পিএসজি ও বার্সেলোনাকে ‘দেখালেন’ গার্দিওলা!

ঢাকা, বুধবার, ২৩ মে ২০১৮ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

পিএসজি ও বার্সেলোনাকে ‘দেখালেন’ গার্দিওলা!

পরিবর্তন ডেস্ক ৭:২১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩১, ২০১৮

print
পিএসজি ও বার্সেলোনাকে ‘দেখালেন’ গার্দিওলা!

একদিকে খেলোয়াড় ক্রয়ের পেছনে উদার হস্তে টাকা ঢালছেন পেপ গার্দিওলা। অন্যদিকে বইছে সমালোচনার ঝড়। এ মৌসুমে ৬ জন নতুন খেলোয়াড় কিনেছে গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটি। সেই ৬ জনকে কিনতেই সিটির খরচ ৩১৩ মিলিয়ন ইউরো! এমনিতেই খরচের অঙ্কটা অনেক বড়। অঙ্কটাকে আরও বেশি বেমানান করে তুলেছে অন্য একটা তথ্য। কাড়ি কাড়ি টাকা ঢেলে গার্দিওলা নতুন যে ৬ জন খেলোয়াড় কিনেছেন, তার ৫ জনই খাঁটি ডিফেন্ডার। ডিফেন্ডারদের পেছনেই এতো এতো টাকা ঢালা কেন, এই প্রশ্নের উত্তর দিতে দিতে ক্লান্ত সিটির স্প্যানিশ কোচ।

একই প্রশ্নের উত্তর কতবার আর দেওয়া যায়! সমালোচনার তোড় থেকে বাঁচতে গার্দিওলা তাই এবার হাঁটলেন অন্য পথে। ‘ঢাল’ বানালেন পিএসজি ও বার্সেলোনাকে। না, গার্দিওলা সরাসরি পিএসজি বা বার্সেলোনার নাম উচ্চারণ করেননি। তবে ইঙ্গিতে যা বলেছেন, তাতে তার আঙুল যে পিএসজি আর বার্সেলোনার দিকেই তাক করা, সেটা ফুটবলের ‘ফ’ বোঝে না, এমন দর্শকদের কাছেও স্পষ্ট।

গত গ্রীষ্ম থেকে জানুয়ারির শীতকালীন উইন্ডো মিলিয়ে খেলোয়াড় ক্রয়ে সবচেয়ে এবার বড় চমক দেখিয়েছে পিএসজি এবং বার্সেলোনাই। নেইমার ও কিলিয়ান এমবাপে, এই দুজনকে কিনতেই পিএসজি ঢেলেছে ৪০২ মিলিয়ন ইউরো! ফিলিপে কুতিনহো ও উসমানে ডেম্বেলে, এই  দুজনকে কিনতে বার্সেলোনার নগদ খরচই ২২৫ মিলিয়ন ইউরো। চুক্তির মোট অঙ্ক ধরলে অঙ্কটা ৩০৭ মিলিয়ন ইউরো (কুতিনহোর চুক্তিটা ১৬০ মিলিয়ন ইউরোর, ডেম্বেলের চুক্তি ১৪৭ মিলিয়ন ইউরো)!

মানে দুজনেই পেছনেই পিএসজি-বার্সার খরচ ৩০০ মিলিয়ন ইউরোর বেশি। সেখানে গার্দিওলা ৩১৩ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কিনেছেন ৬ জন। সমালোচনার ঝড় থেকে বাঁচতে গার্দিওলা তাই বলেছেন, অনেক ক্লাবই আছে যারা ৩০০ মিলিয়ন দিয়ে দুজন খেলোয়াড় কিনেছে, ‘সমালোচনার কারণটা বুঝতে পারছি। মানছি খরচটা একটু বেশিই হয়ে গেছে। কিন্তু ভালো খেলোয়াড়দের দাম বেশিই হয়।’

ম্যান সিটির কোচ এরপরই বলেছেন আসল কথাটা, ‘এমনস ক্লাবও আছে, যারা দুজনের পেছনেই এই পরিমাণ টাকা খরচ করেছে। আমরা সেখানে ৬ জনকে কিনেছি।’ ইংল্যান্ডে এমন সমালোচনাও আছে, স্রেফ টাকার জোরেই লিগ শিরোপা জয়ের পথে গার্দিওলার সিটি। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কোচ হোসে মরিনহো সরাসরিই বলেছেন, সিটি যে পরিমাণ টাকা ঢালতে, তাতে ইংল্যান্ডের কোনো ক্লাবের পক্ষেই তাদের সঙ্গে টেক্কা দেওয়া সম্ভব না।

গ্রীষ্মের দলবদলের সময়ই সিটি কিনেছিল কাইল ওয়াকার, বেঞ্জামিন মেন্ডি, দানিলো, জন স্টোনসদের। সম্প্রতি আবার অ্যাথলেতিক বিলবাও থেকে ৭০ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে দলে টেনেছে তরুণ ফরাসি ডিফেন্ডার অ্যামেরিক লেপোর্তেকে।

তবে নতুন খেলোয়াড় ক্রয়ের পেছনে এতো টাকা ঢালার অন্য একটা যুক্তিও দেখালেন সাবেক বার্সেলোনা কোচ। গার্দিওলা দাবি করলেন, সিটিতে অন্তত ৭ জন খেলোয়াড় আছেন, যাদের বয়স ৩০-এর উপরে। তাদের চুক্তির মেয়াদও শেষের দিকে। মানে ৭ জনই খুব কম সময়ের মধ্যেই ক্লাব ছেড়ে বেরিয়ে যাবেন।

গার্দিওলা তাই আগে থেকেই তাদের বিকল্প খেলোয়াড়কে কিনে রাখছেন। যাতে দলে শূন্যতার সৃষ্টি না হয়! সেই যুক্তিতে গার্দিওলার দাবি, ‘আমরা খেলোয়াড় ক্রয়ের পেছনে খরচ করেছি। এই খরচ করাটা যুক্তিসংগতই। কারণ, আমাদের ৪ থেকে ৫ জন ডিফেন্ডার ক্লাব থেকে চলে যাবে।’

দেখা যাক, গার্দিওলার এই যুক্তি সমালোচনার ঝড় থামাতে পারে কিনা।

কেআর

 

 
.

Best Electronics Products



আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad