যে গুণের কারণে কুতিনহো মেসির পরিপূরক

ঢাকা, বুধবার, ২৩ মে ২০১৮ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

যে গুণের কারণে কুতিনহো মেসির পরিপূরক

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:২৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০২, ২০১৮

print
যে গুণের কারণে কুতিনহো মেসির পরিপূরক

নতুন ক্লাব বার্সেলোনার হয়ে এরই মধ্যে ৩টা ম্যাচ খেলে ফেলেছেন ফিলিপে কুতিনহো। গত বৃহস্পতিবার এসপানিওলের বিপক্ষে কোপা ডেল রের কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে অভিষেক। এরপর গত রোববার আলাভেসের বিপক্ষে লিগ ম্যাচে জায়গা পান শুরুর একাদশেই। খেলেছেন পুরো ম্যাচেই। গতকাল বৃহস্পতিবার আবার ভ্যালেন্সিয়ার বিপক্ষে কোপা ডেল রের সেমিফাইনালের প্রথম লেগে খেললেন বদলি হিসেবে। অ্যালেক্সিস ভিদালের পরিবর্তে মাঠে নামেন ৫৮ মিনিটে। মানে তিন ম্যাচে মাঠে কাটিয়েছেন মোট ১৪৪ মিনিট (২২+৯০+৩২)। এই সময়ের মধ্যে ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি লিওনেল মেসির যোগ্য পরিপূরক। মাঠে মেসির সঙ্গে তার রসায়নটা দারুণ!

ঠিক মেসির সঙ্গে নেইমারের রসায়ন যেমন ছিল। কুতিনহো প্রমাণ করে দিয়েছেন তিনি স্বদেশি নেইমারের যোগ্য বিকল্পই হবেন বার্সেলোনায়। কীভাবে? সেই ব্যাখ্যাটা দিয়েছেন বার্সেলোনার কোচ স্বয়ং আর্নেস্তো ভালভার্দে। বার্সা কোচ বুঝিয়ে দিয়েছেন, নেইমার চলে যাওয়ায় মাঠে মেসি যে শূন্যতাটা অনুভব করছিলেন, কুতিনহো আসায় তা দূর হয়ে গেছে।

বার্সা কোচের দাবি, কুতিনহোর বহুমুখী প্রতিভার সুবাদে সবচেয়ে বেশি লাভবান হয়েছেন মেসি। মাঠে মেসি এখন অনেক বেশি নির্ভার। খেলতে পারছেন স্বাধীনভাবে। কুতিনহোর সঙ্গে জুটি বেধে মেসি বদলের আদান-প্রধানটা করতে পারছেন আরও ভালোভাবে। সহজেই গড়তে পারছেন আক্রমণ।

এসপানিওলের বিপক্ষে অভিষেকেই নিজের বহুমুখী প্রতিভার স্বাক্ষর রাখেন কুতিনহো। বার্সার খেলায় যোগ করেন ব্রাজিলিয়ান ‘সাম্বার’ ছন্দ। পরের দুই ম্যাচের নিজের এই ‍গুণটা আরও স্পষ্ট করে ফুটিয়ে তুলেছেন কুনিতহো। ২৫ বছর বয়সী ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গারের প্রতিভা-দক্ষতা-নৈপূণ্যে ভালভার্দে মুগ্ধ, অভিভূত, ‘আমার সাধারণ পরিকল্পনা, মাঝমাঠে লিও মেসির সঙ্গে সে যেকোনো একপাশে খেলবে। তবে সে মাঝমাঠের ডান, বাম, দুই পাশেই খেলতে পারে। উইংয়েও দুর্দান্ত।’

গত রোববার আলাভেসের বিপক্ষে লিগ ম্যাচটাতে প্রথমে মাঝমাঠের ডান পাশে খেলেন কুতিনহো। পরে বর্ষিয়ান মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা উঠে যাওয়ার পর কুতিনহো সাইড বদল করে চলে যান বাম পাশে। ইনিয়েস্তার জায়গায়। সেখানেও নিজের দক্ষতাটা প্রমাণ করেছেন।

ইনিয়েস্তার ঘাটতিটা বুঝতেই দেননি। বার্সা কোচ সেই প্রসঙ্গ টেনে বললেন, ‘সে প্রথমে ডান পাশেই খেলছিল। তবে আন্দ্রেস (ইনিয়েস্তা) উঠে যাওয়ার পর বাম পাশে চলে যায়। প্রান্ত বদলালেও তার খেলায় বিঘ্ন ঘটেনি। দলের খেলায়ও না। সে সত্যিই বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। এমন একজনকেই দরকার ছিল বার্সেলোনার। আমি খুব খুশি।’

খুশি মেসি-সুয়ারেজরাও। মুগ্ধ বার্সেলোনার সমর্থক, কর্মকর্তারাও। বার্সেলোনার মতো বিশ্বসেরা ক্লাবে, মেসির মতো বিশ্বসেরা খেলোয়াড়ের পাশে দ্রুত মানিয়ে নিতে পেরে কুতিনহো নিজেও নিশ্চয় খুব খুশি!

কেআর

 
.

Best Electronics Products



আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad