বাংলাদেশ হকির 'টাইগার' সোনা মিয়া আর নেই

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

বাংলাদেশ হকির 'টাইগার' সোনা মিয়া আর নেই

পরিবর্তন ডেস্ক ১:৪১ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৮

print
বাংলাদেশ হকির 'টাইগার' সোনা মিয়া আর নেই

বাংলাদেশ জাতীয় হকি দলের সাবেক তারকা ও কোচ আব্দুর রাজ্জাক সোনা মিয়া রোববার সকালে পরলোকগমন করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি দেশের হকিতে 'টাইগার' নামেই সুপরিচিত ছিলেন। দীর্ঘদিন অসুস্থ দেশীয় হকির এই কিংবদন্তি সকালে হাসপাতালে নেয়ার পথে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর। রোববার দুপুর দুইটায় মাওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে তার প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

শুধু নিজেই হকি ভালবাসেননি, খেলাটিকে ছড়িয়ে দিয়েছেন নিজের পরিবারের মাঝেও। বাংলাদেশ জাতীয় হকি দলের বর্তমান অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি তারই সন্তান। ১৯৪৯ সালের ২ নভেম্বর ঢাকার আরমানিটোলায় জন্ম নেয়া সোনা মিয়া খেলেছেন আজাদ স্পোর্টিং, কম্বাইন্ড, ভিক্টোরিয়া, পিডব্লিউডি ও আবাহনীর মত দলে।

অবিভক্ত পাকিস্তানের জাতীয় হকি দলের ক্যাম্পে ডাক পেয়েছিলেন সোনা মিয়া। পাকিস্তানের জুনিয়র দলেও খেলেছেন। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে খেলেছেন করাচিতে। ১৯৬৯ সালে জাতীয় দলের সাথে ইউরোপ সফরে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন এই প্রতিভাবান হকি খেলোয়াড়। কিন্তু চোটের কারণে শেষপর্যন্ত আর যাওয়া হয়নি তার।

পাকিস্তানিরা যেসব বাঙালি খেলোয়াড়দের সমীহ করতো তাদের মধ্যে একজন ছিলেন সোনা মিয়া। তারাই সোনা মিয়াকে ডাকত ‘বাঙাল মুলক কা টাইগার’ বলে। এই টাইগারই ১৯৭০ সালে ঢাকায় হারিয়ে দিতে বসেছিলেন পাকিস্তান দলকে। ১৯৭০ সালে ব্যাংককে এশিয়ান গেমসে যাওয়ার আগে পাকিস্তানের জাতীয় দল ঢাকা সফরে আসে এবং পূর্ব পাকিস্তান দলের বিপক্ষে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে। সে ম্যাচে দারুণ পারফর্ম করেছিলেন বাংলাদেশের এই টাইগার। তবে বিশ্বসেরা পাকিস্তানকে জাতীয় দলের কাছে এক গোলে হেরেছিল পূর্ব পাকিস্তান হকি দল।

স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে ‘ঢাকা একাদশ’ নামে বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় হকি দল নিয়ে দিল্লির নেহেরু কাপে খেলেছিলেন সোনা মিয়া। বাংলাদেশের জার্সি গায়ে ১৯৭৮ সালে ব্যাংকক এশিয়ান গেমসেও খেলেছেন তিনি।

খেলোয়াড় হিসেবে অবসর নেয়ার পর কোচ হিসেবেও নিজের ছাপ রেখেছেন এই কিংবদন্তি। ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ দলের কোচ ছিলেন। ঢাকায় অনুষ্ঠিত ১৯৮৫ সালের স্মরণীয় এশিয়া কাপ হকিতে ছিলেন দলের সহকারী কোচ। ১৯৮৮ সালে দিল্লির জুনিয়র ওয়ার্ল্ড কাপেও বাংলাদেশ দলের কোচ ছিলেন সোনা মিয়া। এছাড়া দেশে আবাহনী, অ্যাজাক্স ও মেরিনার্সের মত ক্লাবকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন তিনি। হকিতে আরও একটি পরিচয় আছে তার। ‘গ্রেড ওয়ান’ আম্পায়ার হিসেবেও খ্যাতি ছড়িয়েছিলেন তিনি।

একজন খেলোয়াড়, কোচ, সংগঠক বা আম্পায়ার- এত পরিচয়ে পরিচিত ‘টাইগার’ আবদুর রাজ্জাক সোনা মিয়াকে শ্রদ্ধাভরেই স্মরণ করে যাবে বাংলাদেশের হকি।

এসএম/টিএআর

 
.




আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad