নেগেটিভ সূত্রে লিভারপুলকে বিদায় করল অ্যাতলেতিকো
Back to Top

ঢাকা, বুধবার, ৮ জুলাই ২০২০ | ২৪ আষাঢ় ১৪২৭

নেগেটিভ সূত্রে লিভারপুলকে বিদায় করল অ্যাতলেতিকো

পরিবর্তন ডেস্ক ১১:০৬ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১২, ২০২০

নেগেটিভ সূত্রে লিভারপুলকে বিদায় করল অ্যাতলেতিকো
সুন্দর আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে লাভ কি, যদি ফল না আসে! লিভারপুলের খেলোয়াড়, কোচ, দর্শকেরা হয়তো এখন এই আফসোসেই পুড়ছেন। অন্যদিকে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের কোচ, খেলোয়াড়েরা ভাসছেন কুৎসিত, নেতিবাচক ফুটবল খেলেও জয় ছিনিয়ে আনার আনন্দে। কাল রাতে যে অ্যাতলেতিকোর কুৎসিত ফুটবলের কাছেই পরাজিত হয়েছে লিভারপুলের গতিশীল আক্রমণাত্মক সুন্দর ফুটবল।

সত্যিই তাই। নেগেটিভ মন্ত্রেই কাল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলকে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোল থেকেই বিদায় করে দিয়েছে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। নিজেদের ঘরের মাঠের প্রথম লেগে ১-০ গোলে এগিয়ে থাকা অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ কাল দ্বিতীয় লেগে লিভারপুলকে হারিয়েছে ৩-২ গোলে। ফলে দুই লেগ মিলিয়ে ৪-২ অগ্রগামিতা নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে অ্যাতলেতিকো। আর সুন্দর ফুটবল খেলেও চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল শেষ ষোল থেকেই বিদায়।

কাল অ্যাতলেতিকোর জয়টা এসেছে অতিরিক্ত সময়ে। নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলায় ১-০ গোলে এগিয়ে ছিল লিভারপুল। ফলে দুই লেগ মিলিয়ে স্কোর হয় ১-১। যেহেতু নকআউট পর্বের খেলা, তাই ফল নির্ধারণে খেলা গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে। এই সময়েই লিভারপুলের সর্বনাশটা করেছে অ্যাতলেতিকো। অতিরিক্ত ৩০ মিনিটেই ৩টি গোল আদায় করে নিয়েছে স্প্যানিশ ক্লাবটি। বিপরীতে লিভারপুল অতিরিক্ত সময়ে গোল করতে পেরেছে মাত্র একটি। ফলে হারতে হয়েছে ৩-২ ব্যবধানে।

অ্যাতলেতিকোর এই জয়ের নায়ক দুই বদলি খেলোয়াড় আলভারো মোরাতা ও মার্কোস লরেন্তে। মোরাতা করেছেন একটি গোল। লরেন্তে দুটি। ফলে মোরাতাকে ছাপিয়ে মার্কোস লরেন্তেই বনে গেছেন বড় নায়ক।

নিজেদের মাঠে প্রথম লেগে অ্যাতলেতিকো ১-০ গোলে জিতেছিল ঠিক। তবে সফরকারী লিভারপুল গতিশীল আক্রমণাত্মক ফুটবল দিয়ে তাদের কাঁপিয়ে দিয়েছিল। ফলে অ্যাতলেতিকোর আর্জেন্টাইন কোচ দিয়েগো সিমিওনে ভালো করেই জানতেন, নিজেদের মাঠে লিভারপুল মরণ কামড় দেবে! তাই লিভারপুলের বিষদাঁত ভোতা করার আশায় তিনি কাল বেছে নেন নেগেটিভ মন্ত্র। মানে আর্জেন্টাইন কোচ অতি রক্ষণাত্মক কৌশল।

ঠিক যেন হোসে মরিণহোর সূত্র ধার করে প্রয়োগ ঘটনা। লিভারপুলের আক্রমণ রুখতে তিনি দলের ১১ জনকেই নিয়োজিত করেন রক্ষণে! প্রতিপক্ষের আক্রমণ রুখে সময় সুযোগ পেলে বার দুয়েক আক্রমণে উঠেছে অ্যাতলেতিকো। এই নেতিবচাক কৌশল দিয়েই কাল বাজিমাত করেছেন দিয়েগো সিমিওনে। আর্জেন্টাইন কোচের নেতিবাচক কৌশল দেখে লিভারপুলের জার্মান কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপও বিস্মিত! ম্যাচ শেষে তিনি তার বিস্ময়টা প্রকাশও করেছেন। বলেছেন, অ্যাতলেতিকো কেন এমন নেতিবাচক ফুটবল খেলল তিনি বুঝে উঠতে পারছেন না।

হেরে যাওয়া দলের কোচ কি বলল, সেদিকে মনোযোগ দিতে সিমিওনের বয়েই গেছে। তিনি বরং লিভারপুলের মতো শক্তিশালী দলকে হারিয়ে নিজ দলকে কোয়ার্টার ফাইনালে তুলতে পেরে মহা খুশি। তার চেয়েও বেশি খুশি জোড়া গোল করে দলকে শেষ আটের টিকিট পাইয়ে দেওয়া লরেন্তে। এমনিতে স্প্যানিশ এই ফরোয়ার্ড অ্যাতলেতিকোর শুরুর একাদশে খেলঅর তেমন সুযোগই পান না। কালও পাননি। তবে বদলি হিসেবে নেমে দলকে মহাগুরুত্বপূর্ণ জয় এনে দিয়েছেন, লরেন্তের খুশিতে আটখানা হওয়াটা বাড়াবাড়ি নয় মোটেও।

কাল লিভারপুলের সমানে সমীকরণ ছিল, ঘরের মাঠে অন্তত ২-০ গোলে জিততে হবে। ইয়ুর্গেন ক্লপের শিষ্যরা সমীকরণটি মেলানোর চেষ্টাও করেছে। নির্ধারিত সময়ের খেলায় মোট ৭১ শতাংশ বল পজেশন ছিল তাদের। বিপরীতে অ্যাতলেতিকোর বল পজেশন ছিল মাত্র ২৯ শতাংশ।

কিন্তু এমন মরিয়া চেষ্টা করেও লিভারপুল নির্ধারিত সময়ে সমীকরণটা মেলাতে পারেনি। জর্জিনহো উইজিনালডানের ৪৩ মিনিটের গোলে ১-০ করতে পারে। ফলে খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। নির্ধারিত সময়ে প্রচণ্ড পরিশ্রম করাতেই কিনা লিভারপুলের খেলোয়াড়েরা অতিরিক্ত সময়ে যেন খানিকটা নেতিয়ে পড়ে। এই সুযোগটাই কাজে লাগিয়েছে অ্যাতলেতিকোর দুই বদলি খেলোয়াড়।

অবশ্য অতিরিক্ত সময়ে জয়ের পথে প্রথমে এগিয়ে যায় স্বাগতিক লিভারপুলই। ইংলিশ ক্লাবটিকে ২-০ গোলে এগিয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান তারকা রবার্তো ফিরমিনো। কিন্তু ৯৭ মিনিটে তার এই গোলটা শোধ করে দেন আলভারো মোরাতা। এরপর ১০৫ ও ১২০ মিনিটে দুই গোল করে লিভারপুলকে দ্বিতীয় লেগেও হারের স্বাদ উপহার দেন লরেন্তে।

কেআর

 

: আরও পড়ুন

আরও