বিশ্বকাপের শত কথা

ঢাকা, শুক্রবার, ২২ জুন ২০১৮ | ৮ আষাঢ় ১৪২৫

বিশ্বকাপের শত কথা

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:১৪ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৪, ২০১৮

print
বিশ্বকাপের শত কথা

কয়েক ঘণ্টা পরই পর্দা উঠছে ফুটবল বিশ্বকাপের। মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামে স্বাগতিক রাশিয়া ও সৌদি আরবের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে বিশ্বের সবচেয়ে জমকালো ক্রীড়া আসরের। ১৯৩০ সালে উরুগুয়েতে শুরু হওয়ার পর এটি টুর্নামেন্টের ২১তম আসর। আসুন মাঠে বল গড়াবার আগে জেনে নেওয়া যাক বিশ্বকাপের কিছু টুকিটাকি কিছু ইতিহাস ও তথ্য—

১. এবারই প্রথম বিশ্বকাপ ফুটবল আয়োজন করেছে রাশিয়া। এটা বিশ্বকাপের ২১তম আসর।

২. রাশিয়ার বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৫ সালের ১২ মার্চ। মঙ্গোলিয়ার বিপক্ষে ওই ম্যাচটি ৫-১ ব্যবধানে জিতে নেয় ইস্ট তিমুর। তবে, পরবর্তীতে ওই ম্যাচে অবৈধ খেলোয়াড় নামানোর দায়ে ইস্ট তিমুরের জয় বাতিল করে মঙ্গোলিয়াকে জয়ী ঘোষণা করেছিল ফিফা। তবে এ প্রক্রিয়া শেষ হতে অনেক সময় নেয়। এর মধ্যে বাছাইপর্বে তিমুর অনেকদূর এগিয়ে যায়। যার ফলে এ জয় মঙ্গোলিয়ার কোন কাজে লাগেনি।

৩. বর্তমানে বিশ্বকাপ ফুটবল অনুষ্ঠিত হচ্ছে ৩২টি দেশ নিয়ে। তবে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী দলের সংখ্যা বাড়াচ্ছে ফিফা। ২০২৬ সালের বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে ৪৮টি দেশ নিয়ে। এবার রাশিয়ায় ৩২ দেশ নিয়ে অনুষ্ঠিত হওয়ার পর ২০২২ সালে কাতারে বিশ্বকাপে সর্বশেষ ৩২ দল অংশ নেবে।

৪. এবারই প্রথম বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্ব খেলছে আইসল্যান্ড ও পানামা।

৫. এমন কিছু দেশ আছে যারা বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্ব খেলেছে। কিন্তু ক্রীড়া দুনিয়ায় বর্তমানে দেশগুলো নাম আর খুব একটা শোনা যায় না। এমন দেশগুলো হচ্ছে ওয়েলস, জ্যামাইকা, কিউবা, কুয়েত, ইরাক, ইন্দোনেশিয়া, হাইতি ও কানাডা।

৬. রাশিয়ার ১১ শহরের ১২টি ভেন্যুতে এবারের বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে। পূর্বপ্রান্তের ভেন্যু কালিনিনগ্র্যাদ থেকে পশ্চিম প্রান্তের ভেন্যু একতেরিনবার্গের দূরত্ব ২৪২৪ কিলোমিটার। যা লন্ডন ও মস্কোর মধ্যকার দূরত্বের সমান।

৭. ব্রাজিলই একমাত্র দেশ যারা সবক’টি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছে। এবং সবচেয়ে বেশি ৫বার শিরোপা জিতেছে।

৮. ২০১৪ সালে ব্রাজিলে চতুর্থবারের মতো বিশ্বকাপ জিতেছে জার্মানি। এবার রাশিয়ায় শিরোপা জিতলে দ্বিতীয় দেশ হিসেবে জার্মানি টানা বিশ্বকাপ জেতার গৌরব অর্জন করবে। ১৯৫৮ ও ১০৬২ সালে পরপর বিশ্বকাপ জিতে প্রথম ও এ পর্যন্ত একমাত্র দেশ হিসেবে টানা বিশ্বকাপ জেতার রেকর্ড ব্রাজিলের।

৯. সর্বশেষ তিন বিশ্বকাপে দলীয়ভাবে সর্বোচ্চ গোল করেছে জার্মানি। ব্রাজিলে ২০১৪ সালে ১৮, দক্ষিণ আফ্রিকায় ২০১০ সালে ১৬ ও দেশের মাটিতে ২০০৬ সালে ১৪ গোল করে দলটি।

১০. বিশ্বকাপে এক ম্যাচে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড রাশিয়ার ওলেগ সালেনকোর। ১৯৯৪ সালের বিশ্বকাপে ক্যামেরুনের বিপক্ষে ৫ গোল করেছেন তিনি।

১১. বিশ্বের ৩.২ বিলিয়ন মানুষ ২০১৪ সালে ব্রাজিলের বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো দেখেছিলেন। যা বিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক।

১২. বর্তমান খেলোয়াড়দের মধ্যে বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ গোল জার্মানির থমাস মুলারের। বিশ্বকাপে তার গোল সংখ্যা ১০। আর অ্যাসিস্ট করেছেন ৬টিতে।

১৩. এ পর্যন্ত সব দেশই নিজেদের দেশের কোচের অধীনেই বিশ্বকাপ জিতেছে।

১৪. টিম কাহিল, রাফায়েল মার্গুয়েজ, ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও ডেভিড ভিয়া চতুর্থবারের মতো বিশ্বকাপে খেলতে যাচ্ছেন।

১৫. অস্ট্রেলিয়ান ফুটবলার টিম কাহিল বিশ্বকাপে দেশের হয়ে ৪৫ ভাগ গোল করেছেন। বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার করা ১১টি গোলের মধ্যে ৫টিই তার করা।

১৬. রাশিয়া (সোভিয়েত ইউনিয়ন নয়) কখনো বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্যায় পার হতে পারেনি। আয়োজক দেশ হিসেবে কি এবার সেই বাধা পার হতে পারবে দেশটি?

১৭. ১৯৯৪ সালে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে অংশ নেয়া আফ্রিকান দেশ নাইজেরিয়া ষষ্ঠবারে মতো টুর্নামেন্টের চূড়ান্ত পর্ব খেলছে। সুপার ঈগলদের মতো আর কোন আফ্রিকান দেশের এ রেকর্ড নেই।

১৮. এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়া সবচেয়ে বেশিবার বিশ্বকাপ ফুটবলে অংশ নিয়েছে। এ নিয়ে দশমবারের মতো বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলছে দেশটি।

১৯. বিশ্বকাপে বেলজিয়াম তাদের সবগুলো গোল করেছে ম্যাচের ৭০ মিনিটের পর। রাশিয়ায় কেভিন ব্রুইন ও ইডেন হ্যাজার্ডের বেলজিয়াম নিশ্চয়ই আরো আগে গোল করতে পারবে।

২০. এশিয়ার দেশ ইরান নিজেদের ইতিহাসের প্রথমবারের মতো পরপর দুইটি বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে অংশ নিচ্ছে।

২১. এবারই প্রথম বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছে আইসল্যান্ড। আর রাশিয়ায় বিশ্বকাপ ম্যাচ দেখতে ৬৬ হাজার আইসল্যান্ডবাসী টিকিটের জন্য অনুরোধ করেছে। যা তাদের মোট জনসংখ্যার ২০ ভাগ। বিশ্ব কি এবার আইসল্যান্ডের ‘ভাইকিংস ক্ল্যাপ’ দেখার জন্য প্রস্তুত?

২২. এবারের বিশ্বকাপে অংশ নেয়া সবচেয়ে ছোট রাষ্ট্র আইসল্যান্ড। দেশটির জনসংখ্যা ৩ লক্ষ ৩৪ হাজার।

২৩. বিশ্বকাপ না জেতা দেশগুলোর মধ্যে মেক্সিকো সবচেয়ে বেশিবার টুর্নামেন্টটিতে অংশ নিয়েছে। দেশটি ১৫ বার বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলেছে।

২৪. ইতালি ১৯৫৮ সালে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে খেলতে পারেনি। এবং এটা ছিল টুর্নামেন্টটির ইতিহাসের প্রথম কোন শিরোপাধারী দল যারা বিশ্বকাপের উঠতে ব্যর্থ হয়েছে। রাশিয়ায় দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের বাইরে থাকছে ইতালি।

২৫. ১৯৮৬ সালের পর এই প্রথমবার যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে উঠতে ব্যর্থ হয়।

২৬. যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্বকাপে অংশ না নেয়ার মধ্যেও ভালো কিছু দেখছেন দেশটির অনেক সমর্থক। কেউ কেউ যুক্তরাষ্ট্রকে অপরাজিত আখ্যা দিয়ে লিখেছেন- ‘অপরাজেয় : না খেললে আপনার হারার সুযোগ নেই!’

২৭. বিশ্বকাপে প্রায় নিয়মিত অংশ নেয়া অনেক দল এবার দর্শকসারিতেই থাকবে। এরকম কিছু দেশ হচ্ছে, চিলি, তুরস্ক, ক্যামেরুন, ঘানা, আলজেরিয়া, ইকুয়েডর, ভেনিজুয়েলা ও আয়ারল্যান্ড।

২৮. প্রথমবারের মতো একই সাথে দুই মহাদেশে বিশ্বকাপ আয়োজিত হতে যাচ্ছে। কারণ রাশিয়া একই সাথে ইউরোপ ও এশিয়া মহাদেশের মধ্যে পড়েছে।

২৯. ৪ জুন মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় ‘এ’ গ্রুপের খেলায় স্বাগতিক রাশিয়া ও সৌদি আরবের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে এবারকার আসর।

৩০. লুজনিকি স্টেডিয়ামের ধারণ ক্ষমতা জার্মানির সিগন্যাল ইডুনা পার্কের সমান। ডর্টমুন্ডের এ স্টেডিয়ামে ২০০৮ সালে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে চেলসিকে হারিয়েছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচও অনুষ্ঠিত হবে লুজনিকিতে।

৩১. এবারের বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের খেলা শুরু হবে ১৪ জুন স্বাগতিক রাশিয়া ও সৌদি আরবের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে। শেষ ষোলর খেলা শুরু হবে ৩০ জুন, কোয়ার্টার ফাইনাল ৬ জুলাই ও সেমি-ফাইনাল ১০ জুলাই থেকে শুরু হবে।

৩২. বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে এবার ভিন্ন একটা রেকর্ড হতে যাচ্ছে। না, কোন উজ্জ্বল রেকর্ড নয়। টুর্নামেন্টে অংশ নেয়া দলগুলোর মধ্যে র‌্যাঙ্কিংয়ের পেছনের দিককার দুই দল মুখোমুখি হবে প্রথম ম্যাচে। রাশিয়ার র‌্যাঙ্কিং ৬৫, আর সৌদি আরবের র‌্যাঙ্কিং ৬৩।

৩৩. বিশ্বকাপের ভেন্যু একতেরিনবার্গ স্টেডিয়ামের বাইরেও দর্শক বসার ব্যবস্থা করতে হয়েছে আয়োজকদের। কারণ ফিফার নিয়ম অনুযায়ী বিশ্বকাপের ভেন্যুতে ন্যূনতম ৩৫ হাজার সিট থাকতে হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, স্টেডিয়ামের বাইরে বসে খেলাটা কিভাবে উপভোগ করবেন দর্শক?

৩৪. বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে উঠা উপলক্ষ্যে পানামার প্রেসিডেন্ট ১১ অক্টোবরকে দেশটি জাতীয় ছুটি ঘোষণা করেছেন।

৩৫. সোচি অলিম্পিক স্টেডিয়ামে ২০১৪ সালের শীতকালীন অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এবার স্টেডিয়ামটিতে বিশ্বকাপ ফুটবলের ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ইতালির স্ট্যাডিও অলিম্পিকোর পর সোচি হতে যাচ্ছে দ্বিতীয় স্টেডিয়াম যেখানে অলিম্পিকের পর ফুটবল বিশ্বকাপের ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।

৩৬. এবারের বিশ্বকাপে ফ্যাসিবাদী বা অন্যকোন ধরণের সহিংসতামূলক ঘটনা ঘটলে রেফারি খেলা বন্ধ বা বর্জন ঘোষণা করতে পারবেন।

৩৭. এবারের বিশ্বকাপে ১৭ হাজার স্বেচ্ছাসেবক থাকবে। সংখ্যাটা ব্রাজিলের বিশ্বকাপের চেয়ে ২ হাজার বেশি। আর এদের বেছে নেয়া হয়েছে ১ লক্ষ ৭৬ হাজার আবেদনকারী থেকে। এর মধ্যে ৬৪ শতাংশ নারী স্বেচ্ছাসেবক।

৩৮. এবারের বিশ্বকাপের ভবিষ্যতবাণী করবে অ্যাকিলিস নামের একটি বধির বিড়াল। জ্যোতিষ এ বিড়ালের নিবাস সেন্ট পিটার্সবার্গ জাদুঘরে। গতবছরের কনফেডারেশন কাপে করা একটি ছাড়া তার সবগুলো ভবিষ্যতবাণীই সত্যি হয়েছে।

৩৯. রাশিয়ার কৃষি বিভাগ বিশ্বকাপের সময় পঙ্গপালের আক্রমণ মহামারি আকার ধারণ করতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে। বিশ্বকাপ দেখতে যাওয়ার আগে মশারি নিতে ভুলবেন না কিন্তু!

৪০.এবারের বিশ্বকাপে টিকিটের মূল্য ধরা হয়েছে সর্বনিম্ন ৮৫ ইউরো থেকে সর্বোচ্চ ৮৯২ ইউরোর মধ্যে। তবে রাশিয়ার অধিবাসীরা এর চেয়ে কম মূল্যে টিকিট নিতে পারবেন। তারা সর্বনিম্ন ১৯ ইউরো দিয়ে টিকিট কিনতে পারবেন।

৪১. মাঠে বসে বিশ্বকাপে নিজেদের দলের ম্যাচ দেখার জন্য টিকেটের অনুরোধের হার ধীরে ধীরে বাড়ছে। তবে এ ক্ষেত্রে এগিয়ে আছেন জার্মানির সমর্থকরা। স্বাগতিক রাশিয়ার পর জার্মানরাই টিকেটের জন্য বেশি অনুরোধ করেছেন। এ পর্যন্ত ৩৩৮,৪১৪ জন জার্মান বিশ্বকাপ টিকেটের জন্য অনুরোধ করেছেন।

৪২. এবারের বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করছে রাশিয়া। যা ৪ বছর আগে ব্রাজিলের বিশ্বকাপের ব্যয়ের চেয়ে কয়েক বিলিয়ন কম। তবে রাশিয়ার ব্যয়ের লক্ষ্য ছিল সাড়ে ১১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

৪৩. রাশিয়ার ১১টি শহরের ১২টি স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ৯টি স্টেডিয়ামই বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে নির্মাণ করা হয়েছে।

৪৪. এখন ভাবতে অবাক লাগলেও ১৯৩০ সালের বিশ্বকাপের সবগুলো ম্যাচ একটি ভেন্যুতেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল। উরুগুয়েতে ১৩ দল নিয়ে খেলা ওই টুর্নামেন্টের সবগুলো ম্যাচ হয়েছিল মন্টেভিডিও স্টেডিয়ামে।

৪৫. ৪৫ বছর বয়সী মিশরিয়ান গোলকিপার এসাম আল-হায়দারি ফুটবল বিশ্বকাপে অংশ নেয়া সবচেয়ে বয়স্ক খেলোয়াড় হতে যাচ্ছেন। মিশরের হয়ে ১৫৬ ম্যাচ খেলা এ ফুটবলারের বিশ্বকাপ অভিষেক হতে যাচ্ছে রাশিয়ায়।

৪৬. ব্রাজিলিয়ান সেনসেশন নেইমার যদি দলকে বিশ্বকাপ জেতাতে পারেন তবে বিশ্বখ্যাত ক্রীড়া সামগ্রী প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান নাইকির কাছ থেকে ৫০ হাজার মার্কিন ডলার পাবেন। আর যদি তিনি ‘প্লেয়ার অব দ্য টুর্নামেন্টে’র পুরস্কার জেতেন তবে নাইকি তাকে দেবে ২ লক্ষ মার্কিন ডলার।

৪৭. যদি নাইজেরিয়ার স্ট্রাইকার মোহাম্মদ নুর বিশ্বকাপে দলের হয়ে খেলেন তবে তিনিই হবেন বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া সবচেয়ে কম বয়সী খেলোয়াড়। ২০০২ সালের ডিসেম্বরে জন্ম নেওয়া নুরের বয়স মাত্র ১৫ বছর। বর্তমানে বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া সবচেয়ে কম বয়সী খেলোয়াড়ের রেকর্ড নর্দান আয়ারল্যান্ডের নরম্যান হোয়াইটসাইডের দখলে। ১৯৮২ সালে মাত্র ১৭ বছর ৪১ দিন বয়সে তিনি বিশ্বকাপে অংশ নেন।

৪৮. জার্মানি ও স্পেনেরই কেবল এক বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ১০টি ম্যাচ জেতার রেকর্ড রয়েছে। ২০১০ সালের বাছাইপর্বের সবগুলো ম্যাচ জিতেছিল স্পেন। আর এবারের বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের ১০টি ম্যাচই জিতেছে জার্মানি।

৪৯. এবার বিশ্বকাপ জয়ী দল প্রাইজমানি হিসেবে পাবে ৩৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর রানার্স আপ দল পাবে ২৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। গ্রুপ পর্যায়ের দলগুলো পাবে ৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার করে। যা ২০১৪ সালে ব্রাজিলের বিশ্বকাপের চেয়ে ১২ শতাংশ বেশি।

৫০. যদি জার্মানি বিশ্বকাপ জেতে তবে তাদের প্রত্যেক খেলোয়াড় ৩ লক্ষ ৫০ হাজার ইউরো করে পাবেন।

৫১. ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম 'দ্য গার্ডিয়ান' জানিয়েছে, ফিফার সাবেক চিকিৎসা প্রধান তদন্ত করে রাশিয়াকে তাদের ফুটবলারদের ডোপ দেয়ার অপরাধে অভিযুক্ত করেছিলেন। তবে তার কাজ ২০১৬ সালে সমাপ্ত করে দেয়া হয়। এবার যদি রাশিয়ানরা তাদের সর্বকালের সেরা পারফরম্যান্স দেয় তবে কি হবে?

৫২. ইরানের কোচ কার্লোস কুইরোজ বলেছেন, নিজেকে মানুষ প্রমাণ করার আগ পর্যন্ত মেসিকে বিশ্বকাপে নিষিদ্ধ রাখা হোক।

৫৩. রাশিয়ার বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (VAR) চালু করতে যাচ্ছে ফিফা। আন্তর্জাতিক ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন বোর্ড স্থায়ীভাবে এ প্রযুক্তি ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে। যদিও এটি নিয়ে যথেষ্ট বিতর্ক রয়েছে।

৫৪. টিম ফিজিওরা খেলোয়াড়দের নিরাপত্তার সুবিধার জন্য ক্যামেরা প্রযুক্তি ব্যবহার করতে পারবেন।

৫৫. এবারের বিশ্বকাপে অতিরিক্ত সময় চতুর্থ অতিরিক্ত খেলোয়াড় নামানো যাবে।

৫৬. আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসি (৩০) ও পর্তুগিজ তারকা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর (৩৩) জন্য সম্ভবত এটাই শেষ বিশ্বকাপ।

৫৭. মেসি-রোনালদো ছাড়াও আরো বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়ের এটাই শেষ বিশ্বকাপ হতে পারে। এর মধ্যে রয়েছেন লুইস সুয়ারেজ (৩১), আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা (৩৩), লুকা মদ্রিচ (৩২), থিয়াগো সিলভা (৩৩), দানি আলভেস (৩৪), রাফা মার্কুইজ (৩৯), ভিনসেন্ট কোম্পানি (৩১), কিয়াসুক হোন্ডা (৩১), রাদামেল ফ্যালকাও (৩২)।

৫৮. টুর্নামেন্টটিতে এক মাসে ৬৪ টি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।

৫৯. ১৯৭০ সালে ব্যবহৃত আইকনিক সাদা-কালো বলের নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান 'অ্যাডিডাস' রাশিয়ার বিশ্বকাপের জন্য বল তৈরি করেছে।

৬০. উরুগুয়েতে অনুষ্ঠিত প্রথম বিশ্বকাপের ফাইনালে প্রথমার্ধে খেলা হয়েছিল আর্জেন্টিনার বল দিয়ে। আর দ্বিতীয়ার্ধে খেলা হয়েছিল উরুগুয়ের বল দিয়ে। ওই ম্যাচে ৪-২ ব্যবধানে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল উরুগুয়ে।

৬১. আইসল্যান্ডের ৩৩ বছর বয়সী গোল কিপার থর হ্যাল্ডরসন দেশটি জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাতাও।

৬২. বিশ্বকাপে অংশ নেয়া দেশগুলোর মধ্য আয়তনের দিক দিয়ে রাশিয়া সবচেয়ে বড়। দেশটিতে ১১টি ভিন্ন ভিন্ন টাইমজোন রয়েছে। এর মধ্যে ৪টি টাইমজোন জুড়ে বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে।

৬৩. বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ গোলদাতা জার্মানির মিরোসলাভ ক্লস। চারটি টুর্নামেন্টে ২৪ ম্যাচে তিনি গোল করেছেন ১৬টি। এবার তারই স্বদেশি টমাস মুলার হয়তো ভেঙ্গে দিতে পারেন এ রেকর্ড। বিশ্বকাপে ১৩ ম্যাচে মুলারের গোল ১০ টি।

৬৪. বিশ্বকাপে ডেনমার্ক তাদের ২৭টি গোলই করেছে ডি-বক্সের ভেতর থেকে।

৬৫. এবারের বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ রাশিয়ার বিরুদ্ধে রয়েছে অভিযোগের পাহাড়। খেলাধুলার ক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে বড় অভিযোগ হচ্ছে, দেশটি খেলোয়াড়দের ডোপ নিতে রাষ্ট্রীয়ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা করে। এছাড়া রাশিয়ার বিরুদ্ধে ফ্যাসিবাদ, মানবাধিকার বিরোধী কার্যক্রমের অভিযোগ রয়েছে।

৬৬. প্রচলিত আছে, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ফুটবল খেলা মোটেও পছন্দ করেন না।

৬৭. যে ১১টি শহরে বিশ্বকাপের ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে, সে শহরগুলোতে জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য রাশিয়া প্রচুর বেওয়ারিশ কুকুর হত্যা করেছে। রেডিও ফ্রি উইরোপের তথ্য মতে, এক একটি কুকুর হত্যার পেছনে দেশটি খরচ করেছে ১০৭ থেকে ১৪২ মার্কিন ডলার। ২০১৪ সালের শীতকালীন অলিম্পিকের সময়ও রাশিয়া এভাবে বেওয়ারিশ কুকুর হত্যা করেছিল।

৬৮. এবারের বিশ্বকাপের মাস্কট হচ্ছে ‘জাবিভাকা’ (গোল স্কোরার) নামে একটি নেকড়ে।

৬৯. এবারের বিশ্বকাপে ১ মিলিয়ন ফুটবল সমর্থক রাশিয়া ভ্রমণ করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

৭০. ২০০৬ সালের চ্যাম্পিয়ন ইতালি ২০১০ সালের বিশ্বকাপে ও ২০১০ সালের চ্যাম্পিয়ন স্পেন ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিল। এবার কি বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানির পালা?

৭১. বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার ‘গোল্ডেন বুট’ সব সময়ই হাতে উঠেছে আক্রমণভাগের খেলোয়াড়দের। মাত্র দুইবার এর ব্যতিক্রম হয়েছিল। ১৯৩০ সালের প্রথম বিশ্বকাপে উরুগুয়ের ডিফেন্ডার জস নাসাজ্জি এবং ২০০২ সালে জার্মানির গোলরক্ষক অধিনায়ক অলিভার কান দ্বিতীয় ও এ পর্যন্ত শেষবারের মতো আক্রমণভাগের বাইরের খেলোয়াড় হিসেবে গোল্ডেন বুট পেয়েছিলেন।

৭২. মরক্কো দলকে ডাকা হয় ‘দি আটলাস লায়ন্স’ নামে। আর দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় ফুটবল দলের নাম ‘তাইগুক ওয়ারিয়র্স’। অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়ার ফুটবল দলের নাম ‘দি সসারুস’।

৭৩. ২০০১ সালে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে আমেরিকান সামোয়ার বিপক্ষে ৩১-০ ব্যবধানে জিতেছিল অস্ট্রেলিয়া। তবে এবারের বাছাইপর্বে অবশ্য খুব একটা বেশি গোল হয়নি। এবার সর্বোচ্চ গোল হওয়া ম্যাচটি ভুটানের বিপক্ষে ১৫-০ ব্যবধানে জিতেছিল কাতার।

৭৪. এ বছর একই গ্রুপে পড়েছে (গ্রুপ ‘এফ’) জার্মানি ও সুইডেন। ১৯৫৮ সালের বিশ্বকাপের সেমি ফাইনালে ৩-১ গোলে জার্মানিকে হারিয়েছিল সুইডেন। এরপর বিশ্বকাপে আর কখনো জার্মানদের হারাতে পারেনি সুইডিশরা।

৭৫. জার্মানি তাদের বিশ্বকাপের প্রাথমিক দল ঘোষণা করবে মে’র ১৫ তারিখ।

৭৬. এবারের বিশ্বকাপে সবচেয়ে দামি স্কোয়াড ব্রাজিলের (৬৭১.৫ মিলিয়ন ইউরো)। আর সবচেয়ে কম দামি স্কোয়াড পানামা (৫.২৫ মিলিয়ন ইউরো)।

৭৭. এবারের সবচেয়ে উদ্দীপ্ত গ্রুপ ‘ডি’। এ গ্রুপে আছে বিশ্বকাপের অন্যতম দাবিদার আর্জেন্টিনা। আর আছে ‘সুপার ঈগল’ খ্যাত নাইজেরিয়া। যাদের প্রেসিডেন্ট থেকে কোচ পর্যন্ত সবার দৃঢ় বিশ্বাস, দেশটি এবার বিশ্বকাপ জিতবে! তা হলে তো ক্রোয়েশিয়া ও আইসল্যান্ডকেও বাদ দেয়া যায় না!

৭৮. ভারত একমাত্র দেশ যারা বিশ্বকাপে সুযোগ পেয়েও অংশ নেয়নি। ১৯৫০ সালে বিশ্বকাপে অংশ নেয়ার সুযোগ পায় দেশটি। কিন্তু ফিফা’র আইন অনুযায়ী বুট ছাড়া খেলতে পারবে না বলে তারা টুর্নামেন্ট থেকে নিজেদের সরিয়ে নেয়!

৭৯. বিশ্বকাপের ইতিহাসে বদলি খেলোয়াড়ের মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি গোল এসেছে ২০১৪ সালে। ওই আসরে বদলি খেলোয়াড়রা মোট ৩২টি গোল করেছিল।

৮০. গুগলের তথ্য মতে (২০০৪ থেকে বর্তমান), ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের আগ্রহ বিশ্বকাপের চেয়ে আমেরিকান টিভি ব্যক্তিত্ব কিম কিম কার্দাশিয়ানের প্রতি বেশি।

৮১. এ পর্যন্ত দুইটি মহাদেশেই ঘুরে ফিরে বিশ্বকাপের শিরোপা গিয়েছে। ইউরোপিয়ান দেশগুলো বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছে ১১বার। অন্যদিকে দক্ষিণ আমেরিকায় বিশ্বকাপের শিরোপা গিয়েছে ৯বার।

৮২. বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি বয়সে গোল করার রেকর্ড ক্যামেরুনের ফরোয়ার্ড রজার মিলার। ১৯৯৪ সালের বিশ্বকাপে রাশিয়ার বিপক্ষে ৪২ বছর বয়সে গোল করেন তিনি।

৮৩. অপরাজিত থেকে বিশ্বকাপের শিরোপা জেতার ঘটনা এ পর্যন্ত চারবার ঘটেছে। ১৯৩০ সালে উরুগুয়ে (৪/৪), ১৯৩৮ সালে ইতালি (৪/৪) এবং ব্রাজিল ১৯৭০ সালে (৬/৬) ও ২০০২ সালে (৭/৭) অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল।

৮৪. দক্ষিণ আফ্রিকা (২০১০) ছাড়া বিশ্বকাপের আর সব আয়োজক দেশ ন্যূনতম দ্বিতীয় পর্বে উঠেছে। ৩০ শতাংশ ক্ষেত্রে (৬/২০) আয়োজক দেশ বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছে। আয়োজক দেশ হিসেবে সর্বশেষ শিরোপা জিতেছে ফ্রান্স (১৯৯৮)।

৮৫. বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি গোলের ম্যাচটি ছিল ১৯৫৪ সালে। ওই ম্যাচে ৭-৫ গোলে সুইজারল্যান্ডকে হারিয়েছিল অস্ট্রিয়া। ওই ম্যাচে হ্যাটট্রিক হয়েছিল দুইটি।

৮৬. ১৯৫৪ সালের বিশ্বকাপে মোট ৮টি হ্যাটট্রিক হয়েছিল।

৮৭. ২০১০ সালের দক্ষিণ আফ্রিকার বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার ৯ মাস পর দেশটিতে জন্মহার বেড়ে গিয়েছিল। একই ঘটনা ঘটেছিল ২০০৬ সালে, জার্মানিতে। জার্মানির কোন কোন অঞ্চলে সে সময় জন্মহার ৩০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়ে গিয়েছিল। ওই বছর ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ ছিল জার্মানি।

৮৮. বিশ্বকাপ জয় নিঃসন্দেহে অন্যতম অবিস্মরণীয় মুহূর্ত। কিন্তু বিশ্বকাপ জয়ের উদযাপন শেষ হওয়ার পর ফিফা মূল ট্রফিটি রেখে একটি রেপ্লিকা তুলে দেয় জয়ী দলের হাতে।

৮৯. সবাই বিশ্বকাপের সোনালি ট্রফিটি স্পর্শ করতে পারে না। কেবলমাত্র রাষ্ট্রপ্রধান ও বিশ্বকাপ জয়ীরাই এ ট্রফি স্পর্শ করতে পারেন।

৯০. বিশ্বকাপের বর্তমান ট্রফিতে বিশ্বকাপ জয়ী দলগুলোর নাম খোদাই করা আছে। তবে ২০৩৮ সালের পর বিশ্বকাপের বর্তমান ট্রফিতে জয়ী দলের নাম খোদাই করার জন্য জায়গা থাকবে না।

৯১. বিশ্বকাপের অন্যতম সফল দল জার্মানি। দলটি এ নিয়ে ৮ বার টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেছে। এর মধ্যে ৪ বার শিরোপা জিতেছে।

৯২. ২০০২ সালে বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো অংশ নিয়েই টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিল সেনেগাল। এবারের বিশ্বকাপে দ্বিতীয়বারের মতো অংশ নিচ্ছে দলটি।

৯৩. বিশ্বকাপের ইউরোপ অঞ্চলের বাছাইপর্বে সবচেয়ে বেশি গোলে অবদান রেখেছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। বাছাইপর্বে নিজে করেছেন ১৫টি গোল। আর অ্যাসিস্ট করেছেন ৩টিতে।

৯৪. আফ্রিকান অঞ্চল থেকে এবারের বিশ্বকাপে খেলতে পারতো জিম্বাবুয়ে। কিন্তু কোচ সংক্রান্ত এক বিতর্কে জড়িয়ে টুর্নামেন্ট থেকে বহিষ্কৃত হয় দেশটি।

৯৫. ১৯৯০ সালের পর এবারই প্রথম বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলছে মিশর।

৯৬. বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি লাল কার্ড দেখেছে ব্রাজিলিয়ানরা। টুর্নামেন্টে তারা মোট লাল কার্ড দেখেছে ১১বার। এরপরই আছে আর্জেন্টিনা (১০) ও উরুগুয়ে (৯)।

৯৭. আফ্রিকান দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশিবার বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছে নাইজেরিয়া। রাশিয়ায় ষষ্ঠবারের মতো তারা এ টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছে।

৯৮. পেরু সর্বশেষ বিশ্বকাপ খেলেছে ১৯৮২ সালে। ২৬ বছর পর রাশিয়ার বিশ্বকাপে আবার চূড়ান্ত পর্ব খেলছে দেশটি।

৯৯. কোচ হিসেবে সবচেয়ে বেশি বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছেন উরুগুয়ের কোচ অস্কার তাবারেজ। এটি তার চতুর্থ বিশ্বকাপ।

১০০. বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি শিরোপা জয়ী দল ব্রাজিল। তারা বিশ্বকাপ জিতেছে ৫ বার। এরপরই আছে জার্মানি ও ইতালি। দল দুইটি শিরোপা জিতেছে ৪ বার করে।

পিএ

 
.




আলোচিত সংবাদ