৬ তারায় রিয়াল মাদ্রিদ যেন এক টুকরো ব্রাজিল!

ঢাকা, শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৭ ফাল্গুন ১৪২৬

৬ তারায় রিয়াল মাদ্রিদ যেন এক টুকরো ব্রাজিল!

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:১৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০২০

৬ তারায় রিয়াল মাদ্রিদ যেন এক টুকরো ব্রাজিল!

এই তো, গত সপ্তাহে নগর প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদকে হারিয়ে স্প্যানিশ সুপার কাপের শিরোপা জিতেছে রিয়াল মাদ্রিদ। মৌসুমের প্রথম সেই শিরোপার ট্রফি হাতে নিয়ে বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে মেতেছেন রিয়ালের ৫ তারকা। একে অন্যকে জড়িয়ে ধরে এক সঙ্গে উদযাপন করছেন কাসেমিরো, মার্সেলো, রদ্রিগো গোয়েস, এদের মিলিতাও ও ভিনিসিয়াস জুনিয়র।

রিয়াল মাদ্রিদের স্কোয়াডে বর্তমান সদস্য সংখ্যা ২৫ জন। সেই ২৫ জনই সুপার কাপ জয়ে একই রকম উদযাপন করেছেন। তবে তাদের মধ্য থেকে এই ৫ জনের আলাদা হয়ে ছবির জন্য পোজ দেওয়ার বিশেষত্ব হলো, এই ৫ জনই ব্রাজিলিয়ান। এই ছবিটা তাই রিয়ালের ব্রাজিলিয়ান সৌরভের প্রত্যক্ষ স্বাক্ষী।

তবে এর পরে যদি কোনো শিরোপা জেতে রিয়াল, আর সেই ট্রফি নিয়েও যদি দলের ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড়েরা আলাদাভাবে পোজ দেন, তাহলে তখন হয়তো ৫ জনের পরিবর্তে ছবির সদস্য সংখ্যা হবে ৬। কারণ, এরই মধ্যে আরও একজন ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড় যোগ দিয়েছেন রিয়ালে। গতকাল আনুষ্ঠানিক চুক্তির মাধ্যমে আগামী সাড়ে ৬ বছরের জন্য রিয়ালের বনে গেছেন রেইনিয়ের জেসুস।

ফলে রিয়ালে এখন ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড়ের সংখ্যা ৬ জন। ২৬ সদস্যের স্কোয়াডের ৬ জনই ব্রাজিলের। বিশ্বসেরা রিয়ালকে এখন এক টুকরো ব্রাজিল হিসেবে আখ্যায়িত করাই যায়। ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড়দের প্রতি রিয়াল কতটা দুর্বল, এতে সেটিও স্পষ্ট।

আসলে ফুটবলের দেশ ব্রাজিলের প্রতিভাবান ফুটবলারদের প্রতি ইউরোপের প্রতিটা নামীদামী ক্লাবেরই বিশেষ দুর্বলতা রয়েছে। তবে পরিমাপের মাপকাঠিতে ব্রাজিলিয়ানদের প্রতি রিয়ালেল দুবর্তলা, আকর্ষণই যেন সবচেয়ে বেশি।

পেশাদার খেলোয়াড় কেনা-বেচার যুগ শুরুর সময় থেকেই রিয়ালের এই বিশেষ দুর্বলতাটা স্পষ্ট। অতীতেও দলে এমন ব্রাজিলিয়ান তারার মেলা বসিয়েছে রিয়াল। সর্বশেষ ২০০৫-০৬ মৌসুমেও যেমন রিয়ালের তৎকালীন কোচ হুয়ান রেমন লোপেজ সারো একসঙ্গে ৫ ব্রাজিলিয়ানকে মাঠে নামানোর সুযোগ পেয়েছেন। তখন একসঙ্গে রিয়ালের ড্রেসিংরুম আলো করেছেন কিংবদন্তি রোনাল্ডো নাজারিও, রবার্তো কার্লোস, চিচিনহো, জুলিও বাপসিস্তা ও রবিনহো।

পূর্বসূরি হুয়ান রেমন লোপেজকে অনুসরণ করে রিয়ালের বর্তমান কোচ জিনেদিন জিদান বেশ কয়েকবারই ৫ ব্রাজিলিয়ানকে একসঙ্গে খেলিয়েছেন। ৫ জনকে একসঙ্গে খেলিয়েছেন গত শনিবারও। জিদান চাইলে এখন থেকে ৬ ব্রাজিলিয়ানকেই একসঙ্গে মাঠে নামাতে পারবেন।

যদিও ১৮ বছর বয়সী রেইনয়ের জেসুস মৌসুমের বাকি সময়টুকু রিয়ালের বি দলের হয়েই খেলবেন বলে খবর। তবে ফ্লামেঙ্গো মাতিয়ে আসা এই প্রতিভাবান তরুণ জিদানের মূল দলের হয়েই অনুশীলন করবেন। আর অনুশীলনে মন জয় করতে পারলে তার ডাক পরতে পারে ম্যাচেও।

রিয়ালের বর্তমান ৬ ব্রাজিলিয়ানের মধ্যে রেইনিয়েরই যে সর্বশেষ সদস্য, সেটি না বললেও চলছে। তবে ৬ জনের মধ্য্রে রিয়ালে সবচেয়ে পুরোনো বর্ষিয়ান ডিফেন্ডার মার্সেলো। সেই ২০০৬ সালের ডিসেম্বরে মাত্র ৬ মিলিয়ন ইউরোতে রিয়ালে যোগ দিয়েছেন তিনি। সেই থেকে গত ১৩টি বছর ঝাকড়া চুলের মার্সেলো কাটিয়ে এক রিয়ালেই কাটিয়ে দিলেন। আর কয় বছর বার্নাব্যুতেই কাটবে তার, কে জানে!

মার্সেলোর পর রিয়ালের দ্বিতীয় প্রবীন ব্রাজিলিয়ান হলেন কাসেমিরো। ডিফেন্সিভ এই মিডফিল্ডার মাত্র ৫ মিলিয়ন ইউরোতে রিয়ালে যোগ দিয়েছেন ২০১৩ সালে। মানে বার্নাব্যুতে তারও কেটে গেল ৭টি বছর। বাকি ৪ জনের গায়েই নতুনত্বের ঝিলিক।

ভিনিসিয়াস জুনিয়র যোগ দিয়েছেন ২০১৮ সালে। রদ্রিগো ও এদের মিলিতাও যোগ দিয়েছেন গত গ্রীষ্মে। রেইনিয়ের মাত্র চুক্তিপত্রে সই করেছেন। রিয়ালের বিশ্বখ্যাত সাদা জার্সি পরে অনুশীলন করার সুযোগও এখনো তিনি পাননি। মাঠে নামা তো দূরের ব্যাপার।

তবে যোগ যখন দিয়েছেন, দুইদিন আগে হোক পরে হোক, রিয়ালের জার্সি গায়ে ‍তার মাঠে নামাটা নিশ্চিতই। আর সেই নিশ্চয়তার ভেতরেই লুকিয়ে রয়েছে একসঙ্গে এক ম্যাচে ৬ ব্রাজিলিয়ান তারকার খেলার দুর্লভ সম্ভাবনা।

কেআর

 

খেলাধুলা: আরও পড়ুন

আরও