসকে/জেডএস

 

তারায় তারায়: আরও পড়ুন

আরও