সেই বার্সেলোনার চেয়ে এই বার্সেলোনা ভালো?

ঢাকা, রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮ | ১০ আষাঢ় ১৪২৫

সেই বার্সেলোনার চেয়ে এই বার্সেলোনা ভালো?

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৩৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৮

print
সেই বার্সেলোনার চেয়ে এই বার্সেলোনা ভালো?

তুলনাকে অসমই মনে হচ্ছে। সাফল্য বিচারে সেই বার্সেলোনার সঙ্গে এই বার্সেলোনার তুলনা একদমই চলে না। তারপরও স্পেন জুড়ে এখন আলোচনার ঝড়, সেই বার্সেলোনার চেয়ে কি এই বার্সেলোনা ভালো? সেই বার্সেলোনা বলতে, পেপ গার্দিওলার সময়কার অপ্রতিরোধ্য বার্সেলোনা। আর এই বার্সেলোনা মানে, আর্নেস্তো ভালভার্দের অধীনে এখন যে বার্সেলোনা আবার নতুন করে বিশ্বকে শাসন করার বার্তা ছড়াচ্ছে। যা দেখে শুধু তুলনা করা নয়, গার্দিওলার সেই ফ্রতিরোধ্য বার্সেলোনার চেয়ে ভালভার্দের এই বার্সেলোনা ভালো কিনা, চলছে সেই আলোচনাও!

২০০৮ থেকে ২০১২, এই চারটি বছর বার্সেলোনার কোচের দায়িত্বে ছিলেন গার্দিওলা। তার সময়ে সত্যিকার অর্থেই বার্সেলোনা একচ্ছত্র রাজত্ব করেছে বিশ্ব ক্লাব ফুটবলে। বিশেষ করে ২০০৯, ২০১০ ও ২০১১, এই তিন বছর বার্সেলোনা এতোটাই অপ্রতিরোধ্য ছিল যে, পাত্তাই পায়নি বিশ্বের কোনো দল।

মাঠে টিকি-টাকা ছন্দের জাদু ছড়িয়ে ফুটবলপ্রেমীদের মোহিত করাই শুধু নয়, গার্দিওলার সেই বার্সেলোনা শিরোপা সাফল্যেও ছিল অপ্ররোধ্য। ওই ৩ বছরেই বার্সেলোনা জিতে নেয় ৩টি লিগ, দুটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগসহ মোট ১৪টি শিরোপা!

বিপরীতে আর্নেস্তো ভালভার্দের অধীনে বার্সেলোনা এখনো পর্যন্ত কোনো শিরোপার স্বাদই পায়নি। এই মৌসুমেই বার্সার কোচের দায়িত্ব নিয়েছেন ৫৪ বছর বয়সী ভালভার্দে। একটি মাত্র শিরোপা জয়ের সুযোগই পেয়েছেন তিনি। কিন্তু মৌসুমের শুরুতেই ভালভার্দের বার্সাকে হারিয়ে স্প্যানিশ সুপার কাপের সেই শিরোপা জিতে নেয় রিয়াল মাদ্রিদ।

তবে শুরুতে শিরোপা সুযোগ হারিয়েছে বটে। তবে এরপর থেকেই যেন নতুন রূপে জেগে উঠেছে বার্সেলোনা। উড়ন্ত পারফরম্যান্স দিয়ে বার্সেলোনার জয়রথকে দুর্বার গতিতে ছুটিয়ে চলেছেন মেসি-সুয়ারেজরা। যে জয়রথে চেপে এরই মধ্যে লিগ শিরোপার সুবাস পেতে শুরু করেছে ভালভার্দের বার্সা। শুধু তাই নয়, দূরন্ত জয়রথ ভালভার্দের বার্সেলোনাকে নিয়ে গেছে পেপ গার্দিওলার বার্সেলোনার অনন্য এক রেকর্ডের সামনেও!

শিরোপা সাফল্য বিচারে অসম মনে হওয়া তুলনাও হচ্ছে এই রেকর্ড প্রসঙ্গেই। ২০১০-১১ মৌসুমে লিগ শিরোপা জয়েল পথে টানা ৩১ ম্যাচে অপরাজিত ছিল বার্সেলোনা। ভালভার্দের অধীনে এই বার্সেলোনা লিগে সর্বশেষ ৩০ ম্যাচে অপরাজিত। এই তথ্যে অবশ্য একটু ফাঁক আছে। এই ৩০ ম্যাচের মধ্যে বার্সেলোনা নতুন কোচ ভালভার্দের অধীনে খেলেছে ২৩টি ম্যাচ। বাকি ৭টি ম্যাচ খেলেছে গত মৌসুমে, তখন কোচ ছিলেন লুইস এনরিকে। মানে বার্সার এবারের অপরাজিত যাত্রাটা শুরু হয়েছে গত মৌসুমের শেষ সাত ম্যাচ থেকে।

তা শুরু যখনই হোক, তা ধরে রেখে ভালভার্দে লিগৈ এখনো পর্যন্ত অপরাজিত। আর একটি ম্যাচে জয় বা ড্র করতে পারলেই গার্দিওলার সেই রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলতে পারবেন ভালভার্দে। আর ভালভার্দের দল সেই সুযোগ পেয়ে যাচ্ছে আজ রাতেই।

কারণ, আজ রাতেই লিগ ম্যাচ খেলতে নামছে বার্সা। প্রতিপক্ষ পুঁচকে এইবার। কাজেই ফুটবলবোদ্ধারা ধরেই নিয়েছেন গার্দিওলার দলের রেকর্ডে ঠিকই ভাগ বসাতে যাচ্ছে ভালভার্দের দল! আজ রেকর্ড ছুঁতে পারলে ভালভার্দের সুযোগ থাকবে গার্দিওলাকে ছাপিয়ে যাওয়ারও।

২০১০-২০১১ মৌসুমে গার্দিওলার সেই অপ্রতিরোধ্য বার্সেলোনার মূল কারিগর ছিলেন যে ১১ জন, তারা হলেন গোলরক্ষক ভালদেস, রক্ষণে দানি আলভেস, জেরার্ড পিকে, কার্লোস পুয়োল, এরিক আবিদাল, মাঝমাঠে জাভি, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, সার্জিও বুটকেটস, আক্রমণভাগে লিওনেল মেসি, ডেভিড ভিয়া ও পেদ্রো।

ভালভার্দের দলের মূল কারিগর গোলরক্ষক টের স্টেগান, রক্ষণে সার্জিও রবার্তো, পিকে, উমতিতি, জর্ডি আলবা, মাঝমাঠে ইভান রাকিতিচ, ইনিয়েস্তা, পওলিনহো, বুটকেটস ও আক্রমণভাগে মেসি ও সুয়ারেজ।

পরের এই নামের তালিকাটা দেখে একটু বিস্ময়ই ঠেকার কথা। কারণ, এই মৌসুমে বিশাল অঙ্কের টাকা দিয়ে দলে ভেড়ানো ফিলিপে কুতিনহো ও উসমানে ডেম্বেলের নাম নেই! কারণটাও স্পষ্টই। তারা যোগ দিলেও এখনো পর্যন্ত বার্সার হয়ে অবদান রাখার সুযোগ তেমন পাননি।

তাদের ছাড়াই অপ্রতিরোধ্য বার্সা। তারা দুজন পুরোদমে শুরু করলে বার্সার শক্তি আরও বৃদ্ধি পাবে সেটা অনুমিতই।

শিরোপা সাফল্য হয়তো পায়নি। কিন্তু মাঠে নেমে প্রতিপক্ষদের যেভাবে নাস্তানুবাদ করে ছাড়ছেন মেসি-সুয়ারেজরা, তা দেখেই ফুটবলবোদ্ধারা এরই মধ্যে ওই তুলনাটা শুরু করে দিয়েছেন। ভালভার্দের দল এই উড়ন্ত ফর্ম কতদিন ধরে রাখতে পারবে, বলবে সময়। তবে যেভাবে ছুটছে, তাতে আভাস-ইঙ্গিতে স্পষ্ট, বিশ্ব ক্লাব ফুটবলে আবার বার্সেলোনার রাজত্ব প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে!

কেআর

 

 
.




আলোচিত সংবাদ