৭১৮ পাস ৩ শট ২ গোল, এ কোন বার্সা!

ঢাকা, রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

৭১৮ পাস ৩ শট ২ গোল, এ কোন বার্সা!

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:৫৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০২০

৭১৮ পাস ৩ শট ২ গোল, এ কোন বার্সা!

রোববার থেকে বুধবার। তিনদিনের ব্যবধানেই বার্সেলোনা এতটা বদলে গেল? রোববারের লিগ ম্যাচের সঙ্গে কালকের কোপা ডেল রের ম্যাচটিতে বার্সেলোনার পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ করে মনের কোণে একটা প্রশ্নই জাগে, এ কোন বার্সেলোনা?

হ্যাঁ, দলে বেশ কয়েকটা পরিবর্তন এনে ছিলেন বার্সেলোনা কোচ কিকে সেতিয়েন। কোপা ডেল রের শেষ ৩২ রাউন্ডের ম্যাচটিতে বার্সেলোনার প্রতিপক্ষ ছিল তৃতীয় বিভাগের দল পুঁচকে ইউনিয়ন দেপোর্তিভো ইবিজা। প্রতিপক্ষ অপেক্ষাকৃত দুর্বল বলে বার্সা কোচ বিশ্রাম দিয়েছিলেন এক নম্বর গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে তের স্টেগান, ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকে, মিডফিল্ডার সার্জিও বুসকেটস ও দলের প্রধান অস্ত্র অধিনায়ক লিওনেল মেসিকে। তাদের পরিবর্তে মাঠে নামিয়েছিলেন তরুণদের।

তা যাই হোক, মাঠে তো নেমেছিল বার্সেলোনাই। কিন্তু খেলঅ দেখে বার্সেলোনাকে বার্সেলোনা বলে মনেই হয়নি। বিশেষ করে রবিবারের ম্যাচের পারফরম্যান্সের তুলনায় কাল একেবারেই অন্য মেরুর দল ছিল বার্সেলোনা। ম্যাচের পরিসংখ্যানও সেটাই বলছে।

হ্যাঁ, পুঁচকে ইবিজার বিপক্ষে কালও বল পজেশনে একচ্ছত্র রাজত্ব করেছে বার্সেলোনা। ৭৮ শতাংশ বল পজেশনে রেখেছে তারা। বিপরীতে স্বাগতিক ইবিজার বল পজেশন ছিল মাত্র ২২ শতাংশ। কিন্তু এই বল পজেশনের বাইরে আর সবকিছুতেই যেন ছিল ছন্নছাড়া অন্য বার্সেলোনা। আক্রমণ গড়া, প্রতিপক্ষের গোলমুখে শট নেওয়া-কোনো পরিসংখ্যানই বার্সেলোনা সূলভ ছিল না!

এরই খেসারত প্রায় দিতে হচ্ছিল বার্সেলোনাকে। পুঁচকে ইবিজার বিপক্ষেও হারতে বসেছিল। ম্যাচের ৭১ মিনিট পর্যন্তও স্বাগতিক ইবিজা এগিয়ে ছিল ১-০ গোলে। সেখান থেকে দলকে উদ্ধার করেছেন আতোইন গ্রিজমান। ফরাসি তারকা শেষ দিকে জ্বলে উঠা করেছেন জোড়া গোল। হারের শঙ্কা মুছে দিয়ে দলকে এনে দিয়েছেন পরম স্বস্তির ২-১ গোলের জয়।

৭৮ শতাংশ বল পজেশনে রেখেও বার্সেলোনা পুরো ম্যাচে পাস খেলেছে মাত্র ৭১৮টি। অথচ রবিবার গ্রানাডার বিপক্ষে লিগ ম্যাচে বার্সা কোচ হিসেবে অভিষেকেই পাসের রেকর্ড গড়েছেন কোচ সেতিয়েন। সেদিন মেসিরা মিলে ৯০ মিনিটের ম্যাচে মোট পাস খেলেছিল ১০০৫টি। সেই বার্সেলোনাই কাল ৯০ মিনিটে পাস খেলেছে ৭১৮টি। মানে রোববারের চেয়ে কাল ২৮৭টি কম পাস খেলেছে বার্সেলোনা!

ছোট ছোট পাসের পরিবর্তে কাল অপেক্ষাকৃত লম্বা পাস খেলেছে বার্সেলোনা। বল নিয়ে সময়ও ক্ষেপণ করেছে বেশি। পাস তবু ৭১৮টি খেলেছে। কিন্তু আক্রমণ গড়া এবং প্রতিপক্ষের গোলমুখে শট নেওয়ায় আরও বেশি নিষ্প্রভ ছিল বার্সেলোনা। পুরো ম্যাচে বার্সা পরিকল্পিত জোরালো আক্রমণ গড়তে পেরেছে হাতে গোনা কয়েকটি।

প্রতিপক্ষের গোলমুখে শট নেওয়ার পরিসংখ্যাটা তো রীতিমতো উৎকে উঠার মতো! ৯০ মিনিটের ম্যাচে বার্সেলোনার খেলোয়াড়েরা সবাই মিলে কিনা ইবিজার গোলমুখে শট নিয়েছেন মাত্র ৩টি!

তবে চরম এই হতাশাজনক পরিসংখ্যানের ভেতরেই বার্সেলোনার অন্য রকম এক স্বস্তির পরিসংখ্যান লুকিয়ে আছে! তাদের ৩ শটের দুটিই খুঁজে পেয়েছে ঠিকানা। ফরাসি তারকা গ্রিজমান দুটি শট নিয়ে দুটিকেই গোলে রূপ দিয়েছেন! দুই শটে দুই গোল, এই অবিশ্বাস্য পরিসংখ্যান অনেক দিনই তৃপ্তির রসদ হয়ে থাকবে গ্রিজমানের মনমন্দিরে। ইবিজার গোলমুখে বার্সেলোনার অন্য শটটি নিয়েছেন আনসু ফাতি। যেটি আসলে লক্ষ্যভ্রষ্ট।

কেআর

 

খেলাধুলা: আরও পড়ুন

আরও