‘‘পুত্র’তে আমি গর্বিত ও তৃপ্ত’’

ঢাকা, সোমবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৮ | ৯ মাঘ ১৪২৪

‘‘পুত্র’তে আমি গর্বিত ও তৃপ্ত’’

মাসুম আওয়াল, ছবি : রাফিয়া আহমেদ ১:৪৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ০৪, ২০১৮

print
‘‘পুত্র’তে আমি গর্বিত ও তৃপ্ত’’

হাত নাড়িয়ে নিজের স্বভাব সুলভ ঢঙেই কথা বলছিলেন মিষ্টি হাসির মানুষটি, প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছিলেন খুব সাচ্ছন্দেই। কি কথা তার সাথে? সেই বা কে? আলাপের বিষয় বস্তু কি হতে পারে? আর রহস্য না, কথা হচ্ছিল বড় পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা ফেরদৌসের সাথে।

শুক্রবার দেশব্যাপী শতাধিক সিনেমা হলে মুক্তি পেতে যাচ্ছে তার অভিনীত সিনেমা ‘পুত্র’।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর প্রযোজিত ও ইমপ্রেস টেলিফিল্মের সার্বিক তত্ত্বাবধানে নির্মিত সিনেমা ‘পুত্র’।

ছবিটির পরিবেশনার দায়িত্বে আছে প্রযোজনা ও পরিবেশনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া।

ফেরদৌস পরিবর্তন ডটকমকে এক সাক্ষাৎকারে এই ছবি ও নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। তুলে ধরা হলো আলাপের চুম্বক অংশ।

প্রথমেই জানতে চাই ‘পুত্র’ ছবিটির মূল বিষয় বস্তু কী?

ছবিটির মূল বিষয় অটিস্টিক শিশু। সেই শিশু, তার পরিবার, সমাজে তাদের অবস্থান ও আমাদের করণীয় এমন নানা বিষয় উঠে এসেছে এখানে। এ ধরনের একটি ছবিতে অভিনয় করে আমি গর্বিত ও তৃপ্ত।

ছবিতে আপনার চরিত্রটি কী?

এখানে দেখা যাবে, আমার বাচ্চাটা অটিস্টিক। নানা সমস্যা হয় তাকে নিয়ে। তার জন্য আমার জীবন কতটা দুর্বিসহ হয়! আমরা কিভাবে এটাকে রিকভার করি সেটাই দেখানো হয়েছে এখানে।

আপনি বলছিলেন এ ধরনের ছবিতে এবারই প্রথম অভিনয় করেছেন, নিশ্চয় নতুন অভিজ্ঞতা হয়েছে। কেমন ছিল সেই অভিজ্ঞতা?

আমার কিছু আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু বান্ধবের বাচ্চা অটিস্টিক আছে। আগে দূর থেকে দেখেছি। এতো কাছ থেকে এই ধরনের বাচ্চাদের সাথে মেশার সুযোগ হয়নি। এখানে কাছে থেকে দেখেছি ও তাদের ফিল করেছি। ছবিটিতে ‘লাজিম’ অটিস্টিক শিশুর চরিত্রে অভিনয় করেছে। সে কয়েক মাস এই বাচ্চাদের সাথে কাটিয়েছে। তাদের আচরণ রপ্ত করেছে। তার সাথে অভিনয় করতে করতে আমি ফিল করেছি। এই বাচ্চাদের অবস্থান।

সেটা কীভাবে ধরা পড়েছে আপনার চোখে?

সমাজে অটিস্টিকরা অবহেলিত হয়। তারা কোনো দাওয়াতে গেলে লোকজন অন্যভাবে তাকায় তাদের দিকে। একটা পর্যায়ে আমরা রিয়েল কিছু অটিস্টিক বাচ্চাদের সাথেও সময় কাটিয়েছি। তখন আরও বেশি করে তাদের বাবা মায়ের কষ্টগুলো অনুভব করেছি।

এর মধ্যে লাজিমের সাথেও কথা হল। এই সে সিনেমাতে অভিনয় করলো। একজন সিনিয়র অভিনেতা হিসেবে তার সাথে অভিনয় করে কেমন মনে হয়েছে?

লাজিম যেভাবে অটিস্টিক বাচ্চার চরিত্রে অভিনয় করেছে, আমিও পারতাম না। আমার একবারও মনে হয়নি ও প্রথম সিনেমায় অভিনয় করছে। ওকে আমার পরিণত অভিনেতা মনে হয়েছে। অনেক সহযোগিতাও করতে হয়নি তাকে। আমরা অনেক মজা করেই শুটিং করেছি।

অল্প কথায় তাহলে ছবিটির ম্যাসেজ কী?

দেখুন আমাদের সমাজে অটিস্টিক বাচ্চাদের জন্য শুধুমাত্র নারীদের দায়ী করা হয়। কিন্তু শুধুমাত্র নারীরাই কিন্তু দায়ী না, নারী পুরুষ উভয়েই দায়ী থাকে। যে কোনো পরিবেশেই এই ধরনের শিশুর জন্ম হতে পারে। এটা শুধু নিম্নবিত্ত পরিবারে হয় তা নয়। উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত সব পরিবারেই হতে পারে। তাদেরকে বোঝা, তাদের সুন্দরভাবে পরিচর্যা করা, মাথা উঁচু করে বাঁচার পরিবেশ তৈরি করে দেওয়া প্রয়োজন। এটাই আমরা ‘পুত্র’ সিনেমাতে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।

এখন আর কি ছবি নিয়ে ব্যস্ততা আপনার?

বেশ কিছু চলচ্চিত্র নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটছে। এরমধ্যে পোস্টমাস্টার-৭১, গন্তব্য, বিউটি সার্কাস, কালের পুতুল এছবিগুলো আসবে সামনে।

সব শেষে ‘পুত্র’ ছবিটি নিয়ে যদি বিশেষ কিছু বলতে চান?

আমি মনে করি আমাদের জাতীয় দায়িত্ব এই সিনেমার ম্যাসেজ প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া। ছবিটি যাদের শিশু অটিস্টিক তাদেরও দেখা উচিৎ, যাদের শিশু অটিস্টিক না তাদেরও দেখা উচিৎ।

এতক্ষণ পরিবর্তন ডটকমকে সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

আপনাকে ও পরিবর্তনকেও ধন্যবাদ।

এএ/এসবি

print
 
.

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad