নদীখাতে ১২ দিন আটকেও বাঁচলেন নারী!

ঢাকা, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৪ ফাল্গুন ১৪২৬

নদীখাতে ১২ দিন আটকেও বাঁচলেন নারী!

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:৫০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৪, ২০১৯

নদীখাতে ১২ দিন আটকেও বাঁচলেন নারী!

থাইল্যান্ডের গুহায় আটকে পড়া সেই খুদে ফুটবলারদের কথা হয়তো অনেকেরই মনে আছে। অ্যাডভেঞ্চারের নেশায় গুহায় ঢুকে প্রায় ১৮ দিন আটকে ছিল তারা। গুহার দেওয়াল বেয়ে চুঁইয়ে পড়া পানি প্রাণ বাঁচিয়েছিল খুদেদের।

অস্ট্রেলিয়ার তামরা ম্যাকবেথ-রিলের ঘটনাও অনেকটা তেমনই। অস্ট্রেলিয়ার প্রত্যন্ত এলাকায়, এক নদীখাতে টানা ১২ দিন আটকে থেকেও বেঁচে ফিরলেন তিনি।

নিছকই অ্যাডভেঞ্চারের নেশায় দুই বন্ধুকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার অ্যালিস স্প্রিংয়ের থেকে কিছুটা দূরে, প্রত্যন্ত এলাকায় ঘুরতে গিয়েছিলেন রিলে। ৫২ বছরের নারীর সঙ্গী ছিল তার প্রিয় পোষ্য রায়া।

দিনটা ১৯ নভেম্বর। এগোচ্ছিল গাড়ি। আচমকাই নদী খাতের নরম কাদায় আটকে যায় সেটি। তিনদিন গাড়ির কাছে থেকে সেটিকে টেনে তোলার চেষ্টা করেন রিলে আর তার দুই বন্ধু। কিন্তু গাড়ি এক চুল ওঠা তো দূরের কথা, আরো বেশি কাদায় বসে যেতে থাকে।

সাহায্য চাওয়ার মতো কেউ আশপাশে নেই। চারপাশে ধূ ধূ প্রান্তর। উপায়ান্তর না দেখে সেই কাদামাখা নদী খাতের কাছেই থাকতে শুরু করেন তিন বন্ধু। গাড়িতে থাকা শুকনো খাবার, পানি, মদ... সব শেষ। প্রাণ বাঁচানোর তাগিদে শুরু হয় পানির খোঁজ। কাদাভর্তি নদীবক্ষে পানির একটা গর্তের সন্ধান মেলে, কিন্তু সেটাও নোংরা, পানের অযোগ্য। সেই পানিই কাপড়ে ছেঁকে খেতে শুরু করেন রিলেরা।

এভাবে বেশ কিছুদিন কেটে যাওয়ার পর সাহায্যের সন্ধানে হাঁটতে হাঁটতে হাইওয়ের দিকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তারা। তিরান এবং হকরিজ হাইওয়ের দিকে হাঁটা শুরু করলেও কুকুরের জন্য থেকে যান রিলে। কারণ, ছোট্ট রায়া এতটা হাঁটার ধকল নিতে পারবে না।

এদিকে, এতদিন কেটে যাওয়ার পর নর্দার্ন টেরিটরি পুলিশও হেলিকপ্টার পাঠিয়ে তিনজনের খোঁজ শুরু করেছে।

গাড়ি থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে খোঁজ মেলে রিলের। অপুষ্টি, ডিহাইড্রেশনে আধমরা অবস্থা! দূর থেকে একটা ট্রাক দেখতে পেয়ে এগিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। প্রিয় পোষ্যের কোনো খোঁজ পায়নি পুলিশ। খোঁজ মেলেনি তিরান আর হকরিজেরও।

রিলের উদ্ধারকে মিরাকল বলেই মনে করছে পুলিশ। পাহাড় ঘেরা দুর্গম এলাকায় ওই নোংরা পানিই প্রাণ বাঁচিয়েছে তার। কিন্তু তিরান আর হকরিজকে কি বাঁচানো যাবে? এটাই এখন পুলিশের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ।

ওএস/এইচআর

 

বিচিত্র জগত: আরও পড়ুন

আরও