‘পারলে সোভিয়েত পতনের প্রক্রিয়া উল্টে দিতাম’

ঢাকা, সোমবার, ২৫ জুন ২০১৮ | ১১ আষাঢ় ১৪২৫

‘পারলে সোভিয়েত পতনের প্রক্রিয়া উল্টে দিতাম’

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:৪১ অপরাহ্ণ, মার্চ ০৪, ২০১৮

print
‘পারলে সোভিয়েত পতনের প্রক্রিয়া উল্টে দিতাম’

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, পারলে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের প্রক্রিয়া তিনি উল্টে দিতেন। সম্প্রতি রাশিয়ার ‘অপ্রতিরোধ্য’ পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে গর্ব করার ঠিক পরপর সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন নিয়ে আফসোস করলেন পুতিন।

তার এই মন্তব্যে কোল্ড ওয়ারের সময় সোভিয়েত ইউনিয়ন আর পশ্চিমা দেশগুলোর মধ্যে অস্ত্র তৈরির প্রতিযোগিতা আবার নতুন করে শুরু হওয়ার আশঙ্কা করছেন অনেকে।

পুতিন সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের গোয়েন্দা সংস্থা কেজিবির সদস্য ছিলেন। এর আগেও তিনি বিভিন্ন সময়ে ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন নিয়ে খেদোক্তি করেছেন।

২০০৫ সালে এক মন্তব্যে রুশ প্রেসিডেন্ট এটিকে শতাব্দীর ‘বৃহত্তম ভূ-রাজনৈতিক বিপর্যয়’ বলে অভিহিত করেছিলেন।

১৮ মার্চ রাশিয়ায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে আবারও সোভিয়েত ইউনিয়ন নিয়ে আফসোস করে তিনি রাশিয়ার বয়স্ক নাগরিকদের কাছে নিজের জনপ্রিয়তা বাড়িয়ে তুলতে চাইছেন।

রাশিয়ার কালিনিনগ্রাদে শুক্রবার একটি প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশগ্রহণ করেন পুতিন। দেশটির ইতিহাসের কোনো ঘটনাটি তিনি পারলে বদলে দিতেন। পুতিন তাৎক্ষণিক জবাব দেন, ‘সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন।’

রাশিয়ার বাইরে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন নিয়ে কারও তেমন মাথা ব্যথা না থাকলেও ওয়াশিংটন পোস্ট জানিয়েছে, রাশিয়ার অনেকেই এখনও কম্যুনিস্ট শাসন ব্যবস্থা নিয়ে আফসোস করেন।

জরিপ সংস্থা লেভাডা সেন্টার ১৯৯২ সাল থেকে রাশিয়ানদের সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন সম্পর্কে প্রশ্ন করে আসছে। তাদের সাম্প্রতিক জরিপে দেখা যায়, দেশটির ৫৮ শতাংশ নাগরিক সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন হওয়ায় দুঃখিত। কিন্তু, সেখানকার এক চতুর্থাংশের কিছু বেশি লোক এতে দুঃখিত নয়।

ওয়াশিংটন পোস্ট বলছে, গত ২৫ বছরে রাশিয়ার মানুষের এই অনুতাপ একই রকম রয়েছে। শুধুমাত্র ২০১২ সালের ডিসেম্বরে জরিপে দেখা যায়, সেখানকার রাশিয়ার ৪৯ শতাংশ মানুষ সোভিয়েত ইউনিয়ন ভাঙ্গায় দুঃখিত, ৩৫ শতাংশ বলেন তারা দুঃখিত নন।

সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রতি সহানুভূতিশীল মনোভাব সবচেয়ে বেশি ছিল ২০০০ সালে, পুতিন ক্ষমতায় আসার ঠিক আগে আগে।

ওয়াশিংটন পোস্ট বলছে, সোভিয়েত ইউনিয়নের জন্য এই আবেগ বুঝতে হলে রাশিয়ার সাধারণ মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি বুঝতে হবে। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের ফলে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্র দেশগুলোর সঙ্গে কোল্ড ওয়ারের সময়কার উত্তেজনা প্রশমিত হয়েছিল। কিন্তু, এর ফলে বহু দিনের জন্য রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার মুখে পড়ে দেশটির অনেক মানুষ। বিশ্ববাসীর কাছেও রাশিয়ার মানুষের মর্যাদা কমে যায়।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থার বরাত দিয়ে রেডিও ফ্রি ইউরোপ জানায়, কালিনিনগ্রাদেই আরেকজন পুতিনকে প্রশ্ন করেন, রাশিয়ার ইতিহাসের কোন সময়ে বাস করতে সবচেয়ে বেশি আগ্রহী পুতিন?

এর জবাবে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেন, তিনি বর্তমান সময়েই বাস করতে ইচ্ছুক।

অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘দেখুন, আমার পূর্বপুরুষেরা সবাই ভুমিদাস কৃষক ছিলেন। কিন্তু, আমি প্রেসিডেন্ট।’

এমআর/আইএম

 
.




আলোচিত সংবাদ