এবার হিট সিনেমা বানাতে চাই : রিয়াজুল রিজু

ঢাকা, সোমবার, ২৯ মে ২০১৭ | ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪

এবার হিট সিনেমা বানাতে চাই : রিয়াজুল রিজু

আহমেদ জামান শিমুল ৪:৪২ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০১৭

print
এবার হিট সিনেমা বানাতে চাই : রিয়াজুল রিজু

২০১৫ এর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষিত হয়েছে বৃহস্পতিবার। ‘বাপজানের বায়স্কোপ’-এর জন্য সেরা পরিচালক ও চিত্রনাট্যকারের পুরস্কার জিতেছেন রিয়াজুল রিজু। সব মিলিয়ে সিনেমাটি মোট ৯টি পুরস্কার পেয়েছে। পুরস্কার প্রাপ্তিকে সামনে রেখে পরিবর্তন ডটকমের মুখোমুখি হয়েছেন এ নির্মাতা।

প্রথম ছবিতেই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তিতে অভিনন্দন।

ধন্যবাদ আপনাকেও। যদিও আমি এখন পর্যন্ত মন্ত্রণালয় থেকে আনুষ্ঠানিক কোনো চিঠি পাইনি। মনে হয় এরকম শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা আগে কখনো কেউ করছে কী না জানা নেই– মোরশেদুল ইসলাম, অনিমেষ আইচ, শিহাব শাহীনদের মতো নির্মাতাদের সাথে প্রতিযোগিতা করে পুরস্কার পাওয়া সৌভাগ্যের। ‘বাপজানের বায়স্কোপ’ কিন্তু ২২টি ক্যাটাগরিতে পুরস্কারের শর্ট লিস্টে ছিল।

মুক্তির সময় ৪২টি হল থেকে একযোগে ‘বাপজানের বায়স্কোপ' নামিয়ে দেওয়া হয়েছিল। আপনার দাবি ছিল ‘ফিল্ম পলিটিক্স’-এর শিকার হয়েছেন। কে বা কারা এর সাথে জড়িত ছিল?

আমি আর এ বিষয়ে বলতে চাই না। এ জীবনে যাদের কাছ থেকে ভালোবাসা পেয়েছি কিংবা যারা আমার ক্ষতি করেছে তাদের সবার কাছ থেকে আমি শিখেছি। তাই ওই ঘটনার জন্য কাউকে বদদোয়া, অভিশাপ দিতে চাই না।

হল থেকে নামিয়ে দেওয়ায় আপনার প্রযোজক আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলেন। আপনি নিজে কী ধরনের সমস্যায় পড়েছিলেন?

আমিও কিন্তু এ ছবির প্রযোজক। এসএ টিভির চাকরি ছেড়ে আমি ছবিটি বানিয়েছিলাম। শুধু এতটুকু বলি, ওই ধাক্কা আমাকে এখনো সামলাতে হচ্ছে। আমার স্ত্রী-সন্তানকে ঢাকা ছেড়ে টাঙ্গাইলে রাখতে হচ্ছে। সেখানে আমার বাবার দেওয়া একটি ফ্ল্যাটে তারা থাকে।

৯টি পুরস্কার। সামনে আরো ভালো ছবি নির্মাণের একটা চ্যালেঞ্জ আসছে কিন্তু!

আমি সিনেমার তিনটা ক্যাটাগরি বুঝি— ভালো, খারাপ ও হিট। তার মধ্যে ভালো ছবি বানিয়েছি, এবার হিট সিনেমা বানাতে চাই।

হিট ছবি একজন পরিচালকের জন্য কী খুব জরুরি?

ভালো পরিচালক হিসেবে আমি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছি— তাতে আমি সফল। কিন্তু ‘হিট ফিল্মমেকার' হিসেবে আমাকে কজন চিনে?

হিট বলতে কী ধরনের সিনেমা বুঝাচ্ছেন?

এমন একটা সিনেমা সব দর্শক দেখবেন, কিন্তু যাতে রিয়াজুল রিজুর ছাপ থাকবে। এটাকে মানুষ কর্মাশিয়াল বা আর্ট যেটাই বলুক এটা হিট থাকবে এবং তা কোন সুপারস্টার ছাড়া।

আমাদের দেশে প্রথম ছবিতে পুরস্কার পাওয়ার পর অনেকে হারিয়ে যান কিংবা আগের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেন না।

আমার ফেসবুকে দেখবেন লেখা— সন অব ন্যাচার। দেখা যাক প্রকৃতি আমাকে কোথায় নিয়ে যায়।

এ পুরস্কার কাকে উৎসর্গ করবেন?

এই সিনেমার জন্ম থেকে শুরু করে মুক্তি পর্যন্ত তিনটা মানুষের অবদান আছে– আমার বাবা ড. জি মওলা, আমার ওস্তাদ শাহেদ শরীফ খান ও এ ছবিটির নির্বাহী প্রযোজক রয়েল মটরসের কর্ণধার এমএ হোসেন মঞ্জু। এদের তিনজনকে উৎসর্গ করতে চাই।

আপনার পরবর্তী ছবি নিয়ে বলুন।

ফর্মুলা ছবি কিন্তু একটু আগে যেভাবে বললাম, তাতে আমার নামের একটা ছাপ থাকবে। বর্তমানে স্ক্রিপ্টিং চলছে। আগের ছবিতে চন্দনা মজুমদার, মাসুম রেজা, এসআই টুটুল, শহীদুজ্জামান সেলিমের মতো তারকারা কাজ করেছেন। কিন্তু নতুন ছবিতে সবাই আনকোরা থাকবেন।

সিনেমা নিয়ে আপনার স্বপ্ন কী?

আমি রাম গোপাল ভার্মার মতো বেয়াদব হতে চাই। যে কিনা বলবে– আই অ্যাম দ্য ইন্ডাস্ট্রি। একই সাথে সঞ্জয় লীলা বানশালি ও রাজকুমার হিরানির মতো আইকন হতে চাই এশিয়ার প্রেক্ষাপটে।

এজেডএস/ডব্লিউএস

আরো পড়ুন...
শাকিব-জয়ার হ্যাটট্রিক
সেরা অভিনেতা শাকিব-মাহফুজ, অভিনেত্রী জয়া
‘মান’ বাঁচালেন শাকিব

print
 

আলোচিত সংবাদ