এমবাপে-ইকার্দিকে নিয়ে নেইমারের ‘অন্য’ হ্যাটট্রিক

ঢাকা, রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০ | ১৩ মাঘ ১৪২৬

এমবাপে-ইকার্দিকে নিয়ে নেইমারের ‘অন্য’ হ্যাটট্রিক

পরিবর্তন ডেস্ক ১১:০৫ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯

এমবাপে-ইকার্দিকে নিয়ে নেইমারের ‘অন্য’ হ্যাটট্রিক

স্পেনের বার্সেলোনায় কাল দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক করেছেন লিওনেল মেসি। একই দিনে ফ্রান্সে তার বন্ধু নেইমারও করেছেন ‘অন্য রকম’ এক হ্যাটট্রিক! ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানে মঁপেলিয়রের বিপক্ষে ব্রাজিলিয়ান তারকা নিজে একটা গোল করেছেন। দুই সতীর্থ কিলিয়ান এমবাপে ও মাউরো ইকার্দিকে দিয়ে দুটি গোল করিয়েছেন। মানে নিজে এক গোল করার পাশাপাশি দুটি অ্যাসিস্ট করেছেন নেইমার। মঁপেলিয়রের বিপক্ষে পিএসজির জয়টিও তাই নেইমারময়।

১০ জনের দল মঁপেলিয়রের বিপক্ষে পিএসজির জয়টা ৩-১ গোলে। মানে দলের ৩টা গোলেই অবদান আছে নেইমারের। বুধবারও পিএসজির জয়ের নায়ক ছিলেন নেইমার এবং এমবাপে। নঁতের বিপক্ষে দলকে ২-০ ব্যবধানের জয় এনে দিতে একটি করে গোল করেছিলেন দুজনে। কাল প্রতিপক্ষ মঁপেলিয়রের মাঠেও গোল করেছেন সেই নেইমার-এমবাপে। তাদের সঙ্গে কাল গোল উৎসব করেছেন আর্জেন্টাইন তারকা ইকার্দিও।

হ্যাঁ, কাল পিএসজির আরও এক আর্জেন্টাইন তারকা গোল করেছেন। তিনি মিডফিল্ডার লিয়ান্দ্রো প্যারাদেস। তবে ২৫ বছর বয়সী এই আর্জেন্টাইন তারকা নিজেদের গোলটা করেছেন নিজেদের জালেই। মানে নিজ দল পিএসজির জালেই বল জড়িয়েছেন তিনি! আত্মঘাতী গোল! নিয়মানুসারেই তার গোলটা গেছে প্রতিপক্ষ মঁপেলিয়রের অ্যাকাউন্টে।

বুধবার নতের বিপক্ষে ম্যাচটিতে গোল করলেও নেইমারের অভিজ্ঞতাটা ভালো ছিল না। নিজেদের মাঠে ‘ঘরের শত্রু’ নেইমারকে সারাক্ষণ দুয়ো দিয়েছে পিএসজির সমর্থকেরা। তবে গোল করার পর দুয়োর জবাবটা মাঠেই দিয়েছিলেন ব্রাজিল তারকা। মুখে আঙুল দিয়ে প্রতীকি হুমকি দিয়েছিলেন।

ব্রাজিল তারকা জবাব দিলেন কালও। তবে এবার মুখে নয়, পায়ের মোহনীয় জাদুতেই পিএসজির সমর্থকদের শান্ত রেখেছেন। মঁপেলিয়রের মাঠে সর্বশেষ তিন সাক্ষাতের দুটিতেই হেরে যায় পিএসজি। কাল সেই হারের তিক্ত স্বাদের আভাসই পাচ্ছিল পিএসজি। ম্যাচের ৭৪ মিনিট পর্যন্তও প্যারাদেসের আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে ছিল ফরাসি চ্যাম্পিয়নরা।

অনেক ঘাম ঝরানোর পর ৭৪ মিনিটে কোচ টমাস টাচেলের মুখে হাসি ফোটান নেইমার। ২৫ গজ দূর থেকে দর্শনীয় এক ফ্রি কিক গোলে পিএসজিকে সমতায় ফেরান ব্রাজিল তারকা। ফ্রি কিকটা আদায়ও করেছিলেন তিনিই। তাকে কড়া ট্যাকল করতে গিয়ে লালকার্ড দেখেন মঁপেলিয়রের ডিফেন্ডার। মঁপেলিয়র পরিণত হয় ১০ জনের দলে।

বুধবার যারা দুয়ো দিয়েছিল, সেই সমর্থকেরাই দলকে সমতায় ফেরানোর আনন্দে উষ্ণ অভিনন্দন জানায় নেইমারকে। ঘৃণার পরিবর্তে সমর্থকদের এই ভালোবাসাই হয়তো আরও তাঁতিয়ে দেয় নেইমারকে। দলকে সমতায় ফেরানোর পর আরও মরিয়া হয়ে উঠেন নেইমার। ফল, ৭ মিনিটের মধ্যে আরও ২ গোল পেয়ে যায় পিএসজি! সেই গোল দুটি অবশ্য নেইমার নিজে করেননি। দুর্দান্ত পাস দেওয়ার মাধ্যমে করিয়েছেন এমবাপে ও ইকার্দিকে দিয়ে।

৭৬ মিনিটে নেইমারের দর্শনীয় পাশ থেকেই দলকে এগিয়ে দেন এমবাপে। ৮১ মিনিটে ইকার্দির গোলটিও বানিয়ে দিয়েছেন নেইমার। পুরো ম্যাচেই দুর্দান্ত খেলেছেন ব্রাজিল তারকা। তবে শেষের ২০ মিনিটে তিনি ছিলেন প্রায় অপ্রতিরোধ্য। পিএসজির জয়টি তারই ফসল!

দারুণ এই জয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষস্থানটি আরও সংহত হয়েছে পিএসজির। দ্বিতীয় স্থানে থাকা অলিম্পিক মার্শেইয়ের চেয়ে নেইমারদের দল এখন ৮ পয়েন্টে এগিয়ে। ১৬ ম্যাচে পিএসজির পয়েন্ট ৩৯, সমান ম্যাচে মার্শেইয়ের পয়েন্ট ৩১।

কেআর

 

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও