ইবির অপেক্ষমাণ তালিকার সাক্ষাৎকার স্থগিত, ভোগান্তিতে ভর্তিচ্ছুরা

ঢাকা, শনিবার, ২৬ মে ২০১৮ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

ইবির অপেক্ষমাণ তালিকার সাক্ষাৎকার স্থগিত, ভোগান্তিতে ভর্তিচ্ছুরা

ইবি প্রতিনিধি ৮:২৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৭, ২০১৮

print
ইবির অপেক্ষমাণ তালিকার সাক্ষাৎকার স্থগিত, ভোগান্তিতে ভর্তিচ্ছুরা

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও শরিয়াহ অনুষদভূক্ত আল-ফিকহ্ অ্যান্ড লিগ্যাল স্টাডিজ বিভাগে ভর্তির শর্ত নিয়ে সৃষ্ট ধুম্রজাল কাটেনি। ফের মৌখিক পরীক্ষা স্থগিত করেছে কর্তৃপক্ষ। অপেক্ষমাণ মেধাতালিকা থেকে মৌখিক পরীক্ষা দিতে আসা শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি চরমে। এদিকে পূর্ব ঘোষিত সময়ে মৌখিক পরীক্ষা শুরুর আগ মূহুর্তে সর্বোচ্চ প্রশাসন কর্তৃক পরীক্ষা স্থগিতের আদেশে বেকায়দায় পড়ে ভাইভা বোর্ড।

বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও শরিয়াহ অনুষদভুক্ত ‘এইচ’ ইউনিটে আল-ফিকহ্ অ্যান্ড লিগ্যাল স্টাডিজ বিভাগের অপেক্ষমাণ মেধা তালিকার সাক্ষাৎকারের জন্য ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। ঘোষণা অনুযায়ী সাক্ষাৎকার দিতে আসে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শিক্ষার্থীরা।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, পূর্ব ঘোষিত সময় অনুযায়ী বেলা ১১টায় সাক্ষাৎকার শুরু হওয়ার কথা থাকলেও নির্ধারিত সময় অতিবাহিত হলেও সাক্ষাৎকার শুরু করতে পারেনি সাক্ষাৎকার বোর্ড। নির্ধারিত সময়ের প্রায় দুই ঘণ্টা পর উপস্থিত ভর্তিচ্ছুকদের জানানো হয়, আজ সাক্ষাৎকার নেয়া হবে না। পরে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের নাম ঠিকানা রেখে দেয় কর্তৃপক্ষ। প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুমতি পেলে অপেক্ষমাণদের আবার ডাকা হবে বলে জানায় বোর্ডের সদস্যরা।

পাবনা জেলা থেকে সাক্ষাৎকার দিতে আসা ভর্তিচ্ছুক মা’আজ আহমেদ বলেন, ‘সাক্ষাৎকারের দিন ঘোষণার আগেই সব বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিৎ ছিল প্রশাসনের। এভাবে শিক্ষার্থীদের হয়রানি করার কোনো মানে হয় না। দূরের শিক্ষার্থীরা বার বার হয়রানি পোহাতে আসবে না।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষক সমিতির সাবেক এক নেতা বলেন, ‘আমার জানা মতে, আল-ফিকহ্ বিভাগের গ্রাজুয়েটদের ২১শত নম্বর আরবী ভার্সনে পড়তে হয়। ইংরেজিতে নির্ধারিত পরিমাণ নম্বর না পেলে ইংরেজি বিভাগে ভর্তি করা হয় না। কারণ কোর্সগুলো ইংরেজি ভার্সনে পড়তে-লিখতে হয়। তাই আরবীতে লিখতে-পড়তে হলে অবশ্যই আরবী দক্ষতা নিরূপণ জরুরী।’

আল-ফিকহ্ বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. এ কে এম নুরুল ইসলাম বলেন, ‘প্রশাসনের নির্দেশে সাক্ষাৎকার স্থগিত করা হয়েছে। প্রশাসনের মতামত পেলেই আমরা আবার অপেক্ষমাণদের ডাকব। আরবীতে দক্ষতার মাপকাঠি স্পষ্ট করে নির্ধারণ করার জন্য প্রশাসনকে বলা হয়েছিল। কিন্তু তারা তা করতে ব্যর্থ হয়েছে। আশাকরি আগামীতে আরবীতে দক্ষতার বিষয়টি স্পষ্ট করবেন কর্তৃপক্ষ।’

এর আগেও ছাত্রলীগের বাধায় এই সাক্ষাৎকার স্থগিতের ঘটনা ঘটেছে। তখন আরবীতে দক্ষতা নিরূপণের জন্য একটি কমিটি করে দেয় প্রশাসন। সেই কমিটির আওতায় সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠিত হয়। বেশ কিছু আসন ফাঁকা থাকায় অপেক্ষমাণ মেধাতালিকা থেকে আবার সাক্ষাৎকার আহ্বান করে ভাইভা বোর্ড। কিন্তু ভাইভা শুরুর আগমূহুর্তে ভাইভা আপাতত স্থগিত রাখার আদেশ দেন প্রশাসনের সর্বোচ্চ কর্তা ব্যক্তি।

ভিসি প্রফেসর ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, ‘আরবীর মাপকাঠি নিয়ে একটু সমস্যা হচ্ছে। আমারা দ্রুত সভা করে সিদ্ধান্ত দিব।’

আগামী কার্যদিবস থেকেই ভাইভা অনুষ্ঠিত হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

তিনি আরো বলেন, ‘আগামী বছর থেকে আরবীতে দক্ষতার মাপকাঠি অবশ্যই স্পস্ট করা হবে।’

আইআর/এসএফ

 
.

Best Electronics Products



আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad