নাটকে গল্প হচ্ছে চাষের জমির মতো : আরিয়ান

ঢাকা, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৪

নাটকে গল্প হচ্ছে চাষের জমির মতো : আরিয়ান

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:০৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০৮, ২০১৮

print
নাটকে গল্প হচ্ছে চাষের জমির মতো : আরিয়ান

‘বড় ছেলে’-খ্যাত নির্মাতা মিজানুর রহমান আরিয়ান। নাটক ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। পরিকল্পনা করছেন পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রেরও।

ভালোবাসা দিবসকে সামনে রেখে প্রতিবারই উপহার দেন নাটক। এবারও ব্যতিক্রম হচ্ছে না। সে অভিজ্ঞতা ও অন্যান্য পরিকল্পনা জানালেন পরিবর্তন ডটকমকে।  

ব্যস্ততা কেমন?

ধারাবাহিক নাটক, ঈদ ও ভালোবাসা দিবসের নাটক নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছি।

ভালোবাসা দিবসে ইউটিউবে প্রকাশ হচ্ছে সংসার’। এই ছাড়া আর কী করছেন?

‘সংসার’ তো করছি। তাছাড়া ‘পনেরো দিন’ শিরোনামের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করছি। এটিও ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে।

‘সংসার’ টেলিভিশনে প্রচার না করে ইউটিউবে কেন?

এখন তো অনলাইনের জন্য অনেক কন্টেন্ট হচ্ছে। অনেক বড়  বড় প্রোডাকশনের কাজ ছাড়তে হয়েছে ‍আমাকে। কারণ অনেক  আগে থেকে পরিকল্পনা ছিল ভালোবাসা দিবসে যত্ন করে একটি কাজ করব।

নাটক তৈরির ক্ষেত্রে কিসে বেশি প্রাধান্য দেন?

গল্প। গল্প হচ্ছে আমার কাছে চাষের জমির মতো। ডিরেকশন, আর্টিস্ট, পোস্ট প্রোডাকশন— সব কিছুকে মনে হয় গাছ, মাটি, পাহাড়, সমুদ্রের মতো। মাটি, পাহাড়, সমুদ্র সব মিলে তো জমি দাঁড়ায়। ঠিক তেমন গল্পটাই প্রধান আমার কাছে।

এখন যারা নাটক পরিচালনা করছেন, তাদের নিয়ে আপনার ভাবনা ও বিবেচনা কী?

আমি প্রত্যেক পরিচালককে সন্মান করি। কারণ এত কম বাজেটে এত সুন্দর নাটক পৃথিবীর অন্য কোথাও নির্মাণ হয় কি-না আমার জানা নেই। নাটক হয়ত ভালো হয় বছরে দশটা। তবুও যারা কম বাজেটে নাটক বানাচ্ছে, পরিচিতি পাচ্ছে না তাদেরকে অভিনন্দন জানাই। আমি বলতে চাই— গল্পের মধ্যে ধ্যান দিতে হবে। কারণ ইদানিং বেশির ভাগ ক্ষেত্রে গল্প বলা একই হচ্ছে। নতুনদের বলতে চাই— তারা যেন নতুন চিন্তা-ভাবনা, নতুন গল্প ও নতুন ধরনের উপস্থাপনা নিয়ে কাজ করেন। 

নাটক নির্মাতা হিসেবে অসংখ্য মানুষ আপনাকে আলাদা করে চেনে ও পছন্দ করেএটা কেমন লাগে?

অবশ্যই ভালো লাগে। আজ থেকে পাঁচ-ছয় বছর আগে কাজ শুরু করি, তখনই ইচ্ছে ছিল আমার নামে নাটক দেখবে দর্শক। মানুষ বলবে— এটা মিস করা যাবে না আরিয়ানের নাটক। এখন সেটা আল্লাহর রহমতের তৈরি হয়েছে। আমার প্রতি ব্লেসিং বলা যায়। কয়জনই বা সেটা পায়, সবাই তো চেষ্টা করছে।

আগামীর পরিকল্পনা কী?

বড়পর্দায় কাজ করার ইচ্ছে রয়েছে। আশা করছি খুব তাড়াতাড়ি ঘোষণা দেব। এরই মধ্যে অনেকে জানেন ছবি পরিচালনা করব।

পরিচালনায় আসার পেছনে কোন কারণ আছে?

হ্যাঁ, একটাই কারণ। আমি বুয়েটে টিকিনি। তখন থেকেই ভেবেছি এমন কিছু করব যেন সে কষ্টটা না থাকে।

সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

আপনাকেও ধন্যবাদ।

টিআ/ডব্লিউএস

 
.

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad